অথচ, ইসলাম শান্তির ধর্ম ।

নুফায়লী (রহঃ) —– জুবায়র ইব্‌ন নুফায়র (রহঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ একদা জুবায়র (রহঃ) বলেনঃ আমার সাথে নবী (সাঃ) এর এক সাহাবী ‘মিখ্‌বাব’ (রাঃ)-এর কাছে চলো। আমরা তাঁর কাছে উপস্থিত হলে, জুবায়র (রহঃ) তাকে সন্ধি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেন। তখন তিনি বলেনঃ আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে বলতে শুনেছি যে, “তোমরা অচিরেই রোমের সাথে সন্ধি করবে”। এরপর তোমরা ও তারা সম্মিলিতভাবে অন্য এক শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত হবে এবং তাতে বিজয়ী হয়ে গনীমতের মাল হাসিল করবে। এরপর সেখান থেকে ফিরে আসবে এবং এমন এক ময়দানে অবতরণ করবে, যা টিলাময় হবে। তখন নাসারাদের জনৈক ব্যক্তি ক্রুশ উঁচু করে বলবেঃ এ যুদ্ধে ক্রুশ বিজয়ী হয়েছে। তখন মুসলমানদের থেকে এক ব্যক্তি রাগাণ্বিত হয়ে তাকে মেরে ফেলবে।
গ্রন্থঃ সূনান আবু দাউদ (ইফাঃ)
অধ্যায়ঃ ৩২/ যুদ্ধ-বিগ্রহ
হাদিস নম্বরঃ ৪২৪২

মুসলিম মৌলবাদিরা সব সময় গলা ফাটিয়ে বলে, ইসলাম শান্তির ধর্ম ।
কিন্তু উপরের হাদিস টা পড়ে কী বুঝা যায় ইসলাম শান্তি ধর্ম ।
যেখানে ইসলামের নবী ভবিষ্যতবাণী করছে রোমের যুদ্ধ সম্পর্কে ,
তাদের লোভ দেখাচ্ছে গনীমতের মাল সম্পর্কে ,
সরাসরি যুদ্ধ করার জন্য উৎসাহিত করছে ।
এরকম অারো অনেক কাহিনি আছে, যেখানে মুহাম্মদ নিজের মতবাদ রক্ষা করার জন্য গনিমতের মাল ( নারি , টাকা, সম্পদের ) লোভ দেখিয়ে মানুষকে যুদ্ধে উৎসাহিত করতো ।
অথচ, ইসলাম শান্তির ধর্ম ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 2