স্পেনের পর, লন্ডন বিজয় করল মুসলমানরা।

আলহামদুলিল্লাহ, একজন পাকিস্থানী মুসলমান লন্ডনের মেয়র হয়ে গেছে। তারমানে মুসলমানরা স্পেনের পর এখন ইংল্যান্ড দখল করে ফেলেছে। নাড়াইয়া দে তাকবীর, আল্লাহু আকবর। আমার পাশে আমার এক পাকিস্থানী মুরিদ ছিল। এই ব্যাপারে তার অনুভুতি জানতে চাইলাম। সে অনুভুতি প্রকাশ করল এইভাবে:
“পাকিস্থানী মেয়ে মালালা নোবেল প্রাইজ পাবার পর, আমার যেমন অনুভুতি হয়েছিল, এখনো সেই একই রকম অনুভুতি হচ্ছে।”

আমি প্রশ্ন করিলাম:
“মুরিদ, ইকটু খোলাসা করেন বলো।”

পাকিস্থানি মুরিদ উত্তর দিল:
“ইহুদি-নাসারারা মালালাকে নোবেল প্রাইজ দিয়ে মুসলমান তথা পাকিস্থানীদেরকে অপমান করেছিল। একজন সাচ্চা মুসলমান হিসাবে আমি মনে করি, লন্ডনের নতুন মেয়র সাদিক খান, একজন মুনাফেক, ভন্ড, দুইনম্বর মডারেট মুসলমান। তাকে মেয়র হিসাবে দেখে ইয়াং সাচ্চা মুসলমানরা পথভ্রষ্ট হবে। সাদিক খান হলো সমকামী, নাস্তিক, খোদাদ্রোহীদের পক্ষের লোক। তিনি সমকামিদের অধিকার নিয়ে কথা বলেন। সে পানশালাতে (পাব) গিয়ে মদের ঘ্রান নেন। তিনি হচ্ছেন মধ্যম বামপন্থী লেবার পার্টির সদস্য। এরা ইসলামী মুল্যবোধে বিশ্বাস করে না। যেসব মুসলমানরা ইসলাম থেকে দুরে সরে আসছে, ইহুদি নাসারা তাদেরকে মুসলমানদের রোল মডেল হিসাবে সমাজে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে। আমি হলফ করে বলতে পারি মালালা, বারাক হোসেন ওবামার মতই সাদিক খান ইসলাম ধর্মের জন্য কিছুই করবে না। বরং তিনি ইসলামের পটু মেরে দিবে।”

পাকিস্তানী মুরিদের উত্তর শুনে আমি একটু চুপসে গিয়ে বলিলাম:
“আস্তাগ ফিরুল্লাহ।”

পাশে একজন বাংলাদেশি নাস্তিক মুরিদ ছিল। সে বলল:
“হুজুর, ইসলাম বাদ দেন। সাদিক খান, একজন সাউথ এশিয়ান এইজন্য আমরা সেলিব্রেট করি।”

আমি বলিলাম:
“তুমি একটা ভাল কথা বলিয়াছ, আসো স্যাম্পেইনের বোতল খুলি।”

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + 1 =