ব্লগার অনন্ত দাশ খুন! প্রকৃত খুনীদের আড়াল হতে দেবেন না!

ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশকে খুন করা হয়েছে। কারা এই খুন করেছে, তা এখনো পুলিশ বলতে পারছে না। কিন্তু সিলেটবাসীর অভিযোগ, এটা মৌলবাদীদের কাজ। সিলেট মহানগরীর সুবিদ বাজার এলাকায় আজ মঙ্গলবার ১২ মে, সকালে এই ঘটনা ঘটে। তার মরদেহ এখন ওসমানী মেডিকেল কলেজের মর্গে রয়েছে। খুনের প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে এখন পর্যন্ত কাউকে পাওয়া যায়নি। অথচ ঘটনাস্থলে অনেকেই ছিলেন।

অনন্ত সিলেট গণজাগরণ মঞ্চের প্রধান ও গুরুত্বপূর্ণ সংগঠকদের একজন। তিনি মুক্তমনা ব্লগের একজন নিয়মিত লেখক ছিলেন। তাছাড়া বিজ্ঞান ও বিজ্ঞানমনস্কতার ছোট কাগজ ‘যুক্তি’র সম্পাদক ছিলেন। আজ সকাল ৮:৫০ মিনিটে তিনি ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সর্বশেষ স্ট্যাটাস দেন। সুনামগঞ্জের জাউয়াবাজারের পূবালী ব্যাংক ছিল তার কর্মস্থল। সেদিকে যাওয়ার পথেই তার ওপর হামলা হয়। তাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে খুন করা হয়েছে। খুনের পর স্বজনরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেন।

তার লেখালেখির ধরণ ছিল কিছুটা সরকারবিরোধী। এজন্যেও তিনি টার্গেট হতে পারেন বলে তার ফেসবুক বন্ধুরা আশঙ্কা করে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সর্বশেষ তিনি সিলেট-৩ আসনের সাংসদ সামাদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস লেখেন। ওই সাংসদ প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ জাফর ইকবালকে চাবকানোর ইচ্ছা প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছিলেন।

অনন্তর এর আগের স্ট্যাটাসটিও ছিল সরকারবিরোধী। নারী নিপীড়ন ও ব্লগার হত্যার সময় পুলিশের নিষ্ক্রীয়তা এবং নারী নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলনে পুলিশের হামলার নিন্দা করে সমালোচনামূলক বক্তব্য রাখেন তিনি।

তবে অনন্তর জীবনের মূলব্রত ছিল সমাজ থেকে অন্ধকার, কুসংস্কারাচ্ছন্নতা দূর করা। সেজন্য গভীর মনোযোগের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছিলেন তিনি। মানবতা এবং যুক্তিবাদ প্রতিষ্ঠায় অনন্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০০৬ সালে মুক্তমনা র্যা শনালিস্ট অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। ইতোমধ্যে তার বেশ কিছু বই বেরিয়েছে। প্রকাশিত প্রবন্ধ গ্রন্থ : (১) পার্থিব, (সহলেখক সৈকত চৌধুরী), শুদ্ধস্বর, ঢাকা, ২০১১। (২) ডারউইন : একুশ শতকে প্রাসঙ্গিকতা এবং ভাবনা, (সম্পাদিত), অবসর, ঢাকা, ২০১১। (৩) সোভিয়েত ইউনিয়নে বিজ্ঞান ও বিপ্লব : লিসেঙ্কো অধ্যায়, শুদ্ধস্বর, ঢাকা, ২০১২। (৪) জীববিবর্তন সাধারণ পাঠ (মূল: ফ্রান্সিসকো জে. আয়াল, অনুবাদ: অনন্ত বিজয় দাশ ও সিদ্ধার্থ ধর), চৈতন্য প্রকাশন, সিলেট, ২০১৪।

২০১৩ সালের ৩১ মার্চ, ফেইসবুক ও ব্লগে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যকারীদের ‘তওবা’ করানোর সুপারিশ করে ইসলামী চিন্তাবিদ ও আলেমরা। তাতে সেদিন সায় জানায় প্রধানমন্ত্রীর কর্যালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি। আলেমরা সেদিন নয়টি ব্লগ ও ৮৪ ব্লগারের একটি লিস্ট দেন প্রধানমন্ত্রীকে। সেই তালিকায় অনন্ত’র নাম এবং তার ব্লগ মুক্তমনা’র নাম ছিল। এর আগে সিলেটের মোল্লাসমাজের অনন্ত ততটা টার্গেট ছিলেন না। কিন্তু আলেমদের তালিকায় নাম আসার পর তাকে বেশ কয়েকবার হুমকি দেয়া হয় বলে তিনি ফেসবুক বন্ধুদের জানান। আজ ঘটে গেল সেই আশঙ্কাটি! আর দেখা যাচ্ছে, এভাবে উগ্র মৌলবাদীদের কাছে অনন্তকে তুলে ধরার কাজে ওই আলেমসমাজ এবং স্বয়ং রাষ্ট্র ভূমিকা রেখেছে।

