ইসলাম রক্ষার দায়িত্ব খুনিদের হাতে

নারায়ণগঞ্জে একজন প্রধান শিক্ষককে গণ-পিটুনি এবং সেই শিক্ষককে সবার সামনে কান ধরে ক্ষমা চাওয়ানো অতঃপর তাকে পুলিশে সোপর্দ! বাহ! বাহ! বাহ! এ না হলে আমার বাংলাদেশ! কি করেছিলেন ওই শিক্ষক?

যতদূর ছড়িয়েছে তিনি নাকি ইসলাম নিয়ে কৌটুক্তি করেছেন। আর এতেই এলাকাবাসী ক্ষেপে গিয়ে এমপি সেলিম ওসমানের সামনেই গণপিটুনি দিয়েছেন! এরপর সেলিম ওসমান নিজেই দাঁড়িয়ে থেকে তাকে কানে ধরিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করতে বলেন!

কে এই সেলিম ওসমান! তিনি আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যন্ত আস্থাভাজন। তার ভাই বাংলাদেশের স্বনামধন্য একজন ‌‘গডফাদার’ শামীম ওসমান। যে শামীম ওসমান ব্লগার রাজীব হায়দার (থাবা বাবা)’র মৃত্যু নিয়ে ফায়দা লুটেছিলেন। রাজনীতি করেছিলেন।

রাজীব হায়দারকে যখন খুন করা হয়। তখন শামীম ওসমান চাষাঢ়া চত্বরকে রাজীব চত্বর বলে ঘোষণা দেন এবং সেখানে একটি সাইনবোর্ড স্থাপন করেন। তখন অবশ্য তিনি এমপি হননি। এরপরই নারায়ণগঞ্জের হেফাজত ইসলাম নেতা আউয়ালের সাথে তিনি গোপন বৈঠক করেন বাগে জান্নাত মসজিদে। এরপর থেকে আর রাজীব চত্বরের কোন অস্তিত্ব নেই।

মূলত হেফাজত আর শামীম ওসমান পরিবার বর্তমানে এক পেট এক চেট। তার নেপথ্য কারণ হচ্ছে, ত্বকী হত্যা। ত্বকী হত্যার পর দারুণ কোণঠাসা হয়ে পড়েছিলেন এই ওসমান পরিবার। তাই হেফাজতের সাথে দহরম মহরমটা তার দরকার ছিল।

শুধু তাই নয়, যখন রাজাকারের বিচার দাবীতে শাহবাগ জেগে উঠলো। নারায়ণগঞ্জেও প্রতিষ্ঠা হল গণজাগরণ মঞ্চ। তখন এই শামীম ওসমান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা সেই মঞ্চের কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করেছিলেন। এমনকি মঞ্চের অনেক-কর্মীকে প্রকাশ্যে তার সন্ত্রাসী বাহিনী পিটিয়েছেনও।

বর্তমানে এই শামীম ওসমান বিনা ভোটে নির্বাচিত এমপি। তিনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরপরই নারায়ণগঞ্জে সেভেন মার্ডার হয়। যার মূল আসামী তারই একনিষ্ঠ শিষ্য নূর হোসেন।

শুধু তাই নয়, এই শামীম ওসমান পরিবারের বিরুদ্ধে তরুণ নাট্যকার চঞ্চল, আশিকুর রহমান আশিক, রাসেল হত্যার অভিযোগসহ অসংখ্য হত্যার অভিযোগ রয়েছে। তাদের ভয়ে নারায়ণগঞ্জের অনেকেই মুখ খুলতে সাহস পায় না। আবার প্রধানমন্ত্রী এই সন্ত্রাসী পরিবারের দায়িত্ব নেন প্রকাশে সংসদের ঘোষণা দিয়ে!

সে যা হোক, তবে প্রশ্ন হচ্ছে ইসলাম নিয়ে কি এমন কৌটুক্তি করেছিলেন প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্ত? সে কি ওসমান পরিবারের থেকেও বেশি অন্যায় করেছিলেন? যে ইসলাম প্রকাশ্যে মানুষ হত্যা করতে উৎসাহিত করে, সে ইসলাম নিয়ে কি এমন বলেছিল? নিশ্চয় শ্যামল কান্তি ভক্তের অপরাধ ওসমান পরিবারের চেয়েও বেশি নয়?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “ইসলাম রক্ষার দায়িত্ব খুনিদের হাতে

  1. ইসলাম প্রতিষ্ঠা হয়েছে খুনী,
    ইসলাম প্রতিষ্ঠা হয়েছে খুনী, ডাকাত, লুটেরা ও লম্পটদের মাধ্যমে। ইসলাম রক্ষা ভাল মানুষেরা কিভাবে করবে?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

36 + = 42