অনলাইন নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর হচ্ছে!

বাংলাদেশ সরকার সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আরেকটি নতুন আইন করতে যাচ্ছে। পাশাপাশি আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা পুনঃপর্যালোচনার আশ্বাস দিয়েছে সরকার। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক জানিয়েছেন নতুন আইনটির নাম হবে ‘ডিজিটাল সাইবার সিকিউরিটি অ্যাক্ট’।

জানা গেছে, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে এই আইনটির খসড়া প্রণয়নের কাজ চলছে। এরই মধ্যে কয়েকটি বৈঠক এবং কমিটি গঠনের কাজ হয়ে গেছে। যদিও বাংলাদেশে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক একটি আইন নিয়ে যখন বিস্তর বিতর্ক চলছে তখন আরো বিস্তারিত একটি আইন প্রনয়নের এই উদ্যোগ নেয়া হলো। অনলাইন অ্যাক্টিভস্টরা দীর্ঘদিন ধরে আইসিটি আইনের ৫৭ ধারার অপপ্রয়োগের অভিযোগ তুলে আসছেন।

প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক আজ বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, কিভাবে শিশু-কিশোরদের সাইবার ক্রাইম থেকে প্রতিরোধ করা যায় সেটা যেমন এই আইনে থাকবে, তেমনি থাকবে আরও নানা ধরণের সাইবার অপরাধ দমনে শাস্তির ব্যবস্থা। যেমন মোবাইল ব্যাংকিং এর ব্যাপক প্রসার ঘটেছে বাংলাদেশে। কিন্তু এক্ষেত্রে ক্লোনিং, ফিশিং এর মাধ্যমে নানা প্রতারণা হচ্ছে। সেগুলোও এই আইনের আওতায় আসবে।

বাংলাদেশে যেখানে বর্তমান আইসিটি আইনের ধারায় সাইবার অপরাধের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায়, সেখানে নতুন আরেকটি আইনের প্রয়োজন কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, আইসিটি আইনের ৫৭ ধারায় কেবল কারও সন্মানহানি হলে, রাষ্ট্র বা সমাজবিরোধী কোন তৎপরতা হলে, ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানো হলে, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার বিধান ছিল। কিন্তু অর্থনৈতিক প্রতারণা বা অন্য অপরাধ, যেমন এক দেশ অন্য দেশের বিরুদ্ধে সাইবার হামলা চালাতে পারে, সে ধরণের অপরাধের বিরুদ্ধে কোন বিধান ছিল না।

এদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলছেন, বর্তমান আইসিটি আইনের যে ৫৭ ধারাটি নিয়ে সমালোচনা চলছে, সেই সমালোচনা কতটা যৌক্তিক, সেটাও খতিয়ে দেখা হবে। এদিকে আজকের দৈনিক প্রথম আলোতে প্রকাশিত একটি খবরের শিরোনাম হচ্ছে, শিক্ষকসহ তিনজনের নামে আইসিটি আইনে মামলা। বাংলাদেশে আইসিটি আইনে যে কেউ মামলা করতে পারেন না, এতে সরকারের অনুমতি লাগে। স্বাভাবিকভাবেই সরকারপক্ষের লোকজনের সুরক্ষায় এবং তাদের বিরোধীদের দমনে এই আইনের ব্যবহার হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “অনলাইন নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর হচ্ছে!

  1. বিনা দংশনে নাহি দিবো ছাড়। এ
    বিনা দংশনে নাহি দিবো ছাড়। এ নীতিতে এগোচ্ছে সরকার। ভয়ংকর দিন আসছে।শত ভালো কাজ করেও গুটি কয়েক খারাপের জন্য পতন ঘটবে প্রিয় আওয়ামীলীগের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + 1 =