২০১৫ সালের পুলিশি অপরাধের দলিল

এ বছর, অর্থাৎ ২০১৫ সালের ১০ আগস্ট পর্যন্ত পুলিশের বেআইনি কাজগুলো এখানে সংকলিত হয়েছে। এই কয় মাসে এমন কোনো কাজ নেই, যা পুলিশ করেনি। সম্প্রতি উচ্চপদস্থদের ম্যানেজ করতে বরিশাল পুলিশের তহবিল গঠন, টাকার বিনিময়ে ক্রসফায়ার, আসামিকে পালাতে সাহায্য করার মতো সব মহলে আলোড়ন তোলা ঘটনাগুলোও এই পরিস্থিতির কোনো হেরফের ঘটাতে পারেনি।

বেপরোয়া পুলিশি অপরাধের ঘোড়া ছুটছেই। এর মধ্যেই আবার পুলিশকে কিরকম সুবিধা দেয়া হচ্ছে, সেই খবরও এখানে তুলে ধরা হয়েছে। বিশ্লেষকরা মনে করেন, ক্ষমতাসীন দলের পুলিশ দিয়ে রাজনীতি করা, বিশেষ জেলার লোক দিয়ে পুলিশ বাহিনী ভরে ফেলা, পুলিশ দিয়েই পুলিশের অপরাধের তদন্ত এবং অপরাধের পর বিচার না করে ‘ক্লোজড’ বলে সার্কুলার দেয়া- যা কিনা আদতে কোনো ব্যবস্থাই নয়, এসব তৎপরতার কারণেই পুলিশ লাগামছাড়া কর্মকান্ড করে বেড়াচ্ছে।

● ৩ জানুয়ারি, ২০১৫ : সাতক্ষীরা শহরে পুলিশের গুলিতে এক যুবক আহত হয়েছেন, যাকে ধরে নিয়ে গুলি করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গুলিবিদ্ধ যুবক মিন্টু সদরে কাঠমিস্ত্রির কাজ করেন। (বিডিনিউজ)

● ৯ জানুয়ারি, ২০১৫ : বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে গোপালগঞ্জের কতজন সদস্য রয়েছে, তার একটি তালিকা তৈরি করছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংগঠন ‘একশন গ্রুপ টু সাপোর্ট পলিটিক্যাল ভিক্টিমস ইন বাংলাদেশ’। (প্রথম আলো)

● ২৮ জানুয়ারি, ২০১৫ : দেশের প্রতি জেলায় এসপির তত্ত্বাবধানে দু’জন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চায় পুলিশ। কমান্ডিং অফিসার হিসেবে এসপি তাদের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবেন। চলমান সহিংসতা দ্রুত দমনে পুলিশ এই সুযোগ দাবি করেছে। (প্রথম আলো)

● ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ : একটি লাশ পড়লে এর পরিবর্তে দুটি লাশ ফেলে দেয়ার ক্ষমতা পুলিশের আছে, মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) শফিকুল ইসলাম। (প্রথম আলো)

● ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ : পাঁচ দিন মর্গে পড়ে থাকা যুবকের পরিচয় মিলেছে। টাকা না পেয়ে হত্যা করল পুলিশ? নিহতের বাবা অভিযোগ করেন, মুক্তিপণ বাবদ ৫ লাখ টাকা না পেয়ে পল্লবী থানার কতিপয় পুলিশ সদস্য ও সোর্স পরিকল্পিতভাবে নাহিদকে হত্যা করেছে। (প্রথম আলো)

● ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ : ধরে এনে টাকা আদায়, পুলিশের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ। রাজধানীর দারুস সালাম থানার এসআই মশিউর রহমান থানায় এনে চাপ প্রয়োগ করে এক সৌদি প্রবাসীর কাছ থেকে টাকা আদায়ের চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। (প্রথম আলো)

● ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ : পুলিশ বলছে গণপিটুনি। নিহত তিন তরুণের দেহে মোট গুলির চিহ্ন ৫৪টি। পিটুনির কোনো চিহ্ন নেই। (প্রথম আলো)

