দোষটা কি খালি শিক্ষাব্যবস্থা আর মিডিয়ারই?

বর্তমানে যেই ইস্যু নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া গরম হয়ে আছে তা নিয়া বলার বেশি কিছু নাই। একেকজন একেকপক্ষকে গালি দিচ্ছে। কেউ দিচ্ছে নাহিদকে, কেউ দিচ্ছে শিক্ষাব্যবস্থাকে, আবার কেউ দিচ্ছে মিডিয়াকে। না, মানতে কষ্ট নেই যে সবারই দোষ আছে। তবে আমরা কি আমাদের সমাজ ব্যবস্থাকে ভুলে যাচ্ছি না? আমাদের সমাজব্যবস্থাও কি দায়ী নয় এই অবনতির জন্য? বেশীরভাগ মানুষই কিন্তু সেটা এড়িয়ে যাচ্ছে।

প্রথমত আমাদের বাবা মায়ের অবস্থান। তারাই কিন্তু সর্বপ্রথম আমাদের “ভাল রেজাল্টের” পেছনে ছোটাচ্ছেন। তাদের গর্ব, তারা কারি কারি টাকা খরচ করে আমাদের নামি দামি কোচিং এবং স্কুল কলেজে পড়াচ্ছেন। একটু খারাপ রেজাল্ট করলেই বকা ঝকা, ক্ষেত্র বিশেষে মারও খেতে হয় আমাদের। যার জন্য আমরাও জিপিএ ৫ এর পেছনে ছুটছি। আমাদের বাবা মা আমাদের সমাজব্যবস্থারই অংশ। শুধু তাই না, তারাও আমাদের এভাবে ছোটাচ্ছেন শুধু সমাজের জন্যই। আমরা খারাপ করলে পাশের বাড়ির করিম মিয়া কি বলবেন সেটা নিয়েই তাদের যত ভাবনা। আবার ওইদিকে করিম মিয়ার ছেলে খারাপ করলে রহিম মিয়া কি বলবেন সেটা নিয়েও করিম মিয়ার চিন্তার শেষ নাই। এভাবেই চক্রে পরে যাই আমরা। এই দেশে সামাজিক স্ট্যাটাস মাপা হয় টাকা দিয়ে। আর যাদের টাকা একটু কম, তারা চেষ্টা করে তাদের সন্তানদের পড়াশোনা দিয়ে তাদের স্ট্যাটাস উচু করতে। আমি আমার বাবা মাকে প্রায়ই বলতে শুনেছি, “দেখো, ওরা কত গরীব, কিন্তু তারপরও ওই ছেলে বুয়েটে পড়ে”। অর্থাৎ ওই পরিবারের পরিচয় তাদের সন্তানের পড়াশোনা। আর সেজন্যই আমরা প্রশ্ন কেনার সময় একবারও ভাবি না আমাদের সন্তান কি শিখবে চুরি করে পাশ করে। কারন রেজাল্টটাই যে জীবনের শেষ কথা! এভাবেই আমরা সবাই মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পরছি। অসুস্থ বানাচ্ছি আমাদের সন্তানদের। জিপিএ ৫এর দৌরে যে আমাদের বাবা মারাই সর্বপ্রথম নামিয়ে দিচ্ছেন, ভুলে যাই আমরা।

আমার নিজের দৃষ্টিকোণ থেকে বলি। আমি ছোটকাল থেকে ইংলিশ মিডিয়ামে পড়ে বড় হয়েছি এবং বর্তমানে ক্যানাডাতে উচ্চশিক্ষার জন্য অবস্থান করছি। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এরকমভাবে তৈরি যে বেশীরভাগ ইংলিশ মিডিয়ামের ছাত্রদের বাংলা লেখাতো দুরের কথা, পড়তেই কষ্ট হয়। বাংলা ও বাংলাদেশ সম্পর্কে পড়াকে সেকেন্ডারি কাজ হিসেবে নেই আমরা। কিন্তু তারপরেও কিন্তু আমি যথেষ্ট বাংলা পারি এবং যথেষ্ট বাংলাদেশ সম্পর্কে জানি। এটা শুধু সম্ভব হয়েছে আমার নিজের গরজের কারনে। আমি নিজ থেকে এগিয়ে এসে বাংলা শিখেছি এবং বাংলাদেশসহ বিশ্ব সম্পর্কে জেনেছি। গর্ব করে বলতে পারি ক্লাস সিক্সে থাকতে বিসিএসের সাধারন জ্ঞানের বই পড়তাম আমি। কই? সেটা কি আমার শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যে ছিল? না। শুধু শিক্ষাব্যবস্থাকে দোষ দিলেই হবে না। ছাত্রদের নিজ থেকে গরজ তৈরি করতে হবে, এবং পরিবার হিসেবে সেই গরজ তৈরির ক্ষেত্র বানিয়ে দিতে হবে। আর সেজন্য চাই পরিবার ও সমাজের উন্নতি। আমরা সবাই যদি ডিমান্ড করি জিপি৫, তখন সাপ্লাই তো হবেই। আমরা যেদিন সবাই মিলে রেজাল্টের চেয়ে জ্ঞান অর্জনকে বড় করে দেখব, তখনই আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থার উন্নতি হবে। এক নাহিদ সরে গিয়ে কিছুই করতে পারবে না। চাই সব মিলিয়ে একসাথে চিন্তার পরিবর্তন।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “দোষটা কি খালি শিক্ষাব্যবস্থা আর মিডিয়ারই?

    1. আমি মনে করি শিক্ষ্যাব্যবস্থার
      আমি মনে করি শিক্ষ্যাব্যবস্থার চেয়ে সমাজের দোষ বেশি। কেননা শিক্ষ্যাব্যবস্থা কোন দেশেই পারফেক্ট না। এটা বলছি না আমাদের শিক্ষ্যাব্যবস্থা ভাল, আমি শুধু বলতে চাচ্ছি মানসিকতার পাল্টালে সব কিছুই পালটে যাবে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

58 − 50 =