আল্লাহ কি মিথ্যেবাদী নাকি অজ্ঞ ?

মুসলমানদের মহান আল্লাহ কোরানে সুরা বাকারা-এর ২৫৫ নাম্বার আয়াতে বলেছে –
তার মহাসিংহাসন মহাকাশমন্ডলী ও পৃথিবীতে ব্যাপ্ত; এদের উভয়ের হেফাজত তাকে ক্লান্ত করে না; আর তিনি সর্বচ্চে অধিষ্ঠিত, মহামহিম l
অর্থাত আল্লাহর সিংহাসন বা আরস মহাবিশ্বের সর্বত্র বিস্তৃত l আকাশ, মহাকাশ, এবং পৃথিবী এগুলোর সব জায়গায় আল্লাহর আরশ তথা সিংহাসন বিস্তৃত অবস্থায় রয়েছে l আর আল্লাহ মহাবিশ্ব নিয়ন্ত্রণ বা পরিচালনা করে কিন্তু তাতে তার কোন ক্লান্তি লাগে না l এবং আল্লাহ মহাবিশ্বের সব কিছুর উপরে আছে বা অধিষ্ঠিত আছে l

অথাৎ আল্লাহর আরশ মহাবিশ্বের সবজায়গাতেই বিরাজমান এবং আল্লাহর অবস্থান হচ্ছে সবকিছুর উপরে l
কিন্তু বিজ্ঞান পৃথিবীতে কোথাও কোন আরশ বা সিংহাসন খুঁজে পায়নি l কেন পায়নি যদি আল্লাহর আরশ সব জায়গাতেই বিরাজ করে বা বিস্তৃত থাকে ? বিজ্ঞান আজ অতি ক্ষুদ্র পদার্থের অস্তিত্বও আবিষ্কার করে ফেলেছে l ইলেকট্রন প্রোটন এবং নিউটন সহ সব ধরনের ক্ষুদ্রতম কনিকা গুলোও আবিষ্কার করে ফেলেছে বিজ্ঞান l মহাবিশ্ব-এ বিরাজমান সব ধরনের শক্তি(এনার্জি) পর্যন্ত মানুষ আবিষ্কার করে ফেলেছে l কিন্তু তারপরেও কোথাও আল্লাহর আরশ খুঁজে পেল না l
মহাবিশ্বে যা কিছু আছে তার সবকিছুই গঠিত হয়েছে দুটি ভিন্ন সত্বা দিয়ে l একটা হচ্ছে পদার্থ এবং অন্যটি হচ্ছে শক্তি l আবার পদার্থ শক্তিতে পরিনত হতে পারে এবং শক্তি পদার্থ তৈরী করতে পারে l অর্থাত পদার্থ এবং শক্তি একে অন্যে পরিবর্তিত বা রুপান্তরিত হতে পারে l এবং এটাই হয় বাস্তব জগতে l মহাবিশ্বে পদার্থ ও শক্তির বাইরে অন্য কিছু নেই l তাহলে আল্লাহর আরশ বা সিংহাসন পদার্থ দ্বারা অথবা শক্তি দ্বারা অর্থাত এ দুটোর একটি দ্বারা গঠিত হতে হবে l
কিন্তু বিজ্ঞান আজ পর্যন্ত কোন আরশ বা সিংহাসন পৃথিবীতে, আকাশে এবং মহাকাশে খুঁজে পায় নি l যদি আল্লাহর আরশ বলে কিছু থাকতো তবে অবশ্যই সেটা খুঁজে পেতো বিজ্ঞান l কিন্তু বাস্তব জগতে এমন কিছু নেই বলেই বিজ্ঞান খুঁজে পায়নি l যদি থাকতো তবে অবশ্যই খুঁজে পেতো l
অর্থাত আল্লাহর আরশ বলতে কিছু নেই বিশ্বজগতে l কোরান মিথ্যে কথা বলেছে l

আবার আল্লাহ নাকি সবকিছুর উপরে অধিষ্ঠিত l অর্থাত আল্লাহ সবকিছুর উপরে রয়েছে l
কিন্তু উপর নিচে বলতে মহাকাশে কিছু নেই l মহাকাশে যেকোন দিক উচু বা নিচু হতে পারে l মহাকাশে সবদিকই উচু এবং সব দিকই নিচু l উচু নিচু ব্যাপারটা তৈরী হয় কোন গ্রহ বা নক্ষত্রের মহাকর্ষীয় বলের কারণে l অর্থাত যখন কোন গ্রহ বা নক্ষত্র কোন পদার্থকে তার নিজের দিকে আকর্ষণ করে মহাকর্ষ বল দ্বারা তখনই পদার্থ উপর নিচে বলে কিছু অনুভব করে বা বুঝতে পারে l সুতরাং উপর নিচে ব্যাপারটা সম্পূর্ণ মহাকর্ষীয় বলের কারণে ঘটে l অর্থাত উপর নিচের ব্যাপারটা শুধু মাত্র গ্রহ নক্ষত্রের মধ্যে স্বীমাবদ্ধ l কিন্তু মহাশুন্যে বা মহাকাশে যেখানে মহাকর্ষ বল কাজ করবে না সেখানে উপর নিচে বলে কিছু থাকবে না l আর তাই আল্লাহ সবকিছুর উপরে কথাটা মিথ্যে কথা l কারণ মহাবিশ্বের যেকোন দিকই উপর বা নিচে হতে পারে l আবার মহাকর্ষ বল না থাকলে কোথাও উপর বা নিচে বলে কিছু থাকবে না l আর তাই আল্লাহ সবকিছুর উপর অধিষ্ঠিত আছে কথাটা সম্পূর্ণ মিথ্যে কথা l

আর এই কথাটা বলা হয়েছে কোরানে l অর্থাত কথাটা স্বয়ং আল্লাহর (মুসলমানদের দাবি অনুযায়ী) l তাহলে আল্লাহ এক আয়াতে দুইটি মিথ্যে কথা কেন বললেন ?
এর একটাই কারণ থাকতে পারে; সেটা হচ্ছে আল্লাহ আসলে মহাবিশ্ব সম্পর্কে কোন জ্ঞান রাখেন না l তাই আরশের সর্ববিস্তৃতি এবং আল্লাহ সবকিছুর উপর আছে এই কথাটা বলেছে l যদি জানতো তবে এই মিথ্যে কথা দুটি বলতো না l

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “আল্লাহ কি মিথ্যেবাদী নাকি অজ্ঞ ?

  1. মহাকাশে যেকোন দিক উচু বা নিচু

    মহাকাশে যেকোন দিক উচু বা নিচু হতে পারে l মহাকাশে সবদিকই উচু এবং সব দিকই নিচু

    সুন্দর পয়েন্ট তুলে ধরছেন…

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 75 = 80