● ১ মার্চ, ২০১৫ : অবরোধের ৫৫ দিনে (১ মার্চ পর্যন্ত) কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধ’ আর ‘গণপিটুনিতে’ নিহত হয়েছে ৩৬ জন (প্রথম আলো)

● ৩ মার্চ, ২০১৫ : মানবাধিকার নেত্রী সুলতানা কামাল এক কলামে লেখেন, ‘মানবাধিকার রক্ষার নামে রাষ্ট্রীয় বাহিনীও এখন মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। আমরা সেটা সমর্থন করতে পারি না। অধিকার হরণের মাধ্যমে অধিকার প্রতিষ্ঠা হতে পারে না।’ (প্রথম আলো)

● ১১ মার্চ, ২০১৫ : হামলার সময় দাঁড়িয়ে দেখছিল পুলিশ : অভিজিৎ হত্যা। (বিডিনিউজ)

● ১৮ মার্চ, ২০১৫ : ১০ ফেব্রুয়ারি রাতে উত্তরার ৫ নম্ব^র সেক্টর থেকে কয়েক যুবক হাতকড়া পরিয়ে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নিয়ে যায় সোহেল রানা (৩৫) নামে এক আইনজীবীকে। ৩৭ দিনেও তার খোঁজ মেলেনি। (আমাদের সময়)

● ১৮ মার্চ, ২০১৫ : ১১ মার্চ দুপুরে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে সিলেটের রায়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র সাঈদকে (৯) অপহরণের পর হত্যা করা হয়। মুক্তিপণের টাকা না পাওয়া, থানায় জিডি করা এবং অপহরণকারীদের চিনে ফেলায় সাঈদকে হত্যা করা হয় বলে জানান এ ঘটনায় জড়িত পুলিশ কনস্টেবল এবাদুল। এ অপকর্মে জড়িত ছিলেন র্যারবের সোর্স গেদা মিয়া ও জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রকিব। (আমাদের সময়)

● ২৭ মার্চ, ২০১৫ : পুলিশ কর্তকর্তাদের বিরুদ্ধে এমপিদের অভিযোগের স্তূপ। (ইনকিলাব)

● ৩০ মার্চ, ২০১৫ : অভিজিৎ হত্যা : পুলিশের গাফিলতি পায়নি পুলিশ। (বিডিনিউজ)

● ৩০ মার্চ, ২০১৫ : জানুয়ারি থেকে ১৮ মার্চ পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে (তাদের হেফাজতে থাকাকালে) মারা গেছেন ৩৬ জন। (বণিক বার্তা)

● ৪ এপ্রিল, ২০১৫ : গাইবান্ধায় ৪ পুলিশের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ, ভয়ে বাড়িছাড়া নির্যাতিত নারী শিশুসহ পরিবার (মানবজমিন)

● ১৯ এপ্রিল, ২০১৫ : থানার নাম পাগলা, পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়। যার সংখ্যা হবে সহস্রাধিক। (বাংলাদেশ প্রতিদিন)

● ২০ এপ্রিল, ২০১৫ : বর্ষবরণে পুলিশের ভূমিকা ছিল হতাশাজনক : মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান। ১ বৈশাখে টিএসসিতে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে পুলিশ নারীদের ওপর বর্বর আক্রমণে নিষ্ক্রিয়তা দেখায় এবং গ্রেফতার কয়েকজনকে ছেড়ে দেয়। (সময়টিভি)

● ২৩ এপ্রিল, ২০১৫ : গ্রেফতারের পাঁচ ঘণ্টা পর আসামির মৃত্যু। গত ৩০ মার্চ দুপুর সাড়ে ১২টায় খুন হওয়া নরসিংদীর শিবপুরে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আরিফ হোসেন পাঠান হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ৩ নম্বর আসামি সাইফুল ইসলাম (৩০) গ্রেফতারের পাঁচ ঘণ্টা পর মারা গেছেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবদুল গাফফার বলেন, ‘নিহত সাইফুলের জবানবন্দি অনুযায়ী সে নিজে আরিফ মেম্বারকে মাথায় গুলি করে হত্যা করে। যার অডিও ও ভিডিও রেকর্ড আমার কাছে রয়েছে।’ অভিযোগ আছে জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি আদায় করে পুলিশ তাকে মেরে ফেলেছে এবং মামলার অন্য আসামিদের এভাবেই রক্ষা করা হয়েছে। (প্রথম আলো)

