বই পরিচিতিঃ বিবর্তনের পথ ধরে – বন্যা আহমেদ

বন্যা আহমেদ বিজ্ঞানের আধুনিকতম শাখাগুলো থেকে পাওয়া তথ্যের আলোকে বিবর্তনের মূল বিষয়গুলো নিয়ে কুব সহজ ভাষায় বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। প্রাণের উদ্ভবের পর থেকে এ পৃথিবীতে জীবনের বিকাশ ও বিবর্তন কীভাবে নিরন্তর ঘটে চলেছে, কীভাবে উত্তরণ ঘটছে মানুষের মতো বোধশক্তি এবং সচেতনতাসম্পন্ন একটি প্রজাতির- এ সুবিস্তৃত কাহিনীর সার্থক মঞ্চায়ন যেন ঘটেছে বইটির পাতায় পাতায়। প্রাসঙ্গিকভাবেই চলে এসেছে মহাদেশীয় সঞ্চরণ, ল্যামার্কীয় ভ্রান্ত ধারণা, ডারউইনের সমুদ্রযাত্রা গ্যালাপ্যাগাস দ্বীপের পাখি, পৌরাণিক দৈত্য সাইক্লোপস, বিশালবপু তিথিমাছদের ডাঙা থেকে পানিতে ফিরে যাওয়া, ডিএনএর রহস্যভেদ ফ্লোরস দ্বীপের বেঁটে বাটুল, ডানাওয়ালা ডাইনোসরের ফসিল পাওয়ার কাহিনীসহ নানা ধরনের আকর্ষনীয় এবং বৈচিত্যময় গল্প। বইটির সাবলীল ভাষা এবং জনবোধ্য উদাহরণ ও ব্যাখ্যাগুলো ইতোমধ্যেই ইন্টারনেটে সমাদৃত হয়েছে, আকৃষ্ট করেছে সে সমস্ত পাঠককেও যারা কখনোই বিজ্ঞানের ছাত্র ছিলেন না। বহু বিদগ্ধজনের মতেই, বাংলায় বিবর্তনের ওপরে এমন ‘স্টেট অব দি আর্ট’ বই এর আগে লেখা হয় নি।

বন্যা আহমেদ অত্যন্ত কাছ থেকে প্রত্যক্ষ করেছেন ‘জ্ঞান-বিজ্ঞানের সূতিকাগার’ হিসেবে কথিত আমেরিকায় এই শক্তিশালী মৌলবাধীদের উত্থান, তাদের সুচতুর অপপ্রচার এবং তার পাশাপাশি বিজ্ঞানী ও সমাজসচেতন প্রগতিশীল মানুষের সংগ্রামকে। বাংলায় লেখা এটাই বোধহয় প্রথম বই যেখানে এই আইডি প্রবক্তাদের উত্থান ও বিস্তৃতির ইতিহাস এবং তাদের দেওয়া ‘যুক্তি’গুলোর অসারতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। বিবর্তনের জটিল বিষয়গুলো নিয়ে তার সুললিত বর্ণনা এবং সহজবোধ্য ব্যাখ্যা যেমনি আগ্রহী করবে সাধারণ পাঠদের বিবর্তন তত্ত্বের প্রতি, তেমনি তারা শিহরিত হয়ে উঠবেন সৃষ্টিতত্ত্ব বনাম বিবর্তনের সম্মুখলড়াই প্রত্যক্ষ করে। তাঁর বইটি হয়ে উঠতে পারে প্রতিটি বিজ্ঞানমনস্ক পাঠকের অবশ্যপাঠ্য গাইড; এটি কাজ করবে সচেতন ও প্রগতিশীল মনন তৈরির দর্শন হিসেবে।

বন্যা আহমেদ বড় হয়েছেন বাংলাদেশের আলো-হাওয়ায়। একজন সচেতন প্রগতিশীল মানুষ হিসেবে কাটিয়েছেন জীবনের বড় একটি অংশ এই দেশে। তারপর পড়ালেখা করছেন আমেরিকার মিনেসোটা স্টেট ইউনিভাসিটিতে জৈব প্রযুক্তি এবং কম্পিউটার বিজ্ঞানে। বর্তমানে আটলান্টায় সিস্টেম এনালিস্ট হিসেবে কর্মরত। তাঁর লেখা বিভিন্ন বিজ্ঞানবিষয়ক প্রবন্ধ ইতোমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে দৈনিক ভোরের কাগজ, দৈনিক সমকাল, সাপ্তাহিক বিচিত্রা ও মাসিক সায়েন্স ওয়ার্ল্ডসহ অনেক পত্র-পত্রিকায়।

