একলক্ষ মুফতি ও উলামায়ে কেরামের স্বাক্ষরিত জঙ্গিবাদ বিরোধী ফতওয়া

মসজিদ, মন্দির, গির্জা তথা সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে হামলা এবং ইসলামের নামে গুপ্তহত্যার বিরুদ্ধে দেশের ১ লাখ ১ হাজার ৮৫০ জন শীর্ষ আলেম স্বাক্ষরিত ফতওয়া প্রকাশিত হয়েছে আজ শনিবার, ১৮ জুন। স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে ৯২ হাজার ৮৫০ জন মুফতি ও আলেম এবং ৯ হাজার ৩২০ জন আলেমা (নারী ধর্ম বিশারদ )।

দেশের ইসলামি চিন্তাবিদ, মুফতি, আলেম-ওলামা এতে স্বাক্ষর করেছেন। ৩০ খণ্ডের এই ফতওয়ার মূল বিষয় থাকবে ৩২ পৃষ্ঠাজুড়ে। এটি মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে এক কোটি কপি ছাপানো হবে। এতে করে ১৬ কোটি মানুষের মাঝে জঙ্গিবাদবিরোধী বার্তা পৌঁছে যাবে।

মাওলানা মাসঊদ বলেন, ‘সর্বসম্মতভাবে গৃহীত ওই ফতওয়ায় বলা হয়েছে, অমুসলিম, সংখ্যালঘু ও ধর্মনিরপেক্ষ ব্যক্তিদের হত্যা করা ইসলামে নিষিদ্ধ। আমরা এসব হত্যাকে অবৈধ ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ হিসেবে আখ্যায়িত করেছি।’

তিনি আরও জানান, গত ২৩ জানুয়ারি একটি ওলামা সম্মেলনের আহ্বান জানানো হয়েছিল। সেই দিন থেকে এ বিষয়ে কাজ শুরু করা হয়। এই ফতোয়া দেয়ার বিষয়ে স্বাক্ষর গ্রহণ শুরু হয়, ফেব্রুয়ারি মাসে স্বাক্ষর গ্রহণ সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও শেষ হয় মে মাসে। এদিকে গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা থেকে টানা সাত দিনব্যাপী সারাদেশে জঙ্গিবিরোধী অভিযান শুরু চালিয়েছে পুলিশ। এমন সময়ে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ফতওয়া ঘোষণা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মাওলানা মাসঊদ বলেন, এই ফতোয়ায় পরিষ্কার করে বলা হয়েছে, ‘এসব হত্যাকাণ্ড জিহাদের অংশ নয়, এটা সন্ত্রাস।’ তিনি আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মহলে দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য আমরা লক্ষাধিক ওলামাকে সঙ্গে নিয়ে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে এই ফতওয়া তৈরি করেছি। বর্তমানে ক্ষুদ্র একটা গোষ্ঠী সারা পৃথিবীতে ইসলামের নামে আতঙ্ক ও সন্ত্রাস সৃষ্টি করে চলছে। এরা মুসলিম অমুসলিম নির্বিশেষে নির্বিচারে নিরপরাধ ও অসহায় নারী পুরুষ, বৃদ্ধ শিশু হত্যা করে যাচ্ছে। এমনকি মসজিদ ও ধর্মীয় উপাসনালয়ে নামাজরত বা প্রার্থনারত মানুষকেও হত্যা করছে। আত্মঘাতি বোমা মেরে নিজেকে উড়িয়ে দিয়ে তা শহিদি মৃত্যু বলে ঘোষণা দিচ্ছে।’

এ ব্যাপারে মাওলানা মাসঊদ জানান, একমাত্র জামায়াতে ইসলামী ছাড়া হেফাজতের মহাসচিব বাবু নগরী, ইসলামী শাসনতন্ত্র অান্দোলেনর নায়েব আমির মুফতি ফয়জুল করিম, খেলাফত আন্দোলন, হাটহাজারী মাদ্রাসা, পটিয়া মাদ্রাসা, চরমোনাই মাদ্রাসাসহ দেশের শীর্ষ আলেমরা এই ফতওয়ায় একমত হয়ে স্বাক্ষর করেছেন।

খোরশেদ আলম, লেখক ও গবেষক

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “একলক্ষ মুফতি ও উলামায়ে কেরামের স্বাক্ষরিত জঙ্গিবাদ বিরোধী ফতওয়া

    1. সহমত। বিশ্বের ইতিহাসে এটি
      সহমত। বিশ্বের ইতিহাসে এটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। ২০১৬ সালের নভেম্বরে সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি বাংলাদেশে আসার সম্ভবনা আছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 + 5 =