● ৫ মে, ২০১৫ : পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধি কীভাবে হলো এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত ৬ বছরে সরকার দেশে ও বিদেশে উন্নত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে পুলিশ বাহিনীকে একটি আধুনিক মানে উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছে। পুলিশের সদস্য সংখ্যা বাড়াতে ৩২ হাজার ৩১ জন সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে। পুলিশে আরও ৫০ হাজার সদস্য নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন, রংপুর রেঞ্জ, দুটি সিকিউরিটি প্রটেকশন ব্যাটালিয়ন, নৌ পুলিশ ও টুরিস্ট পুলিশ নামে বিভিন্ন বিশেষায়িত ইউনিট গঠন করা হয়েছে। (যুগান্তর)

● ৯ মে, ২০১৫ : পুলিশ সদর দফতরের তথ্য অনুযায়ী, গত তিন বছরে পুলিশের বিভিন্ন অনিয়মের বিষয়ে অর্ধ লক্ষাধিক অভিযোগ জমা পড়েছে পুলিশ সদর দফতরের সিকিউরিটি সেল এবং ডিসিপ্লিন বিভাগে। (বাংলাদেশ প্রতিদিন)

● ১৪ মে, ২০১৫ : এক বছরে পুলিশের বিরুদ্ধে ৪০ নারী নির্যাতনের অভিযোগ। (প্রথম আলো)

● ১৬ মে, ২০১৫ : আড়াইহাজারে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রতারণা করে ৪ বিয়ে ও যৌতুক দাবির অভিযোগ (যুগান্তর)

● ২১ মে, ২০১৫ : প্রশাসন-পুলিশের যোগসাজশে মানব পাচার! (এনটিভি)

● ২৮ মে, ২০১৫ : যশোরে ইসমাইল হোসেন ও আল আমিন নামের দুই বন্ধু গণপিটুনির শিকার নয় বরং পুলিশ তাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। (যুগান্তর)

● ৫ জুন, ২০১৫ : ব্যবসায়িক অংশীদারকে বিষপান করিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে রাজধানীর গুলশানের এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। (কালের কণ্ঠ)

● ১১ জুন, ২০১৫ : ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক সহিংসতা মোকাবিলায় পুলিশের অবদানের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘তারা সময়মতো তথ্য সংগ্রহ করেছে এবং আমাদের অন্য সকল গোয়েন্দা সংস্থা সমন্বিতভাবে এই তথ্য একে অপরের কাছ থেকে জেনে নিয়ে যেখানে যার যে যে দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছে বলেই আমরা এই অবস্থা থেকে উত্তরণ ঘটাতে সক্ষম হয়েছি। এখানে পুলিশ বাহিনীর একটা বিরাট ভূমিকা রয়েছে। আমাদের এই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যথেষ্ট ক্ষমতা রয়েছে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা করার।’ (এনটিভি)

● ১৪ জুন, ২০১৫ : যশোরে পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে জোড়া খুনের অভিযোগ। (এনটিভি)

● ১৪ জুন, ২০১৫ : সমাজকল্যাণমন্ত্রীর অভিযোগ। ঘুষ নিয়ে পুলিশে জঙ্গি রিক্রুট করেছে মৌলভীবাজারের এসপি । (সমকাল)

● ১৭ জুন, ২০১৫ : যৌতুক না দেয়ার জের। স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। (প্রথম আলো)

● ১৮ জুন, ২০১৫ : মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, যেসব পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ ওঠে তার তদন্ত পুলিশ সদস্যরাই করে, এটা গ্রহণযোগ্য নয়। (সমকাল)