?oh=00ff64e871687d4c3781b8adb5d57675&oe=55DA90E8″ width=”400″ />

সহব্লগারদের অনেকেরই ধারণা, সিলেটে মৌলবাদ চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। আর এটা সম্ভব হয়েছে সব সময়ই ক্ষমতাসীন দলগুলোর ছত্রছায়ায়। যখন যে সরকার ক্ষমতায় এসেছে, সকলেই সিলেটে মৌলবাদের বিকাশে ভূমিকা রেখেছেন। সেখানকার আওয়ামী লীগ আর বিএনপির মধ্যে মৌলবাদ প্রশ্নে তেমন পার্থক্য দেখা যায় না। তাই তারা মনে করেন, এই খুনের মোটিফ সতর্কভাবে বিশ্লেষণ না করলে প্রকৃত খুনীরা আড়ালে চলে যেত পারে! ব্লগাররা ঘটনাস্থলে থাকা সাধারণ মানুষদের কাছে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরার আহবান জানিয়েছেন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২৫ thoughts on “ব্লগার অনন্ত দাশ খুন! প্রকৃত খুনীদের আড়াল হতে দেবেন না!

  1. যে দেশে তথাকথিত আলেমেরা স্বয়ং
    যে দেশে তথাকথিত আলেমেরা স্বয়ং রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রীর হাতে মুক্ত চিন্তার অধিকারীদের তালিকা দিয়ে শাস্তি দেয়ার সুপারিশ করতে পারে সেই দেশে এই জাতীয় হত্যা মোটেও অস্বাভাবিক নয় । এদেশে মুক্ত চিন্তার মানুষদের বেঁচে থাকা দিন কে দিন কঠিন থেকে অসম্ভব হয়ে পড়ছে। মনে হয় না এই হত্যারও কোন কুল কিনারা হবে । ভোটের রাজনীতি করা এই সব রাজনৈতিক দলের কাছে ব্লগার হত্যার বিচারের চেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ধর্মানুভুতি অনেক বড়।

  2. সরকার যেভাবে ফ্যাসিস্ট হয়ে
    সরকার যেভাবে ফ্যাসিস্ট হয়ে উঠছে, এসব হত্যাকান্ড সরকারের রাজনৈতিক হত্যাকান্ডও হতেো পারে। দোষ দেওয়া হচ্ছে মৌলবাদীদের। এদেশে বর্তমানে মৌলবাদী ও সরকারের মধ্যে কোন পার্থক্য দেখি না।

    1. আলেমদের তালিকায় নাম আসার পর

      আলেমদের তালিকায় নাম আসার পর তাকে বেশ কয়েকবার হুমকি দেয়া হয় বলে তিনি ফেসবুক বন্ধুদের জানান। আজ ঘটে গেল সেই আশঙ্কাটি! আর দেখা যাচ্ছে, এভাবে উগ্র মৌলবাদীদের কাছে অনন্তকে তুলে ধরার কাজে ওই আলেমসমাজ এবং স্বয়ং রাষ্ট্র ভূমিকা রেখেছে।

      এটাই আসল কথা। এইসব খুনের পেছনে রাষ্ট্রের স্পষ্ট দায় আছে। রাষ্ট্র এখানে নাস্তিকদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এজন্যই তারা নাস্তিকদের যারাখুন করছে, তাদের কাউকে গ্রেপ্তারের সামান্যতম চেষ্টাও করছে না। এটাই প্রমাণ করে এর সঙ্গে তাদের হাত যুক্ত।

  3. খবরটা শুনে সকালটাই মাটি হয়ে
    খবরটা শুনে সকালটাই মাটি হয়ে গেল।খুবই খারাপ লাগছে।তারমত একজন মানুষকে হারানো আমাদের জন্য খুবই কষ্টের।এর দায় সরকারকে নিতেই হবে।

  4. ৮৪ জনের লিস্টটা বানিয়েছিল
    ৮৪ জনের লিস্টটা বানিয়েছিল রাজারবাগীরা, এরা এখন ওলামা লীগএর ব্যানারে মুভ করে। এই লিস্ট তারা জমা দিয়েছিল মহানবীর অবমাননাকারী ব্লগারদের চিহ্নিত করতে গঠিত প্রধানমন্ত্রীর কমিটির কাছে। এই লিস্টটি এরপর মিডিয়ার মাধ্যমে সারা দেশে ছড়িয়ে গেছে। মিলিটেন্টদের হাতে টার্গেট লিস্ট তুলে দিয়েছে এরা।

