আনসার আল ইসলাম বিডি’র ঈদ উপহার।

একটু পরে বাংলাদেশে নতুন সূর্য উঠবে। যেটা কাল মরা বুড়িগঙ্গার ওপারে ডুবেছিল, সেটা আর উঠছে না। আজকের সকালে যখন নতুন সূর্যটা উঠি উঠি করছে ততক্ষণে সারা পৃথিবীর কাছে বাংলাদেশ ভিন্ন নাম। বাংলাদেশ আজ সকাল থেকে তার নাম পাকিস্তান, আফগানিস্তান, সিরিয়া, ইরাকের সারিতে পোক্ত করে নিল।

বঙ্গবন্ধুকে মিলিটারি ক্যু, তাঁর খুনের ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে বারবার সতর্ক করা হয়েছিল। তিনি পাত্তা দেননি। আমাদের উপহার দিয়েছিলেন ১৫ই অগাস্ট ১৯৭৫।

শেখ হাসিনার গভমেন্টকে ২০১১ সালের থেকে এই উঠতি আলকায়েদা রাজাকারদের সম্পর্কে স্পষ্টভাবে সতর্ক করা হয়েছে । হাসিনা সরকারের উপদেষ্টা থেকে শুরু করে পুলিশ, গোয়েন্দা, পত্রিকার সম্পাদক, টেলিভিশনের মালিক, কলামিস্ট, বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে যে, ওরা এসে গেছে, ওরা প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। কেউ পাত্তা দেয় নি। এখনো দেয় না।

আমাদের বাগান, পুকুর, নদী যখন অস্ত্রে, গুলিতে ভরে উঠছে তখন এরা সবাই বিএনপি জামাতকে ‘গালিগালাজ’ করে যার যার ‘পদ’ বাঁচিয়েছে। থামাতে ন্যুনতম কোন চেষ্টা করেনি। বঙ্গবন্ধুর মেয়ে হাসিনাও এদের সাথে ঢলাঢলি করে থামাতে চান। কিন্তু এরা তো আর ভুদাই না। একের পর এক উপহার তো ২০১৩ থেকেই দিয়ে যাচ্ছে। ২০০৪ সাল থেকে ১০ বারেরও বেশি হাসিনাকে উপহার দিতে চেয়েছিল। আজ ভোর অবধি পারে নি।

এতদিন হাসিনা শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে চেয়ে আসছিলেন। কিন্তু এত্ত মাছ যে শাকের অভাব হয়ে গেল আজ রাতে। এখন যদি আমেরিকা, ইন্ডিয়া হাসিনাকে তোয়াক্কা না করে তাঁদের ড্রোনের ডানায় ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ’, বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠা বা আভ্যন্তরিন হুমকির পতাকা লাগিয়ে মাঠে ময়দানে, স্কুল কলেজে হামলা চালায়, হাসিনা থামাতে পারবেন? ইরাক, সিরিয়া পারেনি। পাকিস্তান আফগানিস্তান পারেনি।

আপনি কি মুসলমান? আপনি কি এই হামলার জন্যে লজ্জিত? কদিন যেতেই ড্রোন এটাক হবে বরিশালের কোন মসজিদে, ঢাকার কোন সাধারণ বাড়িতে, বাচ্চাদের স্কুল যাওয়ার ভ্যানে। দেখতে প্রস্তুত তো আপনি?

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 72 = 73