উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে

“উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে ” – চরম জনপ্রিয় একটা বাংলা  প্রবাদ,  ঐতিহ্যগত ভাবেই এই প্রবাদটার সফল বাস্তবায়নে “সিরম” পটু এদেশের  আপামর রাজনীতিবিদগণ… কিন্তু ইদানীং আপামর পাবলিক ও এই প্রাচীন প্রবাদের সফল  বাস্তবায়নে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহণ  করছে…. এর কারণ হচ্ছে জাতি আজ দুই পার্টিতে  বিভক্ত – নাহ, বিএনপি আর আওয়ামিলীগ না ; “আস্তিক পার্টি” আর “নাস্তিক পার্টি” তে বিভক্ত পুরা  দেশ……. !! যার সূত্রপাত ব্লগার রাজীব হায়দারের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে , তাকে নিয়ে এমন কিছু নোংরা  পলিটিক্স খেলছে জামাতি জারজ্রা , যা বাংলাদেশের ইতিহাসেই বিরল !!! শুধু জামাতিদের দোষ বললে অবশ্য বিম্পির প্রতি অবিচার করা হবে ….. জারজীয় রাজনীতি বা “লাশ নীতি”তে তারা ও চরম সিদ্ধহস্ত …..

সবচেয়ে দুঃখজনক ব্যাপার হচ্ছে,  আপনি যদি কোন মৃত জামাতীর দোষ নিয়ে কথা বলেন,  তাইলে তারা বলবে “মৃত ব্যাক্তির” বিরুদ্ধে বিষেদাগার করা কঠিন গুনাহ’র কাজ,  যা ইসলামে কঠোর ভাবে নিষিদ্ধ ! বিস্ময়ের ব্যাপার এটা কেবল মাত্র জামাতি বা বিএনপির মৃতদের ক্ষেত্রে  প্রযোজ্য, অন্য কোন দলের রাজনীতিবিদ দের ক্ষেত্রে এই ফর্মুলা প্রযোজ্য না !! অন্য কারো ক্ষেত্রে মৃত ব্যাক্তির নামে বিষেদাগার না করাই বরং গুনাহর কাজ !!

মৃত্যুর পর রাজীবের প্রিয় জনেরা কোথায়  তার হত্যার বিচার চাইবে , তা না – উল্টা তারা রাজীব কে নিয়ে মিথ্যাচারের প্রতিবাদ করতে করতেই পেরেশান !!! তাকে নাস্তিক মুরতাদ ঘোষনা করে “জাতীয় বেজন্মা” মাহমুদুরের চুদূর বুদূর  নেতৃত্বে জামাত বিম্পি জোট চরম মিথ্যাচার  এবং ঘৃণা ছড়ানোর রাজত্ব কায়েম করার মাধ্যমে যখন পাবলিক খেপানোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল , তখন কিন্তু “মৃত মানুষ টানাটানি না করার ” ফর্মুলাটা এপ্লাই করা হয় নাই …

তারা নিজেরাই রাজীবের নামে ব্লগ খুলে সেখানে চরম  ইসলাম বিদ্বেষী কথা বার্তা লিখে তা এমনভাবে ছড়াইছে যে, (বিশেষত গ্রাম বা মফস্বলের দিকে) পাবলিকের ভেতর অটোমেটিক্যালী এক ধরনের “জেহাদি জোশ” ভর করছে,  যার পরিণতিতে গ্রামে গ্রামে মন্দির এবং হিন্দুদের ঘর বাড়ি পোড়ানোর মহোত্‌সব চলছে , আগে হলে হয়ত সংখ্যা গুরু গ্রামবাসী তাদের যে কোন মূল্যে বাঁচাতে যেত,  কিন্তু মাহমুদুরের ক্রমাগত নেতিবাচক খবর দেখে দ্ধীধা দ্বন্ধে ভুগে হয়ত সেভাবে এগিয়ে আসে নাই  ……..

কিন্তূ নাস্তিকদের ওপর ঘৃণা বা আক্রোশ টা হিন্দু বা অন্যান্য ধর্মালম্বীদের  ওপর কেনো নাযিল  হৈল সেটাই তো মাথায় ঢুকে না !!! এরা তো নাস্তিক না,  তাইলে ..?
তর্কের খাতিরে ধরে নিলাম তারা নাস্তিক,  কিন্তূ এটা বিচারের ভার টা বিম্পি জামাতের ওপর কেনো বর্তাইল! ? তারা কি বেদ গীতা বাইবেল ইত্ত্যাদি সকল ধর্ম গ্রন্থ মুখস্থ – ঠোটস্ত করে রাখছে !!!!! এদের নাস্তিক মুর্তাদ ঘোষনার ভার টা কি তাদের ধর্ম গুরুদের হাতে ছেড়ে দেয়া উচিত না !!?

