জনপ্রিয়তার কাঙ্গালিত্ব ও বাঙ্গালী!!

এই লোককে নিয়ে লিখতে অনেক ভয় হচ্ছে! কিছু লিখলেই ক্লাসিফাইড হয়ে যাব!! আমার এতে ভয়-কুণ্ঠা কিছুই নাই তাই না বলে পারছি না।
তিনি আমেরিকার সর্বোচ্চ খেতাব বা, পুরষ্কার পাইছেন! পাইছেন নোবেলও। হোক তা নোবেল পুরষ্কারের যে একটা বিষয় নিয়ে রাজনীতি হয় সে বিষয়ে। তবুও তো পাইছেন, আমরা গর্বিত ছিলাম তার অর্জনে, আজো ভাল লাগে তার যেকোন অর্জন যতই তা তর্কসাপেক্ষ হোক! আমিও ওইদিন ২০০৬ এ নোবেল পাওয়ার দিন অনেককে এসএমএস দিয়ে সুখবরটা দিয়েছিলুম। অতঃপর; ডঃ ইয়ুনুস এর দরিদ্র ব্যবসা, সুদী ইউনুস এমন আরও অনেক তর্কসাপেক্ষ বিষয়ের অবতারনা হল! মুটামুটি ভালই জানা হল। জানলাম, চেরি ব্লেয়ার, হিলারিরা কেন বাংলার শীতল পাটিতে বসে পুঁজিবাদের বিপনন করেন। জানলাম আরও কত কি!!
বাদদেন ওইসব!! আমার দেশের সমসাময়িক ঘটনায় আসি। আর আজকের দেশের এমন পরিস্থিতিতে তার নিরবতা / নিশ্চুপ আচারন তার জনপ্রিয়তার কাঙ্গালিত্বরিই প্রমান দেয়! অথচ তিনি একটা রাজনৈতিক দলও করেছিলেন, ওনার ওই ইমেইলে আমিও মেইল করেছিলাম। একটা পরিবর্তনের আশায়। আজ তার আচারনে আমরা হতাশ ও আহত!!

১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের এক সংগঠকের কি নৈতিক পরাজয়। কেন ডঃ কামাল কি সরকারের কঠোর সমালোচনা করেও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে থাকেন না? তাহলে তিনি পারবেন না কেন? তার আরও জনপ্রিয়তা দরকার? আরও বড় ব্যবসা দরকার? স্যার ফজলে হাসান আবেদ কি আওয়ামিলিগার? দেশের সুশীলেরাই দাবী করবে মুক্তিযুদ্ধ আওয়ামীলীগের একার সম্পত্তি না, আবার তারা নিজের আচারনে এমন ভাব করবেন যেন এই মতটাকে গ্রাহ্য করেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে না বলে চুপ থাকেন যেন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ নিলে সবাই তাঁকে লীগার বলবে। আজকের দেশের পরিস্থিতিতে তাদের নিরবতা শুধু শঙ্কিত করে না, আমাদের আক্রান্তও করে। আমরা কি সত্য-ন্যায়ের জন্যে কাজ করব, মানবতার জন্যে কাজ করব নাকি সবার বাহবা কুড়ানোর জন্যে কাজ করব? আমাদের (জাতির) আদর্শ আজ ওনাদের বিব্রতবোধে আক্রান্ত।।

হিফাচুতিয়ারা এরই মধ্যে একাধিকবার তাকে নাস্তিক-মুরতাদ বলতেও দ্বিধাবোধ করে নি। তিনিও আক্রান্ত, তার উদ্যোগও আক্রান্ত অথচ তিনি নিশ্চুপ-নিথর!! আর এদিকে আমাদের সরকার বিরোধীরা সরকারের বিপক্ষের সবমতেই তাদের অকুণ্ঠ সমর্থন দেয় যতই তা পরস্পর বিরোধি হোক। আজব আমাদের বিবেকবোধ। আজব আমাদের আচারন! এরই মধ্যে বেগম খালেদা তাঁকে অভিনন্দন জানাইছেন। এইটাই সুযোগ সরকার যেহেতু ছোটলোকের মত চুপ তখন তার জনপ্রিয়তাকে একটু ব্যবহার করতে তার দোষ কি। তিনি রাজনীতি হয়ত আর করবেন না, কিন্তু তাঁকে নিয়ে ঠিকই রাজনীতি হচ্ছে।

এতকিছুর পর, এখনও যদি ডঃ ইউনুস চুপ থাকে তবে তার প্রতি আর কোন শ্রদ্ধাবোধ থাকার কথা না, অন্তত আমার থাকবে না!! এসএমএস এর টাকাটা ফিরত পাইলেই খুশি হতাম তখন!! ওই সময়ে ২ টাকা তিরিশ পয়সা করে গোটা ১৫০ এসএমএস আমি পাঠাইছিলাম। এখন আফসোস হচ্ছে তার হঠকারিতায়।

তারপরও খুব ভাল লাগবে ডঃ ইউনুস দেশে এসে শাহ্‌বাগের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করলে।
আমার এই আশাবাদকে অনেকেই ভালোভাবে নিবেন না, আমি জানি। আমিও পুরাপুরি নিশ্চিত না, তবে জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা আর, কূপমণ্ডূকতার বিরোধী সব শক্তি এক হলেই দেশের মঙ্গল।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৩ thoughts on “জনপ্রিয়তার কাঙ্গালিত্ব ও বাঙ্গালী!!

  1. ২ টাকা ৩০ পয়সা গুণন ১৫০ =
    ২ টাকা ৩০ পয়সা গুণন ১৫০ = প্রায় ৩৫০ টাকা। মূল্যস্ফীতি আমলে নিলে বর্তমান হিসাবে ৫০০ টাকা। ভালোই বাঁশ খাইসেন। শুনেন ইউনুস যে একটা মাদা*চো* তা যদি এখনো পাবলিকে না বুঝে দেন এই দেশ নিয়া আর কুনু আশা নাই। :মাথাঠুকি:

  2. পাবলিক বুজব না!! আমাদের
    পাবলিক বুজব না!! আমাদের পাবলিক মাদা*চো* ইউনুস থেকেও বেশী মাদা*চো*!!
    তারা কাউকে সামরিক উর্দির আয়েসি জীবন ছেড়ে আসা সামরিক জান্তাদের কোদাল মারাই, বা দিচক্রযানের প্যাডেল মারাই-ও আবাল হইয়া যাই…

  3. যেদেশে বিশ্ব বেহায়া,
    যেদেশে বিশ্ব বেহায়া, আন্তর্জাতিক মানের লুচ্চা, স্বৈরশাসক হো. এরশাদ যখন ইসলামের হেফাজতকারী হিসেবে আবির্ভূত হয়! সেদেশে সুদখোর এ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নোবেল বিজয়ী আমেরিকার দালাল শাহবাগের পক্ষে না এসে যাবে হিফাজতিদের সাথে….এটাই স্বাভাবিক…

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

4 + 6 =