৭১এর ঘাতক সমাচার-২

২০১৩ সাল।মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী শক্তির মুখোমুখি আবার বাংলাদেশ।যুদ্ধ চলছে রাজপথে,যুদ্ধ চলছে অনলাইনে।বিরোধীদের সমস্ত প্রকার যড়যন্ত্র নস্যাত করে দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এ প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধারা।৭১এ স্বাধীনতাবিরোধীদের বিভিন্ন বক্তব্য-বিবৃতি এ লড়াইয়ের অন্যতম হাতিয়ার।ধারাবাহিক ভাবে এসব তথ্য ‘৭১এর ঘাতক সমাচার’ নামে প্রকাশিত হবে।আজ প্রকাশিত হল দ্বিতীয় পর্ব।তথ্য গুলো মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বিভিন্ন গ্রন্থ থেকে নেয়া হয়েছে।চলমান এ লড়াইয়ে প্রজন্মের বিজয় অনিবার্য।
১৩ এপ্রিলঃ
জোহর নামাজের পর বায়তুল মোকাররম থেকে গোলাম আজম,খাজা খয়েরুদ্দিন প্রমুখের নেতৃত্বে শান্তি কমিটির প্রথম মিছিল বের হয়।মিছিল শেষে আল্লাহর কাছে মোনাজাতে গোলাম আজম বলেন,’পাকিস্তানের সংহতি ও অশেষ ত্যাগ তিতিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত পাকিস্তানের বুনিয়াদ যেন অটুট থাকে।ভারতের ঘৃণ্য হামলার বিরুদ্ধে পাকিস্তান যেন উপযুক্ত জবাব দিতে পারে।’
মোনাজাত শেষেই শুরু হয় হত্যা,লুটপাট আর বাড়ি ঘর জ্বালিয়ে দেয়ার কাজ।
১৪ এপ্রিলঃ
দৈনিক সংগ্রামে বলা হয়-‘জয় বাংলা আন্দোলন বানচাল হয়ে যাওয়ায় পূর্ব পাকিস্তানে এখন সুদিন ফিরে এসেছে।পাকিস্তান বিপদমুক্ত হয়েছে।’
২২ এপ্রিলঃ
দৈনিক সংগ্রামের উপসম্পাদকীয়তে বলা হয়, ‘আজাদীর অব্যবহিত পর থেকে দেশে ইসলামী শিক্ষানীতি চালু থাকলে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আর্দশবান শিক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থাসহ অন্যান্য ব্যবস্থা অবলম্বিত হলে আমাদের সমাজ কিছুতেই বর্তমান অবস্থার সম্মুখীন হত না।’
২৫ এপ্রিলঃ
শান্তি কমিটির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘শহরে পূর্ণ স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় শান্তি কমিটির পক্ষ থেকে ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় শান্তি স্কোয়াড যাতায়ত করছেন।’
২৭ এপ্রিলঃ
মাওলানা মান্নান (পরবর্তীতে এরশাদ সরকারের ধর্ম মন্ত্রী,দৈনিক ইনকিলাবের মালিক) বলেন, ‘সশস্ত্র অনুপ্রবেশকারী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সমূলে উচ্ছেদ করার উদ্দেশ্যে পূর্ব পাকিস্তানের দেশপ্রেমিক জনগণ আজ জেহাদের জোশে আগাইয়া আসিয়াছে।’
২৯ এপ্রিলঃ
দৈনিক সংগ্রামের প্রধান শিরোনাম- “পাকিস্তানের সংহতি রক্ষার সংগ্রামে সৌদি আরবের সমর্থন।”
২ এপ্রিলঃ
শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের মেয়ে রইসী বেগম এক বিবৃতিতে বলেন, ‘১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ আমাদের ৭ কোটি পূর্ব পাকিস্তানীর জন্য মুক্তির দিন।….আলহামদুলিল্লাহ শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার অনুচরেরা চিরদিনের জন্য মঞ্চ থেকে অপসারিত হয়েছে।শয়তানী চক্রকে চূর্ণ বিচূর্ণ করার শক্তি যেন আমাদের অজেয় সশস্ত্র বাহিনীকে আল্লাহ দান করেন।….আল্লাহর নামে ইসলাম ও পাকিস্তানের প্রতি অনুগত ও ঐক্যবদ্ধ হউন।’
৪ মেঃ
দৈনিক সংগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের সমাজ বিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করে ধরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলা হয়-‘এ সমাজ বিরোধীদের দমনে সরকারকে সাহায্য করা একদিকে নিজেকে সাহায্য করা ও অপরদিকে নিজের ঈমানী দায়িত্ব পালন করার শামিল।’
৬ মেঃ
“অবৈধ আওয়ামী প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান গত ২৬ মার্চে সশস্ত্র বিদ্রোহের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা এঁটে সব আয়োজন সম্পন্ন করেছিলেন।সামরিক সরকার তা জানতে পেরেই পঁচিশে মার্চ দিবাগত রাত্রে আকস্মিক হামলা চালিয়ে তাঁর সে পরিকল্পনা নস্যাত্‍ করে দেন এবং পাকিস্তানকে নিশ্চিত ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেন।” “জনাব তাজউদ্দীন পাকিস্তানকে অস্বীকার করে ভারতের নাগরিকত্ব গ্রহণের সাথে সাথে তিনি স্বভাবতই শ্রী তাজউদ্দীন হয়ে গেছেন।” -দৈনিক সংগ্রাম।
(চলবে)

