বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে ‘মাছরাঙ্গাটিভি’র পরিকল্পিত-প্যাকেজ-নাটক!

স্বাধীনতাবিরোধীদের তথা একাত্তরের চিহ্নিত-যুদ্ধাপরাধী মীর কাশেম আলীর পরিচালনাধীন আবোলতাবোল-টিভি-দিগন্তটিভি বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর এর দায়িত্ব পেয়েছে ‘কথিত-মাছরাঙ্গাটিভি’। জীবনের শুরু থেকে এদের উদ্দেশ্য ভালো নয়। এটি একটি সম্পূর্ণ ব্যবসায়িক-টিভি-চ্যানেল। আর এটি একটি ‘গ্রুপ-অব-কোম্পানি’র মুখপাত্র হিসাবে কাজ করছে। আর এই ‘গ্রুপ-অব-কোম্পানিটি’ দেশে ভেজাল ওষুধ তৈরি করা-সহ দেশের কর-ফাঁকি দেওয়ার মতো জঘন্য ও নীতিগর্হিত কাজে লিপ্ত হয়েছে। এদেরই ব্যবসানির্ভর একটি প্রতিষ্ঠান হলো: কথিত-মাছরাঙ্গাটিভি।

মাঝে-মাঝে এরা দেশের বোকামানুষগুলোকে আরও বোকা বানানোর জন্য এমন সব রিপোর্ট তৈরি করে থাকে—আর যা দেখে অনেক সময় সাধারণ মানুষ পর্যন্ত বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে। এদের একমাত্র পুঁজি পাকিস্তানীফর্মুলা ও আঁতেলকেন্দ্রিক বুদ্ধিসুদ্ধি। আর এদের প্রধান অস্ত্র হলো আঁতলামি। কিছু আঁতেল এখানে বাসা-বেঁধেছে। আর এরা মনে করে থাকে: এরা যা বলবে দেশের মানুষ সবাই বুঝি তা-ই বিশ্বাস করবে! এমন একটা ভণ্ডামি-জাতীয় চিন্তাভাবনা থেকে তাদের দেশবিরোধীআগ্রাসন পরিচালিত হচ্ছে।
আসল রহস্য কী?
‘মাছরাঙ্গাটিভি’র এই রসিকতা ও শয়তানীর উদ্দেশ্য হলো: দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে সরাসরি আঘাত করে দেশের একটি নাশকতাসৃষ্টিকারীগোষ্ঠীকে অপরাজনীতি করার সুযোগ তৈরি করে দেওয়া। আসুন, একবার দেখে নেই ‘মাছরাঙ্গাটিভি’র শয়তানীউদ্দেশ্যে পরিচালিত কতিপয় বাজে-প্রশ্ন ও তার বিভ্রান্তিকর-উত্তরের নমুনাস্বরূপ কিছু এখানে তুলে ধরা হলো:

প্রশ্ন-১. বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতা কে?
মাছরাঙ্গা-উত্তর: কাজী নজরুল ইসলাম!
প্রশ্ন-২: ‘আমি জিপিএ ফাইভ পেয়েছি’-এর ইংরেজি কী?
মাছরাঙ্গা-উত্তর: I am GPA 5!
প্রশ্ন-৩: নেপালের রাজধানীর নাম কী?
মাছরাঙ্গা-উত্তর: নেপচুন!
প্রশ্ন-৪: পীথাগোরাস কে ছিলেন?
মাছরাঙ্গা-উত্তর: ঔপন্যাসিক!
ইত্যাদি। ইত্যাদি। ইত্যাদি। এসবকিছু খুব ঠাণ্ডামাথায় ‘মাছরাঙ্গাটিভি’র দেশবিরোধী-নাশকতা। আর এসব তাদের আগে থেকে সাজানো নাটক। এদের ধরে এইবার ৩-৭ দিনের রিমান্ডে নিলেই সব সত্য বেরিয়ে আসবে।

‘মাছরাঙ্গা-টিভি’ প্রযোজিত দেশের শিক্ষাবিষয়ক মনগড়া ও বানোয়াট রিপোর্টের বিরুদ্ধে কতিপয় বস্তুনিষ্ঠ ও সঠিক যুক্তিদলিল পেশ:

দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নানাকারণে সমালোচিত হতেই পারে। এর পাঠ্যসূচি, পাঠ্যপুস্তক, পরীক্ষাপদ্ধতি, পাসের হারের আধিক্য, প্রশ্নপত্রপ্রণয়নে ত্রুটিবিচ্যুতি, পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়নের ক্ষেত্রে নানারকম অনিয়ম-দুর্নীতি ইত্যাদি সমালোচিত হতেই পারে। কিন্তু তাই বলে দেশের সামগ্রিক শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢালাওভাবে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করাটা শিষ্টাচারবর্জিত কার্যকলাপ। আর সেই অপকর্মটিই করছে পাকিটিভি-মাছরাঙ্গা। এদের দৌরাত্ম্য দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতিসম্প্রতি তারা দেশের এসএসসি-পাস কতিপয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে এক অনুষ্ঠানে কিছুসংখ্যক ছাত্রনামধারী-পাকিস্তানপন্থী-ছাত্রসংগঠনের ছেলেদের কাছে লাইভ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন পরিকল্পিত প্রশ্ন করে। আর তাতে দেখা যায়, এখানে উপস্থিত সদ্যো-এসএসসি-পাস শিক্ষার্থীরা নানারকম পরিকল্পিত-প্রশ্নের আবোলতাবোল উত্তর দিচ্ছে। তারা রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়া একেকজন যুবককে এসএসসি-পাস বলে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাদের কাছে মাছরাঙ্গাটিভির নানারকম মনগড়া প্রশ্ন ছুঁড়ে দিচ্ছে। আর কথিত-এসএসসি-পাস শিক্ষার্থীরা হাস্যকর সব উত্তর দিচ্ছে।
আরে, এসব তো আগে থেকে পরিকল্পিত। আর এসব তো মাছরাঙ্গাটিভির প্যাকেজ-নাটক। এখন পুরাদমে তারই শুটিং চলছে।

আসলে, যাদের কাছে বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়েছে, এরা কেউই ছাত্র নয়। এরা মাছরাঙ্গাটিভির নিজস্ব লোকজন। এদের দীর্ঘদিন প্রশিক্ষণ দিয়ে টিভি-ক্যামেরার সামনে আনা হয়েছে। আর তাদের কাছে মাছরাঙ্গাটিভির আগে থেকে নির্ধারিত প্রশ্নগুলো করা হয়েছে। আর এদের আগে থেকেই বলা হয়েছে: তারা কে কোন প্রশ্নের উত্তরে দিবে। এসব নাটকীয় প্রশ্নের উত্তর আগে থেকেই ঠিক করা ছিল। এরা সেভাবেই উত্তর দিয়েছে। এটি একটি পরিকল্পিত-প্যাকেজ-প্রোগ্রাম। আর এর সঙ্গে মাছরাঙ্গাটিভির এমডি থেকে শুরু করে সকল স্তরের কলাকুশলীরা জড়িত। এদের এখন অবিলম্বে বিচারের আওতায় এনে এদের ধৃষ্টতামূলক অনুষ্ঠানের দাঁতভাঙ্গা জবাব দিতে হবে।
যে-সব শিক্ষার্থী-নামধারী ব্যক্তি বিভিন্ন প্রশ্নের উল্টাপাল্টা জবাব দিয়েছে, তারা একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার-বানচালকারী ছাত্রসংগঠনের সক্রিয় নেতা-কর্মী। আর এরা মাছরাঙ্গাটিভির পোষ্য। এদের হাতে মোটা অঙ্কের অর্থ ধরিয়ে দিয়ে এই চাঞ্চল্যকর-নাটকসৃষ্টি করা হয়েছে। এটি সম্পূর্ণভাবে একটি পরিকল্পিত-নাশকতা।

মাছরাঙ্গাটিভি কতজন শিক্ষার্থীকে তাদের আগে থেকে ঠিক করা প্রশ্ন করেছে? দেশের এসএসসি-পাস করা শিক্ষার্থীদের তুলনায় তা একেবারে নগণ্য। মাত্র এই কয়েকজন শিক্ষার্থীর আবোলতাবোল প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে একটি দেশের শিক্ষাব্যবস্থার সম্পূর্ণ চিত্র তুলে ধরা হাস্যকর, বেআইনি, বেআদবি ও সরাসরি ধৃষ্টতা।

আসলে, মাছরাঙ্গাটিভির এই পুরা অনুষ্ঠানটিই ছিল একটি পরিকল্পিত-নাটক। এটি সাজানো-গোছানো একটি প্যাকেজ-প্রোগ্রাম। এর মাধ্যমে তারা জাতির সামনে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে সমূলে ধ্বংস করতে চেয়েছে। এটি রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল। দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে মাছরাঙ্গাটিভির এই গাঁজাখুরি ও শয়তানী প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রকে অবিলম্বে কঠোর ও কার্যকর পদক্ষেপগ্রহণ করা আশু প্রয়োজন বলে মনে করছি।

সাইয়িদ রফিকুল হক
মিরপুর, ঢাকা, বাংলাদেশ।
০১/০৬/২০১৬

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৭ thoughts on “বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে ‘মাছরাঙ্গাটিভি’র পরিকল্পিত-প্যাকেজ-নাটক!

