নাম

আমার ভাইজি, নতুন ক্লাসে উঠেছে, নতুন বই পেয়েছে, বাচ্চা দের যেমন হয়, নতুন বই পেয়ে পড়ার ধুম লেগেছে। একদিন সন্দ্ধা বেলায় আমাদের পাশে বসেই বই পড়ছিলো, হঠাৎ এক জায়গায় পড়ছে, Rahim goes to school, Salma is a good girl. আমার মা পাশেই বসে ছিলো, ভাইজির পড়া শুনে বলল, “আজকাল কার বই গুলো যা হয়েছে না, কেন ওখানে ওই নাম গুলো না দিয়ে, কোনো হিন্দু নাম দিতে পারল না।”
হিন্দু, মুসলিম ভেদাভেদ হয়ার সময় থেকেই হয়তো বেচারা নাম গুলিও ভাগ হয়ে গেছে। আমার মায়ের যেমন মুসলিম নাম গুলো শুনতে ভালো লাগছে না, হয়তো কোনো মুসলিম বাড়ির কারোর তেমনই হিন্দু নাম গুলো পড়তে ভালো লাগে না।
মানুষ কে কয়েক আলকবর্ষ দুরে সরিয়ে রেখেছে এই ধর্ম, কুসংস্কার এর অলিক পথ, তাতে আরো কয়েক মাইল যুক্ত করে এই নাম গুলি, দুটি সুস্থ মানুষ এর মধ্যে কাটা তার এর বর্ডার তৈরি করে এই নাম, কে হিন্দু, কে মুসলিম, কে শিখ এটা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখায়।
ভগবান নামক অলিক বস্তুর থেকে মানুষ আস্তে আস্তে যেমন বিমুখ হচ্ছে, হয়তো এই নাম এর ভেদাভেদ থেকেও একদিন হবে, এমন একদিন আসবে, যেদিন নাম দিয়ে, ধর্ম নয়, মানুষ চেনা যাবে, শুধু সেই দিন এর আশায় থাকলাম।।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

60 − = 54