আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা: জাতীয় উন্নয়নের প্রধান অন্তরায়

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের সুশিক্ষিত ভালো মানুষ উপহার দেয়না। যা দেয় তাহলো জিপিএ ৫ নামক একটা উদ্ভট কিছু। আমার মতে শিক্ষা অর্জনের জন্য কোন ফলাফল পাশ ফেল থাকাই উচিত না। একটা একটা শিক্ষার স্তর থাকবে। শিক্ষার্থী সেই স্তর সম্পন্ন করলে প্রতিষ্ঠান তাকে সনদ দিবে যে, সে অত্র প্রতিষ্ঠানে এতোদিন ব্যবহারিক এবং তত্বীয় জ্ঞান অর্জন করেছে। আর শিক্ষার্থী তার ইচ্ছেমতো কোর্স বেছে নিয়ে জ্ঞান অর্জন করবে। এমন কিছুই করা উচিত যেখানে ভয় ঢুকিয়ে, প্রেশার কুকারে ফেলে মানুষগুলোকে পরের স্বপ্ন বাস্তবায়নে জীবনটাকে কাটিয়ে দিতে হবে না। ফলাফল বা প্রতিষ্ঠান কখনোই মুখ্য না, হতে পারেনা।

বেলাশেষে আমি কতটা ভালো মানুষ হলাম,
কতটা সমাজের হলাম,
কতটা নিকটজনদের হলাম,
কতটা দেশের হলাম,
আর কতটা সততা, ন্যায়পরায়ন, পরমতসহিষ্ণু এবং বর্নবাদী ভাবনা থেকে নিজেকে দুরে রাখলাম সেইটাই প্রশ্ন? আমি সত্যিকার মানুষ হতে পারলাম কিনা সেইটাই প্রশ্ন হওয়া উচিত। এইদেশের শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে আমরা নতুন কিছু আবিষ্কার করিনা, আমরা নতুন কিছু ভাবিনা, আমরা নিজেকে নিয়েই সন্তুষ্ট থাকার চেষ্টা করি।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের সাত সকালে স্কুলের গাড়িতে তুলে দিতে যাওয়া এক মাকে কুপিয়ে আর গুলি করে হত্যা করতে শেখায়। চোখের সামনে এমন কান্ড হতে দেখেও কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে যেতে পারে না। সৎসাহস, সদিচ্ছা এবং সৎচিন্তা শব্দগুলোই হারিয়ে গেছে।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের একটা মোবাইল ফোনের জন্য কিংবা একটা আইপ্যাডের জন্য বন্ধুকে মেরে নালায় ফেলে দিতে শেখায়।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের পরের নামে কুৎসা করতে শেখায়।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের অনৈতিক কাজ করতে শেখায়, আমাদের উগ্র সাম্প্রদায়িক করে ফেলে।

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আমাদের যৌথ পরিবারকে ছিড়ে ফেলে ক্ষুদ্র পরিবারে পরিণত করতে শেখায়।

আমাদের বহুধা বিভক্ত শিক্ষার জাতাকলে মাঝপথে শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের প্রান ওষ্ঠাগত হয়।

গুনগত মানহীন শিক্ষা ব্যবস্থা আর অর্থহীন পাঠ্য আমাদের এর চেয়ে ভালো আর কি দিবে?

অতএব যা হচ্ছে হোক, এইসব ভাবার কাজ আমাদের না। ইস্যু ভিত্তিক সমাজে শুধু ইস্যুগুলোর বাম্পার ফলন হয়। মানবিক মূল্যবোধ সেখানে নির্বাক কেঁদে মরে…

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

14 + = 16