♦ ঈশ্বর বা আল্লাহ কিভাবে একই সাথে “দয়ালু” এবং “ন্যায় বিচারক” হন..?? ♦

অনেকেই বলে তিনি মহান, তিনি দয়ালু, তিনি সত্যের ধারক, ন্যায় বিচারক।
দেখা যাক তাহলে……
ধরুন, একজন বিচারক যখন বিচারের দ্বায়িত্ব পালন করেন তখন তিনি একই সাথে কখনো দুইয়ের পক্ষ নিতে পারেন না, হয় তাকে কারো প্রতি দয়ালু হতে হয়, না হয় তাকে ন্যায় বিচার করতে হয়।

♦ তিনি যদি কারো প্রতি দয়া দেখিয়ে তাকে তার প্রাপ্ত শাস্তি থেকে বাঁচিয়ে দিয়ে নির্দোষ প্রমান করেন, তাহলে সেখানে তার অপরপক্ষ ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হল।
♦ আবার যদি তিনি ন্যায় বিচারক হন, তাহলে তার অপরপক্ষের কাছে তিনি কঠোরতা প্রদর্শন করলেন, তাকে তার শাস্তি দিলেন।

তাহলে দেখা গেল যে, ঈশ্বর বা আল্লাহ কখনোই দয়ালু এবং ন্যায় বিচারক হতে পারে না, হয় তিনি আজীবন ন্যায় বিচারক, না হয় তিনি আজীবন দয়ালু।
এরকম তাদের নিয়ে বহু – বহু স্ববিরোধী কথা, তাদের মন গড়া বিভিন্ন পুস্তকে লিপিবদ্ধ আছে, যেগুলো আজ ধর্মান্ধদের চলার পথের পাথেয়, আঁকড়ে ধরে বেঁচে আছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

87 + = 92