সেই সাথে আবার বাড়ি ঘর বা মন্দির ভাঙ্গার দোষটা আওয়ামীলীগের ওপর চাপিয়ে একটা হাস্যকর যুক্তি ও উপস্থাপন করছে তারা, “আওয়ামিলীগ আসলে জামাত- বিম্পিকে “বিব্রত” করার জন্য নিজেরা নিজেরাই সংখ্যা লঘুদের বাড়ি ঘর বা উপাসনালয়ের ওপর এই ঘৃণ্য  হামলা চালাচ্ছে (ফরমালিন যুক্ত বিব্রত বোধ) !!! সুতরাং এখন থেকে তাদের কর্মীরা নিজ দায়িত্ব মন্দির পাহারা দিবে” ….. !!!
ফলাফল ? তার পর দিন থেকে সংখ্যা লঘুদের ওপর আগুন লাগানো এবং নির্যাতনের ঘটনা আরো বেড়ে গেছে !! বিষয়টা আসলে “শিয়ালের কাছে মুর্গি বর্গা” দেয়ার মতোই ব্যাপার !!

এভাবেই ২০০৪ সালের আওয়ামীলীগের ওপর বোমা হামলা হবার পর ক্ষমতাসীন বিম্পি জামাত জোট আওয়ামীলীগের ঘাঁড়েই দোষ চাপাইছিল …..

এর পর দিনে দুপুরে জনসমক্ষে নির্বিচারে মানুষ খুন করে ২/৪ দিন গাছে ঝুলিয়ে রাখার মতো পৈশাচিক কর্মকাণ্ডে নেতৃত্ব দেয়া বাংলা ভাই সম্পর্কে বিম্পি জামাতের অফিসিয়াল বক্তব্য ছিল – “বাংলা ভাই বলতে কারো অস্তিত্ব নাই ,এটা মিডিয়ার সৃষ্টি ” !! সেই সাথে তারা এটাতে এক শ্রেণীর দেশীয় মিডিয়া এবং বিদেশীদের “গভীর ষড়যন্ত্রের ” গন্ধ পেয়েছিলেন,  কুত্তায় যেমন হাড্ডির গন্ধ পায় আর কি ……. অতএব দেশ কে  “অস্থিতিশীল”  করার ষড় যন্ত্র করার জন্য উল্টা  মিডিয়া আর বিদেশীদের ঘাঁড়ে চাপিয়ে দিলো তারা…..
কিন্তু শেষ পর্যন্ত দেখা গেল বাংলা ভাইর অস্তিত্ব আছে তো বটেই, এমন কি তাকে গ্রেফতার করে ফাঁসিতে লটকাইতে ও বাধ্য হৈছিল জোট সরকার …..
এই রকম উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাঁড়ে চাপানোর লক্ষ কোটি  নজির এদেশীয় রাজনীতিতে আছে …..

সেটা অবশ্য তেমন সমস্যা না,  সমস্যা হচ্ছে তাদের পাশাপাশি এখন আম পাবলিকরা ও এই “যত দোষ নন্দ ঘোষ” বা “উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাঁড়ে চাপানোর” সংস্কৃতি তে অভ্যস্ত হয়ে যাচ্ছে…… একটা নমুনা  দেই –
কয়েক দিন আগে একটা পেজে প্রথম আলোর রাজীব হাসান ভাইর নিম্নোক্ত ঐতিহাসিক উক্তিটা শেয়ার করা হৈছিল –

একটি রাজীব হাসানীয় প্রবাদ :
“সফল পুরুষ তারাই যারা নিজের বউকে সুখী রাখে। মহা সফল পুরুষ তারাই, যারা অন্যের বউকেও সুখী রাখে “…..

একটা নির্দোষ স্ট্যাটাস , তবু এক পোলা ( সাধারণ তরুণ, অবশ্যই নাস্তিক বা ছাগু না )  এই স্ট্যাটাস টা শেয়ার করে ক্যাপশন দিছে ” ব্লগার রাজীব হায়দারের অবস্থাটা দেখেন !!

রাজীব “হাসান” এর ‘পিন্ডিটা’  বর্ষিত হৈল রাজীব “হায়দারে”র ঘাড়ের ওপর  !! আরো অদ্ভুত ব্যাপার,  এটা যদি রাজীব বা অন্য কোন আলোচিত ব্যক্‌তির নামের সাথে না মিলে যেত,  তাইলে হয়ত এই পোলা লিখত “হাহাহা awesome হাস্তে হাস্তে মৈরা গেলাম বস,  জটিল কৈছেন তো, পুরাই পাংখা ….

এভাবেই চলতেছে দেশ …

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 3 = 2