ব্লগে আমার প্রথম পোস্ট: কেউ-একজন নাস্তিক হলে আপনাদের এতো ভয় কীসের?

কেউ-একজন নাস্তিক হলে আপনাদের এতো ভয় কীসের?
আচার্যবাঙ্গালী

আপনি নাস্তিক?
না-না, আপনাকে আমি সরাসরি নাস্তিক ভাবছি না।
আর এটি আমি ভাবতেও পারি না।
আপনি আস্তিক।
আর আমি নিজেও একজন আস্তিক। মহান ঈশ্বরে বিশ্বাসী মানুষ।
আমাদের মাঝে কেউ-কেউ নাস্তিক হতেও পারে। তাই বলে, তাদের বিরুদ্ধে আমাদের জিহাদ-ঘোষণা করতে হবে? এর কোনো মানে নাই। কেউ-একজন যদি নিজের ইচ্ছায় নাস্তিক হয়, তাতে মহান ঈশ্বরের এমন কোনো ক্ষতি হবে না। আর মহান ঈশ্বরের কাছে তা ধর্তব্যের বিষয়ও নয়। মহান সৃষ্টিকর্তার সাম্রাজ্য বিশাল। আর তা সমাজের দুই-চারজন চেনা-অচেনা নাস্তিকের কারণে ভেঙ্গেও পড়বে না, আবার টলেও যাবে না। তাহলে, আপনি কে মহান ঈশ্বরের নামে কথিত-নাস্তিক নিধন করার? আর কে আপনাকে এই অধিকার দিয়েছে?

কেউ যদি নাস্তিক হয়ে মহান আল্লাহ ও তাঁর পবিত্র রাসুলের বিরুদ্ধে কিছু লিখে থাকে, তাহলে, তাকে হত্যা করার কোনো প্রয়োজন নাই। তার এই বিকৃত-রুচির জবাব দিতে হবে মেধা ও মননের সাহায্যে। যুক্তি দিয়ে দুনিয়ার সব নাস্তিককে জব্দ করতে হবে। কিন্তু এদের হত্যা কোনো সমাধান তো নয়ই, বরং এটি বেআইনি, অমানবিক ও ইসলামবিরোধী অপকর্ম।
আমাদের পবিত্র রাসুলের যুগে মক্কার শীর্ষস্থানীয় কাফের আবু জেহেল মহান আল্লাহ ও তাঁর রাসুলকে নিয়ে সদাসর্বদা প্রকাশ্যে হাসি-ঠাট্টা করতো। আল্লাহর রাসুল সা. কিন্তু এই আবু জেহেলকে হত্যার আদেশ দেননি। তার নানারকম হাসি-ঠাট্টা-বিদ্রুপের জবাব দিতেন তিনি ধৈর্য ও যুক্তি দিয়ে। কাজেই, কেউ যদি পবিত্র রাসুলের উম্মত হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়, তাহলে, তাকে সহিংসতা ও জঙ্গীবাদী চিন্তাচেতনা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

কোনো নাস্তিক যেকোনো ধর্মের বিরুদ্ধে কিছু লিখলে তার বিরুদ্ধে সরাসরি মামলা-দায়ের করতে হবে। তারপর তাকে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে তাকে বিচারের সম্মুখীন করতে হবে। আইন ও যুক্তি দিয়ে তাকে পরাস্ত করতে হবে। এদের হত্যা করাটা কোনো সমাধান নয়। আর এটি ইসলামীবিধানও নয়। এটি কারও মনগড়া ফিতনাফাসাদ। আর কারও মনগড়া ফিতনাফাসাদ কখনও ইসলামের কোনোকিছু হবে না।

আপনার যদি মহান ঈশ্বরে অবিচল আস্থা থাকে, মহান ঈশ্বরের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা থাকে, তাহলে, আপনার এতো বিচলিত হওয়ার কী আছে? আপনি একজন নাস্তিককে এতো ভয় পাচ্ছেন কেন? মাত্র গুটিকতক নাস্তিকের লেখনিতেই ইসলাম ধরাশায়ী হবে? না, তা হতে পারে না। আপনারা যারা ইসলামের কথিত-হিতাকাঙ্ক্ষী সেজে নাস্তিকতার ধুয়া তুলে একের-পর-এক ব্লগারহত্যায় মেতে উঠেছেন তারা কারা? আর কি-ই-বা আপনাদের পরিচয়?
রাষ্ট্রীয় আইন মানা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য ফরজ। দেশের মুসলমান রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীকে মানাও ফরজ। নিজের মনগড়া-ব্যাখ্যা থেকে বেরিয়ে আসুন। আর প্রকৃত-ধার্মিক হয়ে এই পৃথিবীতে বিচরণ করুন। তাহলে, বুঝবো আপনি একজন মুসলমান। আর তা-না-হলে আপনি মানুষহত্যা করে কখনও নিজেকে মুসলমান দাবি করতে পারবেন না। আপনি ইসলামের কেউ নন। আর পবিত্র ইসলামধর্ম আপনাদের চেনে না।

আচার্যবাঙ্গালী
ঢাকা।
১৭/০৪/২০১৬

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৫ thoughts on “ব্লগে আমার প্রথম পোস্ট: কেউ-একজন নাস্তিক হলে আপনাদের এতো ভয় কীসের?

    1. আসলে ভাই, এই মানুষহত্যার
      আসলে ভাই, এই মানুষহত্যার বিষয়টি রাসুলের নয়। বর্তমানে যারা রাসুলের নাম ভাঙ্গিয়ে জঙ্গীবাদী-শয়তানী করছে তাদের। এই শয়তানরা কুরআনের আয়াতের ও রাসুলের হাদিসের ভুলব্যাখ্যা দিয়ে নিজেদের স্বার্থে ব্লগারদের হত্যা করছে।
      আপনাকে ধন্যবাদ।

  1. আমাদের দেশে যেমন আইন রয়েছে,
    আমাদের দেশে যেমন আইন রয়েছে, ঠিক তেমনি ইসলামেরও বিধি বিধান আছে।
    ধর্মত্যাগীদের উপর আক্রমণ করা জায়েজ

    1. হত্যাকারীরা ইসলামীবিধিবিধানের
      হত্যাকারীরা ইসলামীবিধিবিধানের অপব্যাখ্যা দিয়ে মানুষহত্যা শুরু করেছে। এরাই শয়তান। এরা ধর্মের মোড়ল সেজেছে।
      আপনাকে ধন্যবাদ।

  2. বলেন কি? মাত্র ৮৪ জন ব্লগারের
    বলেন কি? মাত্র ৮৪ জন ব্লগারের উত্তর দেবার মুরোদ ৮৪ লক্ষ মোল্লার নেই। তাদের হত্যা করা না হলে মোল্লাদের মান বাচে না। মাত্র ৮৪ জনের প্রভাবে বাংলাদেশে নাস্তিকের জোয়ার বয়ে যাচ্ছে। আর আপনি আইছেন…

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 15 = 17