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৬ thoughts on “৭১এর ঘাতক সমাচার-২

  1. পেপার পত্রিকায় এতো এতো প্রমাণ
    পেপার পত্রিকায় এতো এতো প্রমাণ থাকতেও এদের ফাঁসিতে ঝুলাতে গলদঘর্ম হয় ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটররা। সেলুকাস…

    পোস্টের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ।

  2. সবই শালার নোংরা রাজনীতির কাজ
    সবই শালার নোংরা রাজনীতির কাজ কারবার। জনতার দিকে কোন হারমজাদার খেয়াল নেই।

    জনগন চাইছে জামাত নিষিদ্ধ হউক। সংঘাতের দোহাই দিয়া দেরী করনের কি কারন বুঝতাছিনা। জনতাই যদি দাবি করে সংঘাত করবেটা কে?

  3. এরা তো স্বঘোষিত যুদ্ধাপরাধী
    এরা তো স্বঘোষিত যুদ্ধাপরাধী বা মানবতা বিরোধী! এদের জন্য এত সাক্ষ্য প্রমাণ থাকতে নতুন করে এত সাক্ষীর প্রয়োজন কেন? আমার মাথায় আসে না। দ্রুত এসব মানবতা অরাধীদের বিচার কার্য সম্পন্ন করা হোক………

  4. “আজাদীর অব্যবহিত পর থেকে দেশে
    “আজাদীর অব্যবহিত পর থেকে দেশে ইসলামী শিক্ষানীতি চালু থাকলে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আদর্শবান শিক্ষক নিয়োগের ব্যবস্থাসহ অন্যান্য ব্যবস্থা অবলম্বিত হলে আমাদের সমাজ কিছুতেই বর্তমান অবস্থার সম্মুখীন হত না।”
    দেশের মানুষের জন্য ইসলামী শিক্ষা আর নিজেদের সন্তানদের জন্য পাশ্চাত্য শিক্ষা-ভণ্ডামি আর কাকে বলে।গোলাম আজমও তো শিক্ষক ছিল,সে তো আদর্শবান শিক্ষক না হয়ে রক্তচোষা জানোয়ার হয়েছে।
    ধন্যবাদ মোরশেদ ভাই।পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় থাকলাম।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

75 − = 73