বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

মুসলমান সমাজ কোন জাতি নয় তারা একটা গোষ্ঠী। হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ এগুলো হচ্ছে ধর্মীয় গোষ্ঠী। কারন তারা সবাই একই ভূখণ্ডে বসবাস নাও করতে পারে। তাদের ভাষা, সংস্কৃতি, আচার ব্যবহারে আপনি মিল খুঁজে পাবেন না, শুধুমাত্র কিছু ধর্মীয় রীতিনীতি ছাড়া।

অন্যদিকে, বাঙালিরা হচ্ছে একটি জাতি, বাংলাদেশ একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের নাম। প্রায় প্রত্যেক মুসলিম দেশেরই প্রতিষ্ঠাতা বা জনক আছে। মুসলমানদের কয় পিতা হয় সেটা কোন বিবেচ্য বিষয় নয়। বাংলাদেশ শুধু মুসলমানদের নয়, এখানে সব ধর্মের লোকই বসবাস করেন। তাও বলছি মুসলমানদের চার পিতা হয়। ১) আদি পিতা- হযরত আদম (আঃ), ২) সারা পৃথিবীর মুসলমান গোষ্ঠীর পিতা- হযরত ইব্রাহীম (আঃ), ৩) আমাদের জন্মদাতা পিতা এবং ৪) বাংলাদেশের স্থপতি বা বাঙালি জাতির জনক বা পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আর বিএনপি-জামায়াতি-হেফাজতিদের মানা না মানাতে কিছু আসে যায় না। তারা যে স্বাধীনতা বিরোধী এবং বঙ্গবন্ধু বিদ্বেষী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আইনগতভাবে, সাংবিধানিকভাবে এবং আন্তর্জাতিকভাবে সর্বজন স্বীকৃত বাঙালি জাতির স্থপতি বা বাঙালি জাতির জনক।

সারা পৃথিবীর মুসলমান গোষ্ঠীর পিতা ইব্রাহীম (আঃ) তা আমরা অস্বীকার করছি না। কিন্তু বাঙ্গালী জাতির জনক বা বাংলাদেশের স্থপতি হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেমন অন্যান্য মুসলিম দেশেরও জাতির জনক আছে। যেমন মুজিব বিদ্বেষী, স্বাধীনতা বিরোধীদের অতি পছন্দের জঙ্গি রাষ্ট্র পাকিস্তানের জাতির জনক হচ্ছেন মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ। ঠিক তেমনি আরও অনেক অনেক উদাহারন দেওয়া যায়। মৌলবাদীরা এসব বিষয়গুলো ইচ্ছায় হোক, আর অনিচ্ছায় হোক তাদের ক্ষুদ্র জ্ঞান ও মস্তিষ্কে ধারন করতে অক্ষম বলেই তারা বিদ্বেষমূলকভাবে এ বিষয়টি নিয়ে বিরোধিতা করে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + 1 =