প্লিজ ফাউল করবেন না।

আমি ঠিক জানিনা বোর্ড পরীক্ষার জন্য কতজন শ্রম দেন। কতজন কর্মকর্তা, শিক্ষক, শিক্ষাবিদ নিয়োজিত থাকেন আমি তাও জানি না। আমার জানার কথাও না। আমি সামান্য মানুষ। পড়াশোনা করি। দুইটা বোর্ড পরীক্ষা দিয়েছি আরেকটা দিচ্ছি। পরীক্ষা দিচ্ছি আর বিরক্ত হচ্ছি। অনেকে বলবেন পড়াশোনা করোনি, তাই পারোনা বিরক্ত তো হবাই। আমি এ কথা মানতে রাজি না আমি বাংলা আইসিটি কম পড়েছি। অন্য সাবজেক্ট গুলো হয়তো পড়া কম হয়েছে। কিন্তু কোন মতেই মানতে রাজি নই যে আমি বাংলা,আইসিটি কম পড়েছি। তাহলে সমস্যা টা কোথায়? অবজেকটিভ খারাপ হবে কেন? আমি কম পড়ি? কম বুঝি? বুদ্ধিমত্তা শূন্যের কোঠায়? নাকি সমস্যা প্রশ্নে? আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায়? নাকি আমি খারাপ ছাত্র? নাকি নাহ আর বিরক্ত হতে ইচ্ছে করেনা। সবাই দোষ দেখি শিক্ষা মন্ত্রীরে দেয়। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রী কি প্রশ্ন তৈরী করে ? তিনি কি একবারো প্রশ্ন চেক করে দেয়? আমার তো তা মনে হয়না। তবে জানাই আছে তার দিকে আংগুল উঠবে তিনি কেন গুরুত্ব দিবেন না? এগুলা কোন ধরনের অবজেকটিভ প্রশ্ন? আমরা C.S.E থার্ড ইয়ারের স্টুডেন্ট? আমরা বাংলা সাহিত্যের ছাত্র? নাকি তাদের কমন সেন্স নাই? তাদের যদি কমন সেন্স নাই থাকে তাইলে এতো গুরুত্বপূর্ন স্থানে চাকরী করে কেন? বোর্ডের পরীক্ষায় এতো বানান ভুল হয় কেন? যুক্তিগত ভুল থাকে কেন? সোজাভাবে প্রশ্ন করেনা কেন? মনে করেন আপনি একটা টুরিস্ট পয়েন্টে আসছেন সেখানে ৬ টা দেশের ছয়জন লোক আছে। এখন আপনাকে যদি বলা হয় ওর দেশের সম্পর্কে কিছু বলেন। আপনি বলবেন কার দেশের সম্পর্কে বলব? এর পর স্পেসিফিকলি বললে আপনি না হয় উত্তর দিতে পারবেন কিন্তু যখন আপনাকে প্রশ্ন করার সুযোগ না দিয়ে উত্তর করতে বলা হয় তখন? প্রশ্নে বানান ভুলের জন্য যদি উত্তর ভুল হয় এ দায় কার? আমরা কি ফেলনা? না খেলনা? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মাত্র ২ জন শিক্ষার্থী ইংরেজী ভর্তির যোগ্যতা অর্জন করে। আপনি কঠোর হন। কঠোর হবেন ভালো কথা। আপত্তি নেই। প্রশ্ন কঠিন করুন। কিন্তু প্লিজ ফাউল করবেন না।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published.