ডায়েরি

তোমাদের ব্যস্ততার ডায়েরি থেকে এক প্রস্থ আমাকে পড়ে শুনিওনা ;
অমন ডায়েরি আমারও আছে।
হাজার টা কাজও আছে সেখানে লেখা।
সেই ডায়েরি পারলে আমাকে দম আটকে মারে বেঘোরে।
তাই সেই ডায়েরি ছুড়ে ফেলে ছুটে আসি মানুষের ভীড়ে ;
একটু বুক ভরে শ্বাস নেবার আশায়।
সন্ধ্যায় যে ডায়েরি পুড়িয়ে ফেলি নিজের আত্মার আগুনে;
ভোর সকালে সেই ডায়েরি ফিরে আসে
তার পুরনো দূরভিসন্ধি নিয়ে।
ডায়েরির প্রত্যেকটি পাতার উপহাসে ঘুম ভাঙ্গে
আমার সেই পুরনো সকালে।
মৃত মানুষের বোটকা গন্ধে নির্বাক হয়ে পড়ি ,
প্রতিদিন একটি মানুষ মরে যাচ্ছে চোখের সামনে ,
এক ব্যাগ রক্ত , একটা কিডনি ,
একটা চোখ দিয়ে তাকে যদি বাঁচানো যেত ,
বিনা বাক্য ব্যয়ে দিয়ে দিতাম।
একটা মানুষ তো অন্তত বাচতো।

একজন কবি মরে যায় প্রতিদিন ,
একটা বিবেক ধর্ষিত হয় প্রতিদিন,
সভ্যতা জঞ্জাল হয়ে ওঠে প্রতিদিন ,
কিছুই বাচানো যায় না সেই ডায়েরির পাতার অভিশাপে ,
ডায়েরির গল্পের মৃত্যুর আর্তনাদে?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

25 − = 17