প্রেমপত্র-৫৪

প্রিয়ংবদা,
এই “আই লাভ ইয়্যু” যে কেউ তোমাকে বলতে পারে,যখন তখন,যে কেউ মানে কিন্তু যে কেউ ই!সকাল বিকেল এমনকি কখনও কথা হয়নি সেও।
রাস্তা দিয়ে হাটছ, কোন সুদর্শন যুবক গোলাপ হাতে এক নিঃশ্বাসে বলে ফেলবে “আই লাভ ইয়্যু”ক্লাশ এইটে পড়ছ, দেখতে শুনতে মাশাল্লাহ…হুর পরী। ক্লাশের মাম্মা-ডেডিস বয়টাও তোমায় কলম গিফট করতে বাবার পকেট মারবে! কলম হাতে বলবে, “এই কলম তোমার-আমার ভালোবাসার সাক্ষী! আই লাভ ইয়্যু”
অনার্স লাইফের সেকেন্ড দিনেই ডিপার্টমেন্টের বড় ভাইটা ডেকে বলবে, “মেয়ে, আমার কাছে সকল নোট-শিট পাবা! কল মি। আর শোন, তুমি বড্ড কিউট”
তুমি ভার্সিটি পড়! রোজ তোমার পিছনে বহু ছেলের আনাগোনা থাকবে,সে হতে পারে ডিএমসি বয়, বুয়েট সুপুরুষ কিংবা ঢাবিয়ান। আল্টিমেটলি, সবাই তোমাকে বলবে, “আই লাভ ইয়্য”
“অথবা ”
ঠিক কোন এক রাতে এরকম কোন মূহুর্তে প্রত্যেক দিন যে মানুষটি তোমার ছবি দেখে ঘুমতে যায় আবার তোমার ছবি দেখেই ঘুম থেকে উঠে। কোনদিন দেখা হয়নি তারপরও যখন বন্ধুরা তাদের প্রিয়াকে নিয়ে বাইরে যায়,তখন দাতে দাত চেপে বলে আমারও আসবে সময় আথবা সবার থেকে ভাল হবে সেই দিন,তোমার ছবি হাতে নিয়ে মুখে অস্পস্ট ভাবে বলে”তোমাকে ছাড়া পৃথিবীতে বাঁচে থাকা কি দুঃসহ !!”
অনেকগুলা রাত চোখের পানি মুছে চলে যায় তুমিহীনতায়।হয়তোবা রবীন্দ্রসঙ্গীতের সবথেকে মধুর গানটাও মন ভাল করে না। সিলিংয়ের দিকে তাকিয়ে তোমার মায়ামুখটুকু কথা ভেবে ঐ কাল্পনিক তোমার সাথে ঘন্টার পর ঘন্টা যুদ্ধ করে কাটিয়ে দেয় নিরন্তর।কতটা কষ্টকর সময় ছিলো ওটা, কতটা তুমি নামক অনুভূতি বাসা বেঁধেছিল তার বুঁকের ভেতরটায়, শুধু তুমিই জানো !!
অথচ দেখো, তুমি এখনো নিশ্চুপ থাক।তবে সে ভালোই আছে,সত্যি ভালই আছে।কারন তার ভাল থাকার কারন তুমিময়তা।
এই মূহুর্তের জন্য ঐ ছেলেটির আফসোস হয়না যখন সে তোমায় ভেবে সারা রাত কাটিয়ে ছিল বরং গর্ব হয় কারন তুমি নামক মেয়েটার ঘাতক চাহুনীতে মরে যেতে থাকে সেই ছেলেটা প্রতিদিন। গর্ব কারন এ নিশ্চিত আগস্ত যাত্রা শুধু তোমারই কারন। কারন সকাল বিকাল একহালি ভালবাসি বলার জন্যে পাওয়া যায় কিন্তু কয়জন পারে প্রিয়তমার জন্য অনন্ত অপেক্ষা করতে?
জীবনটা এমনই হুট করে জীবনে ঝড় আসে ।সেই ঝড়ে সব ওলটপালট হয়ে যায়।এই ছেলেটাও কি আগে ভেবেছিল এমন করে কোন এক অসম্ভব মায়াবতীর চোখের কাজলে প্রতিদিন খুন হবে।
মাঝে মাঝে কি মনে হয় জানো তোমার সাথে যখন ছেলেমানুষিগুলো করি হঠাৎ করে ভেবে নিজেকে ভীষণ বোকা বোকা লাগে।হঠাৎ করে দু গাল হেসে নি।তবে,মাঝে মাঝে বোকা হতেও বড্ড ভালো লাগে।সেটা তুমি বলেই লাগে।
আমি জানি শুধু ভালোবাসলেই হয়না,ভালোবাসার মানুষকে পাওয়ার চেষ্টা করতে হয় পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয়।অপেক্ষার শেষ মূহুর্তেও যদি না পাওয়া হয় তবুও সেখানে একধরনের আত্মতৃপ্তি কাজ করে ভালোবাসার তৃপ্তি,অপেক্ষার তৃপ্তি।
গর্ব হয় কারন সেই হাসি অপেক্ষার হাসি,ভালোবাসার হাসি ও অনেকদিনের দৃঢ়তার হাসি।
তোমাকে ভালোবাসায় আমার ব্যর্থতা বলতে কিছু নেই।আছে দৃঢ় প্রত্যয়,একাগ্য কামনা,অদম্য চাওয়া আর আছে অপেক্ষা শুধু তোমার জন্যে অনন্ত এ অপেক্ষা।
প্রথম গুলো অনেকেই পারে কিন্তু তোমাকে যে খুব সাধারন ছেলেটির কথা বললাম যে তোমাকে স্বপ্নের মধ্যে নিয়েই দিন অতিবাহিত করে।সে যে আমি তা হয়তো বলার অপেক্ষা রাখে না তবে যেটা বলার অপেক্ষা রাখে সেটা হলো ছেলেটির আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছে অদ্ভুত তুমিময়তা।আজন্ম তোমাকে চাওয়া হে আমর চির কাঙ্খিতা।
তোমার
একলব্য

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

35 − 34 =