সাংবাদিক ভাইবোনেরা কি শিক্ষা নেন?

গুলশানের রেস্টুরেন্টে হামলা লাইভে দেখছেন তো সবাই, তাই না? . .RAB এর মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ কতই বারণ করেছিল যে,ঘটনাটি লাইভ না দেখানোর জন্য। কারণ জানি যে আমাদের সাংবাদিক ভাইবোনেরাও ঠিক কোন লেভেলের। তাঁরা “অনেকেই এখন টিভি দেখছে” কথাটা বলার মূল উদ্দেশ্য বুঝবে না। এবার বলি… যারা রেস্টুরেন্টে ঢুকে গোলাগুলি করার মত দুঃসাধ্য কাজ করতে পেরেছে তাঁদের বুকের কলিজার সাইজটা আপনার ধারণা করে নেয়া উচিৎ। “শ্যুট আউট এট লোখান্ডওয়ালা” দেখেছেন কেউ? . . আচ্ছা লোখান্ডওয়ালা পর্যন্ত যেতে হবে না। চলেন মুম্বাই যাই। ২০০৮ এ তাজ মহল হোটেলে কি হয়েছিল মনে পড়ছে? মানুষগুলো কিভাবে কিভাবে সবকিছু প্ল্যান মোতাবেক করেছিল মনে করতে পারছেন? আজকে যখন আমেদের গুলশানে ওইরকম ছোটখাটো ঘটনা ঘটে যাচ্ছে তখন আমাদের সাংবাদিক ভাইবোনেরা খুব যত্ন করে সবকিছু লাইভে বর্ণনা করে দিচ্ছেন। ঘটনাস্থলে কয় গাড়ি পুলিশ আসলো, কার হাতের বন্দুক কত বড়, কোনদিক থেকে রেস্টুরেন্ট ঘিরে ধরা হচ্ছে, কি কি পরিকল্পনা এদিকে করা হচ্ছে প্রত্যেকটা ইনফরমেশন একদম খুঁটিনাটি বর্ণনা সহ টিভি তে প্রচার করা হচ্ছে। . . দেশবাসী নাকি এগুলো খুব জানতে চায়! ওরে মোর জ্বালা… মরে যাইরে, মরে যাই!! upset emoticon . . এদিকে গাধা মিডিয়া সব খুঁটিনাটি বর্ণনা করে দেখাচ্ছে। আর ওদিকে সন্ত্রাসী, টেরোরিস্ট, জঙ্গী ভায়েরা রেস্টুরেন্টের টিভি অন করে সব জেনে যাচ্ছে ভেতরে বসেই!! বাহ ! কি নির্বুদ্ধিতার সুপরিচয় বাঙালীর! যাগ্গে, একটু সুবুদ্ধির উদয় করু

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

71 − = 61