সরকার আগেই জানতো শুদ্ধস্বরে হামলা হবে?

 

আজ দেশের শীর্ষ একটি দৈনিকে প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়েছে, লালমাটিয়ায় হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কার কথা গোয়েন্দারা আগেই জানিয়েছিল সরকারকে। তা সত্ত্বেও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এ ঘটনা থামাতে পারেনি। এমনকি কিছুকাল আগে প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী টুটুল নিজেই পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন নিরাপত্তার জন্য। সেক্ষেত্রেও পুলিশ তাকে কোনো সাহায্য করেনি। এর মধ্যেই গণজাগরণ মঞ্চের সমন্বয়ক ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, সরকারের ভেতর থেকে মৌলবাদীদের পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হচ্ছে।

দৈনিক প্রথম আলোর প্রথম পাতায় প্রকাশিত ‘সরকার হতভম্ভ’ শিরোনামের খবরটিতে এই তথ্য জানানো হয়। বিশেষ প্রতিনিধির বয়ানে ছাপা হওয়া প্রতিবেদনটির এক জায়গায় লেখা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একাধিক সূত্রে জানা যায়, লালমাটিয়া এলাকায় অঘটনের বিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থা আগেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অবহিত করেছিল। কিন্তু এত সতর্কতার মধ্যেও এসব ঘটনা অব্যাহত থাকায় সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের মধ্যে একধরনের অস্বস্তি আছে।’

এই খবরের সত্যতা প্রমাণীত হলে নিঃসন্দেহে সরকারের ওপর এই হত্যাকান্ড ঘটার সুযোগ করে দেয়ার দায় বর্তায়। যা কিনা হোসনে দালানে মহররমের মিছিলে হামলার ক্ষেত্রেও ঘটেছিল। ওই মিছিলে হামলা হতে পারে, এই মর্মে আগে থেকেই গোয়েন্দারা সতর্ক করেছিল সরকারকে। যার প্রেক্ষিতে সরকারপন্থী পত্রিকা জনকণ্ঠ হামলার আগাম সতর্কবাণী দিয়ে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করে। তা সত্ত্বেও সেখানে হামলা হয়েছে, তাতে ঘটনাস্থলে একজনসহ মোট দুজন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক। অথচ হামলার আশঙ্কা সম্পর্কে সরকার ওয়াকিবহাল ছিল।

নিরাপত্তা বিশ্লেষকের দরকার নেই, সাধারণ হলিউডি সিনেমার দর্শকরাও বলতে পারবেন, এক্ষেত্রে সরকারের করণীয় কি ছিল! কয়েকদিন আগে থেকে পুরো এলাকা নজরদারির মধ্যে এনে গোপন থাকা গোয়েন্দাদের মাধ্যমে পুরো এলাকা ঘিরে রাখলে হামলাকারীদের চিহ্নিত করতে বা ধরতে কোন বেগ পেতে হতো না। কিন্তু দেখা গেছে, সরকার ও তার পুলিশ বসে বসে আঙুল চুষেছে!

কেন আগাম সতর্কতা পেয়েও ব্যবস্থা নেয়া হলো না, এ প্রশ্নের জবাব সরকার আর কীইবা দিবে। বলবে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে, আমরা খুনিদের ধরার চেষ্টা করছি। এসব মুখস্থ কথা দিয়ে তারা পার পেতে চাইবে। কিন্তু ব্লগার ও লেখকদের উচিত এর বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেয়া। সরকারকে অপরাধীদের শনাক্ত ও বিচারের আওতায় আনতে বাধ্য করা।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৭ thoughts on “সরকার আগেই জানতো শুদ্ধস্বরে হামলা হবে?

  1. প্রগতিশীল মুক্তমনাদের একজোট
    প্রগতিশীল মুক্তমনাদের একজোট হয়ে নিজস্ব শক্তিসমাবেশ ঘঠাতে হবে যাতে সরকার বাধ্য হয এসব হত্যাকান্ডের বিচার করতে ও মুক্তমনাদের নিরাপত্তা দিতে।

    1. একজোট হওয়া ছাড়া বিকল্প নাই।
      একজোট হওয়া ছাড়া বিকল্প নাই। প্রতিবাদ করে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে না পারলে আমরা আমাদের আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যত ধ্বংস করার জন্য দায়ী হয়ে থাকব। তাদের জন্য একটা বাসযোগ্য দেশ দিয়ে যেতে পারব না।

  2. শুধু প্রগতিশীল লেখক না।
    শুধু প্রগতিশীল লেখক না। সমাজের সকল সুস্থ বুদ্ধিসত্ত্বার মানুষ যারা হত্যাকে সমর্থন করে না, যারা দযারা সাধারন রুট লেভেলের মানুষ। যারা এখনো মনে করে “বলগার” মানে “নাস্তেক” এদেরকে ভুল ভাঙ্গাতে হবে। বুঝাতে হবে মুক্তবুদ্ধির চর্চা কি, বুঝাতে হবে বিজ্ঞানমনষ্ক লেখা বলতে কি বুঝায়। তাহলেই প্রতিরোধ সম্ভব।

  3. (No subject)
    :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:
    :ঘুমপাইতেছে: :ঘুমপাইতেছে: :ঘুমপাইতেছে:

  4. এর আগে এক সিনিয়র সাংবাদিকের
    এর আগে এক সিনিয়র সাংবাদিকের কাছে শুনেছিলাম, ডিবি প্রধান ওনাকে বলেছেন ২০১৫ সালের বই মেলায় যে কোন ব্লগারের উপর হামলা আসবে সেটা নাকি ডিবি পুলিশ জানত। কিন্তু কার উপর হামলা হবে তা জানত না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

24 − 21 =