প্রেমপত্র-৬৩

রোদেলা,
ভাবছি তোমাকে একটা কথা বলবো,ইমম প্রতিদিন ভাবি নতুন করে কি বলা যায়,কোনদিন ভাল কবিতা আর কোনদিন চিঠি দিয়ে তারপর চুপ করে বসে থাকি,হয় বলবে ভাল হয়ছে না হয় চুপ থাকবে,তবুও তো কিছু বলবে আর না হয় দেখবে,আমি কিছু শুনতে পাবো,না হয় জানতে পাবো তুমি দেখেছ এভাবেই দিন যায়।পরে ভাবি মেয়েটি যে আমার আজব পাগলামী সহ্য করছে তাও তো কম না,দিনকে দিন প্রতিদিন ভালবাসি কথাটি বলতে বলতে তার কান পঁচিয়ে ফেলেছি,সে আবার কানে ওষুধ দিয়ে নতুন করে শুনছে,তুমি তো সেই একটাই মেয়ে যার কাছে আমি আশা করতে পারি,আমি শত অন্যায় করবো মেয়েটা সহ্য করে যাবে,তার পর আবার বলবো,শোন ভালবাসিতো…,ও হ্যা একটা সমস্যা মেয়েটার নিশ্চুপতা আমার ভাল লাগে না,আমি চাই সে আমার সাথে কথা বলুক,আমার সাথে পথ চলুক,আমি সারজীবন মেয়েটাকে আগলে রাখতে চাই,তার অনাগত সন্তানের পিতা হতে চাই।কি এক আজব অবস্থায় দিন কাটাচ্ছি,কোলবালিশ আর কোম্বলে আর কতদিন?একটা বউ হলে ভাল হয়,আরও ভাল হয় সেই মেয়েটা যদি তুমি হও,আর কথা শুনে যদি তোমার মাথা গরম হয়ে গেলে কি আসে যায়,সামনে থেকে পালিয়ে পিছনে গিয়ে বলবো,ভালবাসিতো।এই যে রোদেলা আমি তোমার রাজপথে তীব্র রোদে দাড়িয়ে ঝলসে,নিজেকে পুড়িয়ে বিশুদ্ধ করছি তোমাকে পাবার অপেক্ষায়।এই অতল ভালবাসা শুধু তোমারই জন্যে।
আমি তোমাকে এত বেশি স্বপ্নে দেখেছি যে আমার মনে হয় তুমি আমার পৃথিবী গিলে ফেলেছ।এখনো আমার মনে হয় তোমার স্বপ্ন আমার চেতনাকে স্পর্শ করে।এবং যে ওষ্ঠ থেকে আমি সমস্ত পদার্থের স্বাদ নি সেখানে লেগে থাকে তোমারই স্বপ্নের চুম্বন।আমি তোমাকে এত বেশি স্বপ্ন দেখেছি যে আমার পক্ষে আর তুমিহীনা একা থাকাই সম্ভব হবে না।আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘুমোই,ঘুমাতে ঘুমাতে হাঁটি আমার শরীর চেতনা তোমাকে বিবেচনা করতে করতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে।স্বপ্নে চাইলে কত স্বাদই না পূরন হয়?এই যেমন আমি তোমার ভুরু ছুঁতে পারি, ওষ্ঠ ছুঁতে পারি।উহু এত কম নয়।আমি তোমাকে এত বেশি স্বপ্নে দেখেছি, হেঁটেছি,
কথা বলেছি।যে মনে হয় সকাল বেলার নরম সূর্যের আলো যখন তোমার চাঁদ মুখে পড়ে অপরুপ প্রতিমা লাগে যেই তোমাকে,সেই তোমাকে আমি প্রতিদিন দেখতে পাই।
রোদেলা,তুমিতো জানোনা তুমি আমার মতো পাগল জীবনেও দেখনি?
বিশুদ্ধ ফরমালিন ছাড়া নির্জেজাল পাগল।আমি তোমার ভীত চাহুনী এই দুচোখে গেথে রাখবো।যেখানে আছি আমি সেখানে দারিয়েই তোমার জন্য অপেক্ষা করবো,আজীবন।তুমি জানো খুব ভাল করেই জানো তোমার চোখে আমি আমার পৃথিবী দেখেছি,একটা ছোট্ট অনুরোধ,তোমার পৃথিবীর একটা বড় জমি আমার জন্যে বরাদ্দ রেখ,শুধুই আমার থাক,এক জীবনে,হৃদয় দিয়ে আগলে রাখবো,তোমার ঐ মায়াবী আঁখির কসম।
রোদেলা আমি তোমাকে বুঝাতে চেয়েছি ,যখন আমি শেষ হয়ে যাব,শেষ হবে জীবনের সব কাজ ,মৃত্যু এসে শেষ বারের মত আমার চোখ থেকে সব আলো মুছে নিয়ে যাবে তখনও আমি তোমাকেই চাইবো ।আমার শেষ নিঃশ্বাসে ,হৃদয়ের অন্তিম স্পন্দনে শুধুই তোমারই নামটি উচ্চারিত হবে । কারন তুমি নামক সেই সত্ত্বাটি আমার আত্মার গভীরে মিশে গেছ।প্রতিটি বিশ্বাসে , প্রতিটি নিঃশ্বাসে , তুমি আছো এ মনে , তুমি আছো এ হৃদয় জুড়ে এখানে আর কিছুর অস্তিত্বই নাই।
আসলে মানুষ বিশ্বজুড়ে ভালবাসার কঠিন সংজ্ঞা প্রচার করছে যখন, তখন যখন সারাজীবন প্রিয়তমার হাত ধরে কাটিয়ে দিতে ভয় অনেকের।
তখন আমি তোমার হৃদয়ে ঘরে বাইরে সত্ত্বায়,অস্তিত্বে ও রাজপথে দাড়িয়ে চিৎকার করে বলে দি ভালবাসি,আমি তোমার জন্য আছি!তুমি থাকলেও আছি না থাকলেও আছি।আমি আজীবন তোমাকেই চাইব,তুমি চাইলেও চাইব না চাইলেও চাইব।
শবে বরাত চলে গেল প্রতিবারই কিছুনা কিছু চাই নিজের জন্য বাদে।এইবার নিজের জন্যে চাওয়া যুক্ত হয়েছে যার সংযুক্তিতে শুধু তুমি।
শরীরের যত্ন নিও ওটার বিষয়ে কোন অবহেলা সহ্য করব না কিন্তু বলে দিচ্ছি। শুভ রাত
ইতি
রোদেলার কাব্য

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 48 = 58