সূচিপত্র:

* এলাম আমরা কোথা থেকে?
* বিবর্তনে প্রাণের স্পন্দন
* অনন্ত সময়ের উপহার
* চোখের সামনেই ঘটছে বিবর্তন!
* ফসিল এবং প্রাচীন উপাখ্যানগুলো
* ফসিলগুলো কোথা থেকে এল
* এই প্রাণের মেলা কত পুরানো?
* মিসিং লিঙ্কগুলো আর মিসিং নেই
* আমাদের গল্প
* ইন্টেলিজেন্ট ডিজাইন : সৃষ্টিতত্ত্বের বিবর্তন
* যে গল্পের শেষ নেই
* বিবর্তন সম্পর্কে প্রচলিত ভুল ধারণাগুলো
* নির্ঘন্ট
* পরিভাষা

বইটি প্রকাশ করেছেন ‘অবসর প্রকাশনী সংস্থা’। মুল্যঃ ৩৭৫ টাকা। সারাদেশে বিভিন্ন সৃজনশীল বইয়ের দোকানে পাওয়া যাচ্ছে বইটি। এছাড়াও ঘরে বসে অর্ডার করলে কারিগর.কম ২০% কমে আপনার কাছে পৌছে দেবে। আজই আপনার কপি সংগ্রহ করুন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১৩ thoughts on “বই পরিচিতিঃ বিবর্তনের পথ ধরে – বন্যা আহমেদ

      1. জ্বী ভাই অন্তপক্ষে আরব্য
        জ্বী ভাই অন্তপক্ষে আরব্য রজনীর গল্পকে জীবন বিধান মানার আগে বিবর্তনবাদের গুরু স্যার চার্লস ডারউইনের কল্পকাহীনি গুলোও এদের পড়া উচিত্‍ কি বলেন ?
        বন্য ম্যাডামের বই পরে পড়া উচিত্‍ তার আগে “The origin of species by means of Natural Selection or the preservation of Favoured Races in the struggle for life” বইটা পড়া উচিত্‍ ।বন্যা আর কি লিখেছে তার চেয়ে এই বইটায় ক্লিয়ার ধারনা পাওয়া যাবে:




        1. জানতে হলে সবই পড়া উচিত। না
          জানতে হলে সবই পড়া উচিত। না পড়লে আপনি জানবেন কিভাবে? আরব্য রজনীর গল্প এবং বিজ্ঞানের পার্থক্য বুঝতে হলে দুইটাই পড়তে হবে। তবে কোরান অবশ্যই বাংলায় পড়বেন।

          1. বিবর্তনবাদ নিয়ে ,এর বিরোধী ও
            বিবর্তনবাদ নিয়ে ,এর বিরোধী ও অনেক বই পড়েছি আল্লাহ্’র ইচ্ছায়।বিবর্তনবাদের বিরোধী কমপক্ষে ১০টা বই বের হয়েছে।তাছাড়া মুসলিম লেখক হারুন ইয়াহিয়ার ৩টা বই এখনো পড়া হয়নি।(মূলত খ্রীষ্টান জীববিজ্ঞানীদের কথাই উত্থাপিত করেছেন)।বণ্যার বইটি যেহেতু PDF পাইনি তাই কিনে পড়তে হবে।আর কোরাণ বাংলা আমার মোবাইল এবং পিসিতে সর্বক্ষণই থাকে আলহামদুলিল্লাহ্ ।হাদীস ও আছে ২টা(বুখারী মুসলিম)।অন্যান্য বিজ্ঞান ভিত্তিক লেখা ,রবীন্দ্রনাথ,সুকুমার রায় ,জাফর স্যারের বৈজ্ঞানিক কল্পকাহীনি,স্যার হুমায়ুন আহমেদ,হুমায়ুন আজাদ ,প্রবীর ঘোষ,তসলিমার বই মিলিয়ে প্রায় ৫০০PDF FILE আছে আলহামদুলিল্লাহ্ ।দেখি এইসব বই মিলিয়ে কোরাণ এবং বিজ্ঞান নিয়ে কোন আলোচনা পাই কিনা ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

81 − = 71