কোরানেই আইনস্টাইনের মহাকর্ষীয় তরঙ্গের প্রমান !!

অবশেষে আল্লাহর রহমতে পাইয়া গেছি !! আইনস্টাইনের মহাকর্ষীয় তরঙ্গের যে অস্তিত্ব আছে এবং সেটা যে তিনিই তৈরি করেছেন তা আল্লাহ পাক ১৪০০ বছর আগেই কোরানে উল্লেখ করেছেন । বিশ্বাস হচ্ছে না ? এই দেখুন তার প্রমান –

এমন কে আছে যে, আল্লাহকে করজ দেবে, উত্তম করজ; অত:পর আল্লাহ্ তাকে দ্বিগুণ-বহুগুণ বৃদ্ধি করে দিবেন। আল্লাহ্ই সংকোচিত করেন এবং তিনিই প্রশস্ততা দান করেন এবং তাঁরই নিকট তোমরা সবাই ফিরে যাবে। (২:২৪৫ )

এই আয়তে দেখুন কি সুন্দর ও পরিস্কার ভাবে বলেছেন –“আল্লাহ্ই সংকোচিত করেন এবং তিনিই প্রশস্ততা দান করেন” । আপনারাই বলুন সংকোচন প্রসারন ছাড়া কি তরঙ্গ হইতে পারে ?

‘আকাশ ও পৃথিবী একসাথে মিশে ছিল,পরে আমি উভয়কে পৃথক করে দিলাম’ (আম্বিয়া, ২১:৩০)

“ কাফেররা কি ভেবে দেখে না যে, আকাশমন্ডলী ও পৃথিবীর মুখ বন্ধ ছিল, অতঃপর আমি উভয়কে খুলে দিলাম এবং প্রাণবন্ত সবকিছু আমি পানি থেকে সৃষ্টি করলাম। এরপরও কি তারা বিশ্বাস স্থাপন করবে না?” [সুরা আম্বিয়া: ৩০]

এই আয়ত দুটিতে দেখুন কি পরিস্কার ভাবে বলেছেন – “ আকাশ ও পৃথিবীকে আলাদা করেছে” এবং “” আকাশমন্ডলী ও পৃথিবীর মুখ বন্ধ ছিল, অতঃপর আমি উভয়কে খুলে দিলাম””। তাইলে উপরের আয়াতে তরঙ্গ তৈরি করে এই আয়াতে তা ব্যবহার করে আকাশ ও পৃথিবীকে কি সুন্দর আলাদা করে দিলেন । অতএব বুঝা গেলো আল্লাহ খুলে দিয়েছিলেন তথা বিগ ব্যাং সংগঠিত হয়েছিলো বলেই সংকোচন ও প্রসারণ দ্বারা বুঝানো মহাকর্ষীয় তরঙ্গ এর সৃষ্টি হয়েছে এবং এই কারনেই গ্যালাক্সি গুলি সব একে অন্যের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে ।

পদার্থের অবস্থানের ফলে ‘স্পেস’ অর্থাৎ ব্যাপ্তি, এবং ‘টাইম’ অর্থাৎ সময় বা কাল যে বিকৃত হয় তার প্রমান হলো– ইহুদি নাসারা তাদের কেতাব বিকৃত করেছে সময় ও স্থানের কারণেই; তাই না ? – অতএব প্রমাণিত ।

এর পরেও নাস্টেকরা যদি ইসলামের সায়া তলে না আসে তাইলে বুঝতে হপে আল্লাহ পাক তাদের অন্তর সিল মোহর মেরে দিয়েছে । (এটাও আল্লাহ কোরানে উল্লেখ করেছেন। সুভানাল্লাহ) নিশ্চয় আল্লাহ আমাকে এই মহান কাজের জন্য হেদায়েত করেছেন । আলালহ মেহেরবান !!

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “কোরানেই আইনস্টাইনের মহাকর্ষীয় তরঙ্গের প্রমান !!

  1. এই যেয় দেখইন ভাই, পেরমান সহ
    এই যেয় দেখইন ভাই, পেরমান সহ তুইল্লা দিলামঃ

    “এর পরেও কি তাহারা অস্বীকার করিবে? বিশ্বাস আনয়ন করিবেনা যাহার প্রতি আমি নাযিল করিয়াছি অমোঘ সূত্র? পাঠ করিবে না তাহা বরং নিজস্ব বুদ্ধি বৃত্তি প্রয়োগ-এই কালক্ষেপণ করিবে। অথচ তাহারা কি দেখেনা যে উহা সহস্র বৎসর পূর্বেই খচিত হইয়াছিল সেই পবিত্র গ্রন্থে?”
    – সূরা আল-লাবড়া (১ঃ৪২০)

    কি আর বইল বু রে ভাই-ও । এই হইল ইহুদি নাসারার দল ! এরা শিখবো আর কবে ???

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

5 + 1 =