● ২১ জুন, ২০১৫ : ফেনী থেকে ৭ লাখ ইয়াবাসহ পুলিশের এএসআই মাহফুজুর রহমানকে গ্রেফতার করে র্যা ব। এ সময় তার গাড়িচালক জাবেদকেও গ্রেফতার করা হয়। (প্রথম আলো)

● ২৩ জুন, ২০১৫ : বগুড়ায় রেলওয়ের এক পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে গাঁজা আত্মসাতের অভিযোগ। (ভোরের কাগজ)

● ২৭ জুন, ২০১৫ : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া থানার ওসি গোপাল চন্দ্র চক্রবর্তী ও এসআই আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ। (শীর্ষ কাগজ)

● ২৮ জুন, ২০১৫ : চাঁদাবাজির অভিযোগে পল্লবী থানার দুই দারোগা (এসআই) জাহিদুল ইসলাম ও জুবায়ের হোসেনসহ ১৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা। (ইত্তেফাক)

● ২৮ জুন, ২০১৫ : রাজধানীর কাফরুল এলাকার ১৭ বছরের এক কিশোরীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক এবং ওই কিশোরীকে ১ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে অপহরণের অভিযোগ উঠেছিল ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনের সহকারী কমিশনার শেখ রাজীবুল হাসানের বিরুদ্ধে। অপহৃত হওয়ার আগে ও পরে ওই কিশোরীর সঙ্গে মুঠোফোনের কথোপকথনের রেকর্ডেও রাজীবের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিলেছে বলে জানা গেছে। কিন্তু এ ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তা জড়িত বলে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এদিকে এসি রাজিবুলকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে সংশ্লিষ্ট ডিসির কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। (দৈনিক আমাদের সময়)

● ২৮ জুন, ২০১৫ : মহাদেবপুরে নির্যাতন চালিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে এক ব্যবসায়ীর পা ভেঙে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। (ইত্তেফাক)

● ২৯ জুন, ২০১৫ : ঢাকার পুলিশ কমিশনারের অফিস থেকে ১৭ জুন দেয়া আদেশে কতিপয় পুলিশ সদস্যের সাম্প্রতিক বিভিন্ন কুকীর্তি তুলে ধরে ঢাকার সব ইউনিট ইনচার্জকে তাদের অধীন পুলিশ সদস্যদের চালচলন, চলাফেরা, আচরণ ইত্যাদি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণে রাখতে বলা হয়েছে। (আমাদের সময়)

● ১ জুলাই, ২০১৫ : বরিশালের ‘ঘুষ তহবিল’ কেলেঙ্কারিতে ১১ পুলিশ বরখাস্ত। প্রমোশনের জন্য উচ্চপদস্থদের ঘুষ দিতে সিন্ডিকেট বানিয়ে টাকা তুলে তহবিল গড়েছিল একদল পুলিশ। (বিবিসি বাংলা)

● ২ জুলাই, ২০১৫ : স্ত্রীর আত্মহত্যা, পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে যৌতুক চাওয়ার অভিযোগ। (সমকাল)

● ৭ জুলাই, ২০১৫ : পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা অনভিপ্রেত : আইজিপি। (শীর্ষ নিউজ)

● ৭ জুলাই ২০১৫ : দিনাজপুরে ৩১ পুলিশের বিরুদ্ধে চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত থাকার গুরুতর অভিযোগ। (আমার দেশ অনলাইন)

● ১০ জুলাই, ২০১৫ : পুলিশ ও রাজনৈতিক নেতারা চাঁদাবাজি করছে : ওবায়দুল কাদের। (ইনকিলাব)

● ১৩ জুলাই, ২০১৫ : পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ সনাতন : আইজিপি। (ভোরের কাগজ)

● ১৪ জুলাই, ২০১৫ : বরিশালে ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ। (সময় টিভি)

● ২৪ জুলাই, ২০১৫ : রাজন হত্যা মামলা নিতে চরম গাফিলতি করেছে পুলিশ। আসামিকে বিদেশ পালিয়ে যেতে সাহায্য করেছে তারা। (ইত্তেফাক)

