ঢাকা সিটিকে পরিচ্ছন্ন রাখতে বিভিন্ন স্থানে ডাস্টবিন বসানো শুরু করেছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি।

যেখানে-সেখানে আবর্জনা ফেলায় তা পরিষ্কার করতে হিমশিম খেতে রাজধানীর পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের। এসব ময়লা পরিষ্কার করাও বেশ সময়সাপেক্ষ। এ সমস্যা সমাধানে রাজধানীতে রাস্তার পাশে ছোট ছোট ডাস্টবিন বসানো শুরু করেছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি। পথচারীদের অনেকেই পুরনো অভ্যাস বদলে রাস্তার পাশের ডাস্টবিনগুলেঅতে ময়লা ফেলতে শুরু করেছেন। সচেতনরা ব্যক্তিরা এখন খালি বোতল, চিপস কিংবা চকোলেটের প্যাকেট ডাস্টবিনে ফেলছেন।কোনো ধরনের প্রচার ছাড়াই নগরবাসীর এ ধরনের সচেতনতা তৈরি হওয়ায় উৎসাহ পাচ্ছেন সিটি করপোরেশনের আগামী এক-দুই মাসের মধ্যেই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় এ ধরনের ১০ হাজার ডাস্টবিন বসানোর জোর তৎপরতা শুরু হয়েছে। এগুলো রক্ষণাবেক্ষণ ও তার পরিচর্যার জন্য আলাদা দলও তৈরি করেছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। এ বছরকে পরিচ্ছন্ন বছর হিসেবে ঘোষণা করেছেন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির মেয়রা, ঢাকা সিটিকে পরিচ্ছন্ন রাখতে বিভিন্ন স্থানে ডাস্টবিন বসানো হবে। এরই ধারাবাহিকতায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির বিভিন্ন এলাকায় ডাস্টবিন বসানো হচ্ছে। ‘রাস্তার পাশে খোলা জায়গায় যেসব ডাস্টবিন রয়েছে, সেগুলো থেকে প্রচুর দুর্গন্ধ আসে। নগরীকে দুর্গন্ধমুক্ত রাখতে ইতিমধ্যে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সেই ডাস্টবিনগুলোকে ঘেরাও করে রাখা হচ্ছে।’জানা গেছে, ডিএসসিসি এলাকায় ৫ হাজার ৭০০টি ডাস্টবিন বসানোর লক্ষ্য রয়েছে। আগামী মাসের মে মধ্যে এসব ডাস্টবিন বসানোর কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্জ ব্যবস্থাপনা শাখা থেকে জানা গেছে, যেসব স্থানে জনগণের ভিড় বেশি, আপাতত সেখানে ১৫০ মিটার পর পর ডাস্টবিন স্থাপন করা হচ্ছে। আর যেখানে জনসমাগম কম হয়, সেখানে স্থাপন করা হচ্ছে ৩০০ মিটার পর পর। এ ছাড়া ডিএসসিসি ইতিমধ্যে ২৫টি বর্জ্য ট্রান্সফার স্টেশন চালু করেছে। যেসব এলাকায় বর্জ্য ট্রান্সফার স্টেশন শুরু হয়েছে, সেখানে আর কেউ রাস্তায় ময়লা রাখতে পারছেন না।, আগামী এক-দুই মাসের মধ্যে এ ধরনের ৭২টি বর্জ্য ট্রান্সফার স্টেশন চালু হলে নগরীর রাস্তার ওপরে কোনো ময়লা থাকবে না। এ কাজে সবার সহযোগিতা দরকার ।পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কাজ করে যাবে, তবে সিটি তখনই সফল হতে পারবে যখন দেখবে নগরীর প্রতিটা মানুষ শহরকে নিজের মনে করে পরিষ্কার রাখছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

38 − = 30