একটি কাল্পনিক ভবন ধ্বস

ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে কপি করা

মতিঝিলে একটি ১০ তলা ভবন ধ্বসে পড়েছে।
এই ভবনটি ধ্বসে পরার সাথে সাথে সমগ্র দেশ আনন্দে জেগে উঠল;
টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া মিষ্টি বিতরন চলল ।।
আনন্দ মিছিল চলছে ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইলজুড়ে ।।

ভবনটির উপরের তলায় ছিল-
বিভিন্ন দলের মন্ত্রী-এমপি সহ বিশাল বিশাল রাজনীতিবিদগণ।।
যারা কেবল ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করছে।
যাদের দেশ জনগনের জন্য ন্যূনতম আগ্রহ-দায়বদ্ধতা নেই।

ভবনটির নবম তলায় ছিল-
ভুঁড়ি-মেদবহুল আমলারা। তারা জনগনের বাজেট হ্রাস, স্বাস্থ্য-শিক্ষা সংকোচন করছিল।
জনগনের ট্যাক্সের টাকা নয়ছয় করার পরিকল্পনা আঁকছিল।

ভবনটির অষ্টম তলায় ছিল-
বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিগুলোর আঞ্চলিক বৈঠক।
দেশের অর্থনীতির ভাগ-বাটোয়ারা, প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাট এসব যাদের কাজ।
দেশীয় দালালরাও ছিল, যারা সামান্য পারচেন্টের জন্য দেশ বিক্রি করে দেয়।

ভবনটির সপ্তম তলায় –
দুর্নীতিবাজ-ঋণখেলাপী কোটিপতিদের ব্যয়বহুল বুফে।

ভবনটির ষষ্ট তলায় ছিল-
লুটপাটকারি ব্যবসায়ীরা।
যারা জনগনের পকেট কেটে রাতারাতি আঙ্গুলফুলে বিল্ডিং।
খাদ্যে ভেজাল, নিন্মমান; সিন্ডিকেট বানিয়ে রাতারাতি দাম বাড়ানো যাদের মুলকাজ।

ভবনটির পঞ্চম তলায় ছিল-
একাত্তরের পরাজিত শক্তি’র বার্ষিক সন্মেলন।
সকল যুদ্ধাপরাদীও উপস্থিত ছিল।
যারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ভাঙ্গার নীলনকশা করছিল।
দেশকে পিছনের দিকে টেনে নেয়ার ছক বানাচ্ছিল।
….
….
….
….

ভবনটির একদম নিচতলায় ছিল-
বিজিএমইএ আর গার্মেন্টস মালিকদের রুদ্ধশ্বাস আলোচনাসভা।
তাদের আলোচনার বিষয়বস্তু হল
‘শ্রমিকদের শোষণ- শ্রমঘণ্টা বাড়ানো- মজুরী হ্রাস- বোনাস বাতিল ।।

ভবনের অন্তঃধ্বসে গোটাদেশ নতুনভাবে জেগে উঠল।
দেশের উপর থেকে অন্ধকার আকাশ সরে গিয়ে, ঝলমলে সূর্য উঠল।।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “একটি কাল্পনিক ভবন ধ্বস

  1. এরা চাপা প​ড়লে মানুষ সেফটি
    এরা চাপা প​ড়লে মানুষ সেফটি ট্যাঙ্ক এ জমানো বস্তুগুলা সাহায্য হিসেবে পাঠাবে। কি করমু কন, একেকজনের ভুড়ি এত ব​ড় যে মাটি শেষ হ​য়ে যাবে চাপা দিতে।

  2. লেখা টা কি আপনার? যদি আপনার
    লেখা টা কি আপনার? যদি আপনার হয়ে থাকে , তাহলে লেখার দরকার নাই যে

    ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে কপি করা

    যাই হোক লেখা টা ভাল হয়েছে 🙂

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

60 − = 54