আপনার ছেলের মিলনও তো ইসলাম পরিপন্থী

রাষ্ট্রের আবার ধর্ম কি? রাষ্ট্র হবে সবার। আর তাই রাষ্ট্রের নির্দিষ্ট কোন ধর্ম থাকবে না। রাষ্ট্র ধর্ম হবে নিরপেক্ষ। ব্যাপারটা এমনই হওয়া উচিৎ ছিল। কিন্তু তা না হয়ে রাষ্ট্র ধর্ম করা হলো, ‌‘ইসলাম’! এর অর্থ হচ্ছে, এদেশ মুসলমানদের। এ দেশ হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টানদের নয়! তাই কি ইসলাম পন্থীদের এতটা আস্ফালন?

ভোট ব্যাঙ্ক বলে একটা কথা আছে। রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম করাটাও একটা চালাকি। বর্তমান সরকার নিজেদের ভোট ব্যাঙ্কে ভোট জমা করার জন্য মুসলিম গাধাগুলোর নাকের ডগায় ইসলামের মুলো ঝুলিয়েছে, তা ধর্মান্ধ গাধাগুলো ভুলে বুঝতে পারছে না। তাই তারা রাষ্ট্রধর্ম ‘ইসলাম’ পেয়ে বেশ দারুণভাবেই নেচে গেয়ে হল্লা করে যাচ্ছেন।

আমরা অনেক আগেই দেখেছি, আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হজ পালন শেষে তসবিহ ও হিজাব পরে টিভিপর্দায় এসেছেন। মানুষকে দেখিয়েছেন তিনি একজন সাচ্চা আল্লাওয়ালা। আর এমন সাচ্চা আল্লাওয়ালা কি কখনো ধর্ম-নিরপেক্ষ রাষ্ট্র করতে পারেন? তারপরও তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা ধর্ম নিরপেক্ষ সরকার হব’। তার এই কথাতে আমরা বিশ্বাস করেছিলাম। যার ফলে তিনি সরকারে এসেছিলেন। কিন্তু সরকারে এসেই তিনি রূপ পাল্টাতে থাকেন। ধর্ম নিরপেক্ষতা তো দূরের কথা, তিনি রাষ্ট্রকেই বানিয়ে ফেলেছেন ইসলামি রাষ্ট্র!

সে যা হোক, এখন আবার তিনি বিভিন্ন স্থানে বলে বেড়াচ্ছেন, ‘মদিনা সনদে দেশ পরিচালিত হবে’। কি সাংঘাতিক কথা! এটা তিনি কেন বললেন! বাহরে, তিনি এমনটা বলবেন না তো অন্য কেউ বলবেন? কেন না, আল্লামা শফি তো অনেকদিন ধরেই তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। তাহলে কি বুঝা যাচ্ছে, তিনি তেঁতুল হুজুরের কাছ থেকে পানি পড়া খেয়েছেন? যার কারণে মদিনা সনদে দেশ পরিচালনার কথা তিনি বলছেন। বেশ। চলুক মদিনা সনদে এই দেশ। আপত্তি নাই। কিন্তু মদিনা সনদে এ দেশ চালাতে গেলে যে সর্ব প্রথম তিনি ও তার সন্তান বিপদে পড়বেন, সে খেয়াল কি তার আছে?

আমি এর আগের একটি লেখায় বিস্তারিত বলেছিলাম, ‘ইসলামে নারী নেতৃত্ব হারাম’। অর্থাৎ মদিনা সনদে দেশ চালাতে গেলে তার নেতৃত্ব তাকে ছাড়তে হবে। এটাই বলছে ইসলাম। এবং এটাই হচ্ছে সহি ইসলাম। তাই সেই নেতৃত্ব নিয়ে নয়। এবার তার ছেলেকে নিয়েই বলছি।

আমরা জানি তার ছেলে যাকে বিয়ে করেছেন তিনি মুসলিম ধর্মের নন। তিনি খৃষ্টান ধর্মের। এমনকি সে এখন পর্যন্ত তার খৃষ্টান ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম হয়েছেন বলেও আমাদের জানা নেই। তাই আমরা ইসলাম অনুযায়ী দু’ একটি ব্যাখ্যা দিতে পারি যে, তার ছেলের বিয়েটা হারাম না আরাম?

সুরাহ আল মায়েদা ৫:৫১ নং এ বলা হয়েছে, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা ইহুদী ও খৃষ্টানদেরকে বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করো না। তারা একে অপরের বন্ধু। তোমাদের মধ্যে যে তাদের সাথে বন্ধুত্ব করবে, সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত। আল্লাহ জালেমদেরকে পথ প্রদর্শন করেন না ‘

তাফসির ইবনে কাথিরঃ উমর (রঃ) বলেন, “সে কি মুসলিম নয়?” আবু মুসা জবাব দিলেন,”না , কিন্তু সে খৃস্টান”। তখন উমর রঃ এসে আবু মুসার কাঁধে হাত রেখে বললেন,”বের করে দাও একে মদিনা থেকে!”। অতঃপর উমর রঃ তেলাওয়াত করলেন:-

{সুরা আন নিসা ৪:১৪৪ নং} ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা কাফেরদেরকে বন্ধু বানিও না মুসলমানদের বাদ দিয়ে। তোমরা কি এমনটি করে নিজের উপর আল্লাহর প্রকাশ্য দলীল কায়েম করে দেবে(মুনাফেকে পরিণত হবে)?’ অতঃপর আবু মুসা উমর রঃ এর নির্দেশ মেনে সেই খৃস্টানকে মদিনা থেকে বের করে দিলেন।

তাহলে কি দাঁড়াল? আপনি যদি সত্যি সত্যি মদিনা সনদে দেশ চালাতে যান, চালান। কিন্তু আপনার ছেলেকে কি নির্দেশ দিবেন? মদিনা সনদে দেশ চালালে তো আপনার পুত্রবধূ এ দেশের জন্য নিষিদ্ধ। এবং তার সাথে আপনার ছেলের মিলনও তো ইসলাম পরিপন্থী। তাহলে কি করবেন? চলুক তবে মদিনা সনদ অনুযায়ী এই দেশ। কি বলেন?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “আপনার ছেলের মিলনও তো ইসলাম পরিপন্থী

  1. ভাই, আপনার জানায় ভুল আছে।
    ভাই, আপনার জানায় ভুল আছে। পবিত্র কুরআন অনুযায়ী মুসলমানরা ইহুদী-খ্রিস্টান মেয়েকে বিয়ে করতে পারবে। কারণ, তারা আহলে কিতাবের অনুসারী। আপনি পড়লেই দেখতে পাবেন।
    আপনাকে ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

31 + = 36