শান্তি অব্যাহত আছে!


রমজানের প্রথম দিনে শান্তির দূতেরা ঝিনায়দহে পুরহিত আনন্দ গোপালকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার মধ্যদিয়ে রমজানে শান্তির বার্তা দিয়েছিলেন।
তার আগে নিরীহ খ্রিষ্টান মুদি দোকানি সুনিল গোমেজকে গলা কেটে একই কায়দাই হত্যা করেছিলেন ইসলামের দূতেরা।চট্টগ্রামে পুলিশের এস,পি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যাকান্ডের পর দেশব্যাপী পুলিশ ও র‍্যাবের জঙ্গি অভিযান শুরু হয় , তাতে আসলে কতজন জঙ্গি ধরা পড়েছে তার সঠিক কোন তথ্য নেই কিন্ত হয়রানির শিকার হয়েছে সাধারন জনগন এই কথা নির্ধিদায় বলা যায়।এই পুলিশী একশ্যানের মধ্যেও হত্যা কান্ড বন্ধ হয়নি সব হত্যা কান্ডের দায় স্বীকার করেছে আইএস উপমহাদেশ শাখা ও আনসার উল্ল্যাহ বাংলা।আতংকের বিষয় এই অভিযানের মধ্যে লিফলেট বিলি ও দলিয় কার্যক্রম করেছে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হিজবুত তাহরীর।তাহলে কি আমরা বলতে পারিনা এই জংগীবিরোধি অভিযানের সফলতা কতটুকু ,র‍্যাব পুলিশের ক্রসফায়ারের ৫/৬ জন কথিত জংগী মারাগেলও আসলে তারা প্রকৃত ইসলামী জংগী ছিল কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে।মাদারীপুরে কলেজ শিক্ষক রিপন চক্রবর্তী কুপিয়ে হত্যাচেস্টার আসামি ফাইজুল্লাহ ফাহিম ক্রসফায়ের নিহত হওয়ার পর অনেকে এই জংগির জন্য সহানুভুতি প্রকাশ করতে দেখিছি; কিন্ত জংগী গুষ্টি দ্বারা ব্লগার অনলাইন এক্টিভিস্ট লেখক প্রকাশক ও নিরহ পুরহিত ফাদার হত্যার পর এসব মুখশধারীদের সহানুভুতি প্রকাশ করতে দেখিনা তারা হয়ত তাদের গর্দান রক্ষা করার জন্য এই টম এন্ড জেরি খেলছেন।

যাইহোক,বাংলাদেশে মুক্তমনা ও সংখ্যালঘু হত্যাকান্ড একটি চলমান প্রক্রিয়া।আসলে কি ঘটতে যাচ্ছে বাংলাদেশে ?এটা কি ভয়ংকর জংগী গুষ্টির উত্থান ?।আজকের ঘটনা তারই ইঙ্গিত বহন করে আসলে আমরা রাস্ট্রধর্মের কুফল দেখতে পাচ্ছি। ঝিনাইদহে মঠের সেবায়েত শ্যামানন্দ দাস (৫৫) এবং বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে মংশৈলু মারমা নামের এক আওয়ামী লীগের নেতাকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)। তবে মংশৈলু মারমাকে ‘বুড্ডিস্ট নেতা’ বলে দাবি করেছে আইএস। আইএসের কথিত বার্তা সংস্থা আমাক নিউজের বরাত দিয়ে ইন্টারনেটে জঙ্গিগোষ্ঠীর তৎপরতা নজরদারিতে যুক্ত যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাইট ইন্টেলিজেন্ট গ্রুপ আজ শুক্রবার এই খবর দিয়েছে।সর্বশেষ গুলশান-২ এর ডিপ্লোমেটিক জোনে যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটল তা বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম। ঢাকার অভিজাত এই এলাকা একটি রেস্তোরাঁয় ‘আল্লাহু আকবর’ বলে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে বলে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন।
সর্বশেষ খবর জংগিদের গ্রেনেড হামলায় গুলশান থানার ওসি সালাউদ্দীন নিহত; অতএব শান্তি অব্যহত আছে!!

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “শান্তি অব্যাহত আছে!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 3