  5. তার লেখালেখির ধরণ ছিল কিছুটা

    তার লেখালেখির ধরণ ছিল কিছুটা সরকারবিরোধী। এজন্যেও তিনি টার্গেট হতে পারেন বলে তার ফেসবুক বন্ধুরা আশঙ্কা করে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সর্বশেষ তিনি সিলেট-৩ আসনের সাংসদ সামাদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস লেখেন। ওই সাংসদ প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ জাফর ইকবালকে চাবকানোর ইচ্ছা প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছিলেন।
    অনন্তর এর আগের স্ট্যাটাসটিও ছিল সরকারবিরোধী।

    আওয়ামীলীগ এসব তথাকথিত গণজাগরণ এসব নাস্তিক ব্লগারদের সৃষ্টি করে ছিল ইসলামকে পচানোর জন্য । কিন্তু এখন যখন আওয়ামীলীগ বুঝতে পেরেছে এরা ঘরের শত্রু বিভীষণ। এদের বিশ্বাস করা যায় না । জারা সৃষ্টিকর্তার এত নিয়ামত ভোগ করার পরেও তাকে অস্বীকার করে। তাদের আওয়ামীলীগের সাথে ঘাতকতা করতে কত সময় লাগবে । তাই হাতে টিকিট ধরে দিয়েছে …এখন এহকাল পরকাল দুটাই শেষ :ভাবতেছি:

    1. এরকম কিছু আইডি ব্লগে বসে থাকে
      এরকম কিছু আইডি ব্লগে বসে থাকে ঘাপটি মেরে। নাস্তিকদের চিহ্নিত করে তথ্য সংগ্রহ করে এবং নাস্তিক হত্যার পর এর সমর্থনে নরম ভাষায় কৌশলী প্রচারণা চালায়। এদের চিহ্নিত করা উচিত।

  6. সিলেট সম্পর্কে আমি যতদূর
    সিলেট সম্পর্কে আমি যতদূর বুঝি, মৌলবাদ প্রশ্নে সেখানকার শাসকশ্রেণীর মধ্যকার পক্ষগুলোর মধ্যে তেমন কোনো বিভেদ নেই। মোল্লাতন্ত্র সেখানকার একটি বিশেষ প্রবণতা। আমার মনে হয় না, সিলেটের প্রশাসন, সরকারি দল বা অন্য কেউই এই খুনের বিচারে আগ্রহী হবে। বরং তারাই উদ্যোগী হয়ে এই মামলার মোটিফ মুছে ফেলার সম্ভাবনা বেশি।

  7. ইসলামী মনোভাব থাকলেই উগ্র
    ইসলামী মনোভাব থাকলেই উগ্র মৌলবাদি…!! কি আজব.!
    ইসলাম হল এইসব উগ্র মৌলবাদিদের প্রাণের চেয়েও প্রিয় ধর্ম| কেও যদি তাদের সেই ধর্মকে প্রকাশ্যে অবমাননা করতে পারে তবে তারা কেন পারবে না প্রকাশ্যে এর জবাব দিতে..

    1. সেই একই ক্যাচাল। কলমের জবাব
      সেই একই ক্যাচাল। কলমের জবাব চাপাতি। সমস্যা কি তোমাদের? এই মৌলবাদীকে ইস্টিশন থেকে হঠানো হোক।

      1. তাই নাকি ? মাইর এর উপর ওষুধ
        তাই নাকি ? মাইর এর উপর ওষুধ নাই…গো দাদা …টাইম মত তিনবেলা খাইতে পারলে আরও ভাল :হাসি: :আমারকুনোদোষনাই: :অপেক্ষায়আছি:

        1. ইস্টিশন মাস্টারের দৃষ্টি
          ইস্টিশন মাস্টারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। যারা ব্লগার হত্যার সমর্থন করে বক্তব্য রাখছেন তাদের কি ব্লগে থাকার কোনো অধিকার আছে? জবাব চাইছি। এদের ব্যান করা হোক।

        2. জনাব @আমি মূর্খ,
          দেখেন

          জনাব @আমি মূর্খ,
          দেখেন (চুদির) ভাই,
          কোন এক মহিলা নিজের পাপের চাপ সহ্য করতে না পেরে বাথরুমে সেই পাপের মলত্যাগ করার সাথে আপনাকেও ত্যাগ করেছে, সেটা সেই মহিলার দোষ। আপনি সেটার রাগ বাংলা কমিউনিটি ব্লগে কেন ঝারছেন?

