দেশের মূল্যস্ফীতি নিম্নমুখী

চালের দাম কমেছে, সেই সঙ্গে সবজি ও তরিতরকারিসহ নিত্যপণ্যের দাম কিছুটা কমার ফলে মূল্যস্ফীতি কমেছে। সামনে রমজান মাস আসলে সেসময় মূল্যস্ফীতি বাড়বে না। ঈদের সময় কেনাকাটা বেশি হলেও মূল্যস্ফীতি নিয়ে শঙ্কিত নয় কেউ । যেভাবে মূল্যস্ফীতি নিম্নমুখী প্রবণতায় রয়েছে, এতে করে অর্থবছর শেষে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ৫ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যেই মূল্যস্ফীতি থাকবে। গ্রামে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে কমে দাঁড়িয়েছে চার দশমিক ৭৫ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল চার দশমিক ৭৯ শতাংশ। খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে তিন দশমিক ১১ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল তিন দশমিক ১৫ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে সাত দশমিক ৮০ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল সাত দশমিক ৮২ শতাংশ। শহরে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে কমে দাঁড়িয়েছে সাত দশমিক ২২ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল সাত দশমিক ২৭ শতাংশ। খাদ্য বর্হিভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ দশমিক ৫১ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল পাঁচ দশমিক ৬১ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে নয় দশমিক ১১ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল নয় দশমিক ১২ শতাংশ।এপ্রিল মাসে দেশের সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৬১ শতাংশে, যা মার্চ মাসে ছিল ৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। গত বছরের একই সময়ে (এপ্রিল মাসে) ছিল ৬ দশমিক ৩২ শতাংশ। এ সময়ে খাদ্য পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে তিন দশমিক ৮৪ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল তিন দশমিক ৮৯ শতাংশ। খাদ্য বহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে আট দশমিক ৩৪ শতাংশে, যা মার্চ মাসে ছিল আট দশমিক ৩৬ শতাংশ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

38 + = 42