    1. পাকিস্তানের জারজসন্তানরা
      পাকিস্তানের জারজসন্তানরা সবসময় মুক্তিযোদ্ধাদের ‘ভারতের দালাল’ বলে থাকে। এই জারজরা এদেশে নানারকমের ফিতনা-ফাসাদের সৃষ্টি করছে। আশা করছি: পাকিস্তানের দালালরা এদেশ থেকে নির্মূল হয়ে যাবে, ইনশা আল্লাহ। একাত্তরে পাকিস্তানের জারজসন্তানরা যে-ভাবে পরাজিত হয়েছে এখনও সেই একইভাবে পরাজিত হবে। জারজরাষ্ট্র পাকিস্তান ও তাদের দোসররা নিপাত যাক।

  1. অাচ্ছা টিভি চ্যানেল না হয়
    অাচ্ছা টিভি চ্যানেল না হয় সাজানো নাটক উপস্থাপন করেছে জনগনের সামনে, কিন্তু অাসলেই অাপনি ১ টু খোজ নিয়ে দেখেন তো যেসকল ছাত্র ছাত্রী ৫ পেয়েছে তাদের মেধার দৈরাত্ব কত দুর। হ্যা সবাই ১ রকম অামি তা বলবো না বাট অধিকাংশ -ই এরকম।
    হ্যা অার ১ টা কথা, কথায় কথায় পাকিস্থানি, দালাল দেশ বিরোধি এগুলা বলা বন্ধ করে দিন। অাজকে মাছরাঙা যা করেছে তা চোখে অাঙ্গুল দিয়ে দেখানোর মতই কাজ করেছে। এ ধরনের কাজ করার জন্যও মেধার দরকার বাট দালাল, পাকিস্থানি, এগুলা মূর্খরাও বলতে পারে……….

    1. মাছরাঙ্গাটিভি ভণ্ডদের
      মাছরাঙ্গাটিভি ভণ্ডদের বিলাসীপ্রচারের হাতিয়ার। এটি দেশের বিরুদ্ধে। আর দেশের অনেক এসএসসি-পাস ছেলে-মেয়ে মাছরাঙ্গাটিভির এমডির চেয়ে বেশি জ্ঞান রাখে। আর পাকিস্তানী দালালদের চেনার মতো বুদ্ধি ও সততা সকলের থাকে না। পাকিস্তানীদালালরাই এদেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা।

  2. অাচ্ছা টিভি চ্যানেল না হয়
    অাচ্ছা টিভি চ্যানেল না হয় সাজানো নাটক উপস্থাপন করেছে জনগনের সামনে, কিন্তু অাসলেই অাপনি ১ টু খোজ নিয়ে দেখেন তো যেসকল ছাত্র ছাত্রী ৫ পেয়েছে তাদের মেধার দৈরাত্ব কত দুর। হ্যা সবাই ১ রকম অামি তা বলবো না বাট অধিকাংশ -ই এরকম।
    হ্যা অার ১ টা কথা, কথায় কথায় পাকিস্থানি, দালাল দেশ বিরোধি এগুলা বলা বন্ধ করে দিন। অাজকে মাছরাঙা যা করেছে তা চোখে অাঙ্গুল দিয়ে দেখানোর মতই কাজ করেছে। এ ধরনের কাজ করার জন্যও মেধার দরকার বাট দালাল, পাকিস্থানি, এগুলা মূর্খরাও বলতে পারে……….

  3. ওরা প্যাকেজ নাটক দেখাতে পারে।
    ওরা প্যাকেজ নাটক দেখাতে পারে। কিন্তু দেশে এমন ছাত্র খুঁজে পাওয়া অসম্ভব নয়যে জিপিএ ফাইভ পেয়েছে কিন্তু স্বাধীনতা দিবস কবে এটা জানে না।
    এটা শুধু শিক্ষা ব্যাবস্থার কারণে হয়নি, হয়েছে পারিবারিক শিক্ষার অভাবেও

    1. একটা বিতর্কিত চ্যানেল
      একটা বিতর্কিত চ্যানেল মাছরাঙ্গাটিভির রিপোর্টকে সত্য বলে ধরে নিলে সবকিছু মিথ্যা হয়ে যাবে। ব্যর্থতা সবখানেই থাকে। তাই বলে মাছরাঙ্গাটিভির নিউজের মতো নয়।
      আপনাকে ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

14 − 8 =