          1. তীদ্র নিন্দা জানাইতে জানাইতে
            তীদ্র নিন্দা জানাইতে জানাইতে দুই ঠ্যাং দুই দিগে দিয়া চেগায়া ফাগায়া ছিড়া ফাইলাইলও আপনের নিন্দারে চুদি না। ঐ শুয়রের বাচ্চায় মানুষ মারা যাওয়া নিয়া তামশা চোদাবে আর আমারে কয় রুচি চানাচুর দিয়া মুড়ি খাইতে! চুল কোথাকার।

            অফটপিক : সাইনের মধ্যে সূরা হজের যে আয়াত দিছেন, ঐটা ঐ সূরার জাস্ট ৪৫ নাম্বার আয়াত। ৪৬ নাম্বার আয়াতের কোন অংশ এতে নাই। ঐটা আগে ঠিক করেন, তারপর রুচি চানাচুর দিয়া উদায়ে মুড়ি খান গিয়া।
            আইছে আমার .. রুচি চানাচুরের দোকানদার!

    2. আচ্ছা অনন্ত বিজয় দাশ ধর্ম
      আচ্ছা অনন্ত বিজয় দাশ ধর্ম নিয়ে কটুক্তি করেছে এমন একটা প্রমান দেখান।মুসলমানদের খুন করতে কোনো কারন লাগে না।কারন তাদের প্রধান কাজই খুন করা।সারা পৃথিবীতে ইসলাম সন্ত্রাস সৃষ্টি করছে।
      ইসলাম হলো সন্ত্রাসের প্যাকেজ প্রোগ্রাম।

  8. ভাই, তদন্ত তো শেষ। এই যে
    ভাই, তদন্ত তো শেষ। এই যে তদন্ত রিপোর্ট-

    >>>>সর্বশেষ সংবাদ<<< *** টুইটার বার্তায় সিলেটের ব্লগার অনন্তকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে আনসার বাংলা ৮ নামে একটি সংগঠন


    বরাবরের মত এইবারও কিছুদিন এই মহান আচোদা তদন্ত রিপোর্টের সেলিব্রেশন চোদানো পরবর্তী নতুন কোন ইস্যুর অপেক্ষা করাই এখন সংবাদ মাধ্যম নামক জাতীয় ঘুমের অষুধ কম্পানীর প্রধান কর্তব্য।
    অভিজিতের সময় ৭ এখন ৮ আর সামনে যেটা হবে তখন ৯। 2 b continued

  9. মৌলবাদীদের মদদ দেয়া শাসকেরা
    মৌলবাদীদের মদদ দেয়া শাসকেরা একের পর এক খুন করিয়ে নিচ্ছে। বিচার ব্যবস্থাও এই অপশাসকদের হাতে, তাই জনগণ ন্যায় বিচার পাবে সেই আশাও মরে গেছে। আমাদেরকেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াইয়ে নামতে হবে। আমরা এক হলে অনেক কিছুই পারি।

  10. ব্লগার হত্যার ধুম পড়েছে
    ব্লগার হত্যার ধুম পড়েছে দেখছি। ভেবেছিলাম বাংলাদেশে আল-কায়দা , আইসিস আসতে আরো কিছুকাল বাকি আছে। কিন্তু অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে প্রত্যেক ঘরে ঘরে একজন -দুজন করে আল-কায়দা সদস্য রয়েছে। ভেতরে ভেতরে বাংলাদেশ অনেক আগেই আফগানস্থান-ইরাক-সিরিয়া হয়ে বসে আছে- সেটি আগে খুব একটা টের পাইনি।

    1. প্রত্যেক ঘরে ঘরে একজন-দুইজন
      প্রত্যেক ঘরে ঘরে একজন-দুইজন আল-কায়েদা আছে মনে করে আপনি দেখি বেজায় খুশী! আসলে এই খুশী আর থাকবে না। এরা যেখানে যায় সেই দেশ ধ্বংস করে দিয়ে আসে।

  11. লেখার জবাব চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে
    লেখার জবাব চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে দেওাটাকেই বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ সঠিক ভাবে, তেমন ধর্মউন্মাদ এখানে মন্তব্যও করেছে দেখতে পাচ্ছি! দেশটা মনে হচ্ছে শুধুই ধর্ম গাধাদের, আফসোস এর ব্যাপার

  12. অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে
    অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে প্রত্যেক ঘরে ঘরে একজন -দুজন করে আল-কায়দা সদস্য রয়েছে। ভেতরে ভেতরে বাংলাদেশ অনেক আগেই আফগানস্থান-ইরাক-সিরিয়া হয়ে বসে আছে- সেটি আগে খুব একটা টের পাইনি। .bdnews

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

55 − 53 =