ভীষণ একটা আফসোস

আফসোস হয় মাঝে মাঝে কেন ১৯৭১ সালে জন্ম নিতে পারি নাই, ইসসসসসসসসস দেশের জন্য মায়ের জন্য কোন কিছুই করতে পারলাম না এই জীবনে।

এখন সেই চরম মুহুর্ত দেশের জন্য কিছু করার মায়ের জন্য কিছু করার। আমি পিছ পা হব না, আমি স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক। খুন করি নাই, ডাকাতি করি নাই, বোমা মেরে মানুষ আহত করি নাই। তাই আমি স্বাধীনভাবেই বাঁচবো। মুক্ত হয়েই বাঁচবো।

যদি আমার উপর দোষ দেয়া হয় ধর্ম অবমাননার তাহলে বলব আগে তাদের ধরো যারা যুগ যুগ ধরে ধর্ম অবমাননা করতে শিখিয়েছে। তাদের ধরো যারা দেখিয়েছে আমি হিন্দু, আমার আবাস এই দেশে নয় বরং ভারতে।
তাদের ধরো যারা ডান্ডি,মালাউন বলে মেরেছে। ৯০ থেকে ২০১৩ অনেক দেখেছি অথচ একটারও বিচার কর নাই তোমরা।

যদি লেখালেখিই হয় ধর্ম অবমাননা তাহলে কাবা শরীফ নিয়ে আমার দেশ যে মিথ্যচার করেছে তার কি হবে?
জামায়াতে-ইসলামের জনক মওদুদী যে হারে নবী অবমাননা করেছে তার কি হবে?
সারা দেশে তারা যে হারে কোরান পুড়িয়েছে তার কি হবে?

ভীষণ একটা আফসোস
“জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করতে এখনো আইন খোজা হচ্ছে কিন্তু ব্লগারদের মারতে দুইদিনেই সমস্ত আইন খুঁজে বের করা হয়ে তাদের ধর-পাকড় শুরু। সকল স্বাক্ষী প্রমান থাকা স্বত্ত্বেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করতে পুরো পাঁচ বছর লেগে গেলো, জানিনা ৮৪ জন অনলাইন এক্টিভিস্ট ও ব্লগারদের বিচার করতে কয়দিন লাগবে।

মানুষ মারার বিচার করতে সময় লাগে অথচ ধর্ম নিয়ে যৌক্তিকভাবে কিছু লিখলেই তার বিচার হতে সময় লাগে না। যে মানুষ না থাকলে ধর্মের কোন মূল্যই থাকবে না সেই মানুষ বড় মূল্যহীন হয়ে গেলো।

পিতা ক্ষমা করে দিও তোমার স্বপ্নের সোনার বাংলা হয়তো গড়তে পারবো না, হয়তো তার আগেই আমাকে চলে যেতে হতে পারে। কিন্তু পিতা জেনে রাখো এক কদমও পিছ পা হয় নাই তোমার আদর্শের সৈনিকেরা। আপোষ করে নাই তোমার সন্তানেরা। মৃত্যু দুয়ারে দাঁড়িয়েও তোমার সন্তানেরা তোমাকেই অনুসরন করছে এবং ভবিষ্যতেও করবে।

হয়তো মরে যাবো, হয়তো মেরে ফেলা হবে আমাদের সর্ব্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের মাধ্যমে কিন্তু ভাইরাসের মত ছড়িয়ে পড়বো সারাবাংলায়। অতৃপ্ত আত্মা নিয়ে ঘুরব এই বাংলায়। এই মুহুর্ত পর্যন্ত আশায় বুক বাঁধি একদিন সোনার বাংলা গড়বেই।

জয় বাংলা …… জয় বঙ্গবন্ধু।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৬ thoughts on “ভীষণ একটা আফসোস

  1. গতকাল রাতের ফেসবুক
    গতকাল রাতের ফেসবুক স্ট্যাটাস

    ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছি, শ্লোগান দিয়ে জনতা জাগিয়েছি, জ্ঞানের সবটুকু দিয়ে পক্ষেই কথা বলেছি………
    .
    আর এখন পূর্ণ অনিশ্চয়তায় অনিরাপদে সময় পার করছি গভীর উৎকণ্ঠায়।
    .
    দেশটাকে সত্যিই অনেকবেশী ভালোবাসি আর তাই ঐ বেজন্মা কুত্তার বাচ্চাগুলো যখন কামড় বসায় তখন খুব কান্না পায়। তুমি তাদেরকেও কিছু করতে পারছো না।
    .
    দেশটাকে স্বাধীন করা হয়েছে সকলের সমঅধিকার নিয়ে বাঁচার জন্য, ধর্ম রক্ষার জন্য বা বাচানোর জন্য হয় নাই। অথচ আজ এই স্বাধীন দেশে ধর্ম বাচানোর নামে জনজীবন অস্থির হয়ে উঠেছে। তুমি তাদেরকেও দমাতে পারো নি।
    .
    তুমি ব্যর্থ, ব্যর্থ তোমার প্রচেষ্ঠা।
    ব্যর্থ তোমার বৈদেশিক বন্ধুত্বতা।
    .
    বরং আমিই সফল চরম সঙ্কট মুহুর্তে দাঁড়িয়েও আমি আমার আদর্শকে ধারন করে বেঁচে চলেছি।
    পিতা তুমি শোনো আমরা আজো তোমার দেখানো পথেই আছি পিতা। আমরা আপোষ করতে শিখি নাই পিতা।
    পিতা তুমি শিখিয়েছিলে মৃত্যু দুয়ারে দাঁড়িয়েও মাথা নত না করতে, আমরা মাথা নত করি নাই।

  2. যদি লেখালেখিই হয় ধর্ম

    যদি লেখালেখিই হয় ধর্ম অবমাননা তাহলে কাবা শরীফ নিয়ে আমার দেশ যে মিথ্যচার করেছে তার কি হবে?
    জামায়াতে-ইসলামের জনক মওদুদী যে হারে নবী অবমাননা করেছে তার কি হবে?
    সারা দেশে তারা যে হারে কোরান পুড়িয়েছে তার কি হবে?

    এটুকুই যথেষ্ট ! মনে হয়না আর কিছু প্রয়োজন আছে !!!!!!!!!!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

51 − 42 =