● ২৪ জুলাই, ২০১৫ : এসআই’র ঘুষিতে অপর পুলিশ সদস্য হাসপাতালে। (বাংলানিউজ)

● ২৭ জুলাই, ২০১৫ : বিচার মাটিচাপা দিল পুলিশ। ২০১১ সালের ২৭ জুলাই কোম্পানীগঞ্জের চর কাঁকড়া ইউনিয়নের ঘটনা। কিশোর মিলনকে ডাকাত সাজিয়ে পুলিশের উপস্থিতিতেই পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর মামলা না চালাতে চাপ, প্রলোভন, ৫২ বার আদালত থেকে সময় নিয়ে তদন্ত দীর্ঘায়িত করা। অবশেষে পাঁচ লাখ টাকায় রফা এবং পুলিশের কাছে বাদীর হার। (প্রথম আলো)

● ২৮ জুলাই, ২০১৫ : ২৩ হাজার ইয়াবাসহ পুলিশ কনস্টেবল আটক। (কালের কণ্ঠ)

● ৩০ জুলাই, ২০১৫ : বগুড়ার শাজাহানপুরে সরকারি রাস্তার গাছ কাটার ধুম। পুলিশের বিরুদ্ধে গাছ বিক্রির অভিযোগ। (বাংলা ট্রিবিউন)

● ১ আগস্ট, ২০১৫ : পুলিশের বিরুদ্ধে আসামি ধরে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ। চাঁদাবাজির মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানার এক আসামিকে ধরে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে শাহ আলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুল আজিজের বিরুদ্ধে। আসামি শামীম শেখ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা টিপু সুলতানের অনুসারী। (প্রথম আলো)

● ২ আগস্ট, ২০১৫ : নোয়াখালীতে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ, পুলিশের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ। (সময় টিভি)

● ৩ আগস্ট, ২০১৫ : পুলিশের বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ। (জনকণ্ঠ)

● ৬ আগস্ট, ২০১৫ : গাইবান্ধায় পুলিশের নামে মামলার বাদিনীর স্বামীকে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ। (দিনকাল)

● ৭ আগস্ট, ২০১৫ : দিনদুপুরে বাসায় ঢুকে ব্লগার নিলয় নীলকে কুপিয়ে খুন। পুলিশের সাহায্য চাইলে বিদেশ যাওয়ার পরামর্শ পেয়েছিলেন। (প্রথম আলো)

● ৮ আগস্ট, ২০১৫ : মানবপাচার : কক্সবাজারের সব পুলিশ আর্থিকভাবে লাভবান। ইয়াবা ব্যবসায় ১২ পুলিশ জড়িত। (প্রথম আলো)

● ৯ আগস্ট, ২০১৫ : ‘সীমা লঙ্ঘন’ না করতে ব্লগারদের পরামর্শ আইজিপির। (বিডিনিউজ)

*অনলাইনে প্রকাশিত তারিখ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “২০১৫ সালের পুলিশি অপরাধের দলিল

  1. আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার যে
    আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার যে শ্লোগান সরকার দিয়ে বেড়ায়, তা কার্যকর করতে গেলে পুলিশের সার্বিক পুনর্গঠন দরকার।

  2. পুলিশের উপর আস্থা এদেশের
    পুলিশের উপর আস্থা এদেশের সাধারণ জনগেনর কাছে বিন্দুমাত্র নাই। বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় দুর্ণীতির জায়গা হচ্ছে পুলিশ বিভাগ। রাষ্ট্র যখন পুলিশের শক্তির উপর ভর করে চলতে চেষ্টা করে, পুলিশ তখন আগ্রাসী হয়ে উঠতেই পারে। পুলিশের বক্তব্য যখন রাজনৈতিক সরকারের বক্তব্যের সাথে মিলে যায়, তখন পুলিশ আর জনগণের থাকে না। ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের হয়ে যায় তারা। পুলিশের পরিচয় হয়ে যায় রাষ্ট্রীয় পেটুয়াবাহিনী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

35 + = 41