নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মৃত কালপুরুষ
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সিয়ামুজ্জামান মাহিন
  • সলিম সাহা
  • নির্যাতিতের দীর...
  • সুখ নাই

নতুন যাত্রী

  • মোঃ হাইয়ুম সরকার
  • জয় বনিক
  • মুক্তি হোসেন মুক্তি
  • সোফি ব্রাউন
  • মুঃ ইসমাইল মুয়াজ
  • পাগোল
  • কাহলীল জিব্রান
  • আদিত সূর্য
  • শাহীনুল হক
  • সবুজ শেখর বেপারী

আপনি এখানে

ভিকারুননিসা নূন কলেজের ছাত্রীদের চরিত্রহনন


ভিকারুননিসা নূন কলেজের সাথে নটরডেম কলেজের অদৃশ্য এক বিরোধ লেগেই থাকতো। মূলত, এমন আচরণ দুটি শিক্ষাঙ্গনের কতিপয় শিক্ষার্থীদের মনস্তাত্ত্বিক রোগের বহিঃপ্রকাশ। দুটি শিক্ষাঙ্গনের কতিপয় শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতাকে যুদ্ধে পরিণত করেছিল। বিজ্ঞানমেলা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফল নিয়ে ঘোষিত যুদ্ধে শহিদ হলেও দুটি শিক্ষাঙ্গনের অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের মাঝে ছিল ঘোষিত-অঘোষিত, প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য প্রেম।

নটরডেমের ছেলেরা হিসাব বিজ্ঞানে যেমন দক্ষ, তেমনি জীববিজ্ঞানে অনন্য। সকল বিষয়ে নিখুঁত ও দক্ষতার প্রমাণ দেওয়ার জন্য তারা বেইলি রোডে উপস্থিত থাকাকে সাংবিধানিক অধিকার মনে করত। এদিকে ভিকারুননিসার মেয়েরা নটরডেমের দক্ষতায় কখনো মুগ্ধ, কখনো বিরক্ত।

আমরা প্রায়ই শুনতাম এবং এখনো শোনা যায়, ভিকারুননিসার মেয়েরা পড়াশোনায় ভালো হলে কি হবে, চরিত্র নাকি মাশাল্লা! তখন এসব ঠিক বুঝতাম না,কিন্তু এখন বুঝি যে নারীর শিক্ষা, স্বাবলম্বী হওয়া পুরুষেরা সহ্য করতে পারে না।

কখনো আমরা শুনি নি নটরডেম কিংবা মতিঝিল আইডিয়াল, কিংবা সেন্ট জোসেফের ছেলেরা খারাপ। কিন্তু প্রায়ই শোনা যেত ও এখনো যায় যে ভিকারুননিসা ও অগ্রণীর মেয়েরা খুব খারাপ। খারাপের সংজ্ঞা যদি ছেলে ও মেয়ের মেশা হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে ছেলেদের স্বভাব ও চরিত্র খুবই খারাপ।

কিন্তু ছেলেরা এমনই হবে- এটা পুরুষতান্ত্রিক সমাজে পুরুষদের শয়তানিকে প্রশ্রয় দেওয়ার এক সংবিধানসম অভ্যেস। মেয়েরা যত নিজের অধিকার নিয়ে সচেতন হবে, যতো বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ হবে, তীক্ষ্ণ, চটপটে, দূরদর্শী হবে, স্বাবলম্বী হবে, জ্বালাময়ী হবে, পুরষতান্ত্রিক ছেলেরা ততো অনিশ্চয়তায় পড়বে। অথচ এখানে অনিশ্চয়তায় কোন সন্দেহ থাকার প্রশ্নই আসার কথা নয়। নারী পুরুষের মিলনেই সমাজ, পৃথিবী। অথচ কথায় কথায় নারীকে ছোট্ট করে দেখা, অবহেলা করা, তাদের ব্যক্তিত্বে প্রশ্ন উত্থাপন মূলত পুরুষদের ব্যক্তিত্বহীনতার পরিচয়।

প্রায়ই শোনা যায় ভিকারুননিসার মেয়েদের সাথে প্রেম করা যায় কিন্তু বিবাহ করে সুখী হওয়া যায় না। সুখী হওয়ার সাথে নারীর অশিক্ষিত হওয়ার কী সম্পর্ক তার পক্ষে পুরুষের কাছ থেকে মনগড়া কোটি কোটি কুযুক্তি খুঁজে পাওয়া যায়। যা এই নষ্ট সমাজব্যবস্থার নষ্ট পুরুষের পক্ষে গেলেও, মূলত পুরুষদের হীনমন্যতা পরিষ্কারভাবে প্রকাশ করে।

শরীর দিয়ে তো আর জীবন কাটবে না, কারো ঘাড়ে চাপা দিয়ে তো আর সুখ আসবে না, নিপীড়নে তো ভালোবাসা পাবে না- এই সাধারণ বিষয়গুলো পুরুষতান্ত্রিক সমাজে পুরুষের মস্তিস্কে ধরা পড়ে না। সমতায় তারা ভীত, অথচ সমতাই দিতে পারে পুরুষকে হীনমন্যতা থেকে মুক্তি। নারী ও পুরুষের যৌথ উপার্জনে, যৌথ পরিশ্রমের মাধ্যমেই সামগ্রিক সমস্যা থেকে দ্রুত মুক্ত হওয়া সম্ভব।

মানবজন্মের উপর যেমন নারী-পুরুষের সমান অধিকার, একই ভাবে এই পৃথিবী, আকাশেও তাদের সমানাধিকার। নারীর অপ্রয়োজনীয় চরিত্রহননে আর যাই হোক না কেন, যৌক্তিক সত্যকে মিথ্যে করে দেওয়া যায় না।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

অনন্য আজাদ
অনন্য আজাদ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 6 দিন ago
Joined: শুক্রবার, সেপ্টেম্বর 4, 2015 - 10:56অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর