প্রেমপত্র-৬০

পাগলী,
আমার অনেক দিনের ইচ্ছা,
তাজিংডংয়ের চূড়ায় বসে, তোমাকে সামনে রেখে পান করবো বিশুদ্ধ ভালবাসা।অতঃপর নিশুতী রাতে শত কোটি নক্ষত্র সাক্ষী রেখে,তোমার চোখে সপে দেবো নিজেকে!অধিকারে বুঝে নেবো তোমার বিশুদ্ধ আদর।নিতে পারবে তো এই পাগলের পাগলামী, যাবতীয় স্বপ্ন, লাল-রঙ্গের হেয়ালীপনা?
আমার যত কবিতা আছে সব, আমার যত জীববিজ্ঞানের মতো প্রেম
আর পেনেলোপের মতো ভয়ংকর ভালবাসা তোমাকে জড়িয়ে আছে সব সব সব সত্যি বলছি, এই সব কিছু দায়িত্ব তোমার।
দেবী আমি সবকিছু ছেড়ে দিয়ে তোমার কাছে, শূন্য হাতে, করুন কোন
ভিখারীর মতো চেয়ে বসবো ভোরের পাখি, সোনালী রুদ্দুর, নোনা-স্বপ্ন, অনাগত ভবিষ্যৎ, জগত-সংসার, তোমার ঘুমের বাসর, তোমার মনের কোনে জমে থাকা অজানা ক্ষোভ, প্রিয় সব ক্ষত আর আস্তো পৃথিবী তোমার।এতো দেরী করলে কেন? সেই কত জীবন থেকে তোমার অপেক্ষা করছি।
দেবী বাইরে ঝুম বৃষ্টি। আমার জন্যে তো আর গেইটের একজোড়া কদম ফুল দাঁড়িয়ে থাকব। ঝুম বৃষ্টি মাথায় নিয়ে, কাদা-জল ভেঙ্গে তোমার কাছে ছুটে আসব,রিক্সায় করে কাকভেজা বৃষ্টিতে ভেজিতে ভিজতে পান করব তোমার চোখের মায়া।রিক্সা খুঁজে পেতে যদি দেরী হয় তখন বেশ ভিজে গেলে তুমি কিন্তু রুমাল দিয়ে মুছে দিলে চলবে না তোমার শাড়ির আঁচল
দিয়ে মুছিয়ে দেবে এইটা তোমার কাছে আমার অনন্ত দাবী,তুমি আমার বউ হবে তখন ইচ্ছেটা পূরণ করবে।আমি বুড়ো বয়েসে পান চিবোতে চিবোতে কোন এক বাদলঘন দিনে বসে বসে রোমন্থন করবো ভালোবাসাময় সময়টাকে। নাতিপুতিকে তখন তোমার আমার গল্প শোনাবো।আমি কেমন লাট্টু ছিলাম সেই গল্প শুনাব।তবু কিছু কথা বাকী থেকে যায়।
কিছু কথা না বলাই রয়ে যায়।জানোতো তোমাকে বুঝতে আমার কিছু সময় কেটে গেছে তোমার জন্য আমি একটা রাতো ঠিকমতো ঘুমাতে পারিনা। তবে সে জন্য তোমার কোন দোষ নেই।I can’t fulfill my love story without you, please fulfill my love story.
শুধু কবির ভাষায় তোমাকে বলতে ইচ্ছে করে,
পাগলী, তোমার সঙ্গে পাপবিদ্ধ জীবন কাটাব।পাগলী, তোমার সঙ্গে ধর্মমতে কাটাব জীবন।পাগলী, তোমার সঙ্গে পুজা বেদি জীবন কাটাব।
পাগলী, তোমার সঙ্গে মধুমালা কাটাব জীবন।দোঁহে মিলে টিভি দেখব, হাত দেখাতে যাব জ্যোতিষীকে একুশটা উপোস থাকবে, ছাব্বিশটা ব্রত উদযাপন।পাগলী, তোমার সঙ্গে ভাড়া বাড়ি জীবন কাটাব।পাগলী, তোমার সঙ্গে নিজ ফ্ল্যাট কাটাব জীবন।আমার সারাটা জীবন এক কোটি নক্ষত্ররাত তোমার সাথে কাটাব।
ইতি পাগলীর
আস্ত পাগল

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

18 − 8 =