নির্লজ্জ মিথ্যুক শাহরিয়ার কবির। ১ম পর্ব

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির। তার অজ্ঞতা,অপব্যাখ্যা সম্পর্কে ইতিপূর্বে অনেক তথ্য শুনেছি। বিশ্বাসযোগ্য তেমন কিছু পাইনি। মূলত খুঁজে দেখিনি। প্রথমবারের মতো, খুঁজতে গিয়ে দেখি, এ তো মূর্খ কৃষককে ভার্সিটির শিক্ষক বানানোর মতো ঘটনা!
জনাব শাহরিয়ার কবির সাহেব, আজকাল মানুষ আর নাম খায় না। সবাই প্রমাণ চায়। প্রমাণ দিতে পারলে আপনি সত্যবাদী, নইলে …………।
আমার ভাবতে লজ্জা লাগছে যে, আপনার মতো একজন মিথ্যুক আজ ঘাদানিকের সভাপতি। যে পদে একসময় ছিলেন শহীদ জননী জাহানারা ইমাম। ছিঃ জনাব শাহরিয়ার ছিঃ!

হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠা সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়ে শাহরিয়ার কবির নিজের বিকৃত চেহারাকে আবারও উন্মোচিত করলেন। তিনি ইস্টিশন ব্লগে লিখেছেন “হেফাজতে ইসলাম জন্মগত-ভাবে একটি দু’নম্বরি সংগঠন। হাটহাজারীর দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম-এর মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্‌ আহমদ শফী সাহেব এবং তার সহযোগীরা ২০১০-এর ১৯ মার্চ ‘হেফাজতে ইসলাম’ গঠন করেছেন। এর প্রায় ৬০ বছর আগে সিলেটের মৌলভিবাজারের বরুণার পীর শেখ লুৎফুর রহমান সাহেব প্রতিষ্ঠা করেছিলেন আদি ও আসল ‘হেফাজতে ইসলাম’, যার শাখা পাকিস্তানেও আছে। বর্তমানে মূল ‘হেফাজতে ইসলাম’-এর প্রধান হচ্ছেন বরুণার গদ্দিনশিন পীর খলিলুর রহমান সাহেব, যাদের সঙ্গে হাটহাজারী, জামায়াত বা জঙ্গিবাদের কোনও সম্পর্ক নেই।”

শাহরিয়ার কবিরের হাস্যকর ইতিহাস বর্ণনার বিশ্লেষণ দেখে নেই >
১) ৬০ বছর পূর্বে সিলেটের মৌলভিবাজারের বরুণার পীর শেখ লুৎফুর রহমান সাহেব যে সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তার নাম “হেফাজতে ইসলাম” নয় “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম”। দেখুন > http://www.amardeshonline.com/pages/details/2013/02/15/187994#.UXwqPKK8FWB

২) “হেফাজতে ইসলাম” আর আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের লক্ষ্য উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ ভিন্ন। “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম” একটি সামাজিক সংগঠন। দেখুন > http://www.bdtoday.net/newsdetail/detail/31/18753
এছাড়া আঞ্জুমান সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে দেখতে পারেন “শায়খ লুৎফুর রহমান (রহঃ)” এর জীবনী-গ্রন্থ দিলরোবা রহমান হামিদী’র রচিত “হায়াতে বর্ণভী (রহঃ)”।

৩) শায়খ লুৎফুর রহমান বর্ণভী (রহঃ) কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের শাখা পাকিস্তানে নেই। মূলত আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম সিলেট কেন্দ্রিক একটি সামাজিক সংগঠন। ব্রিটেনে “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম ইউকে” নামে একটি শাখা ছাড়া হেফাজতের অন্য কোনো শাখা নেই।
দেখুন > http://www.jurinews.com.bd/?p=5819

৪) “হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সাথে বরুনার পীর মাওলানা খলিলুর রহমানের কোনো সম্পর্ক নেই” এটি একটি জঘন্যতম মিথ্যাচার।
সিলেটে হেফাজতে ইসলামের সমাবেশে বরুনার পীর মাওলানা খলিলুর রহমান ন্সাহেব এবং তাঁর ছোটভাই মাওলানা রশিদুর রহমান সাহেবের উপস্থিতির কথা দেশের সবগুলো দৈনিকে এসেছে। > দেখুন http://www.suchinta24.com/%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A7%87%E0%A6%AB%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%A4%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A7%87/
http://www.amardeshonline.com/pages/printnews/2013/04/14/196396

আসুন মিথ্যুকদের মুখে থুথু দিয়ে সঠিক ইতিহাস জেনে নেই।
“হজরত বর্ণভীর রেখে যাওয়া সবচেয়ে বড় অবদান হচ্ছে বরুণা মাদরাসা ও আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম। ১৯৫১ সালে বরুণা মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন এবং জনসাধারণের মাঝে দ্বীনের মৌলিক শিক্ষা বিস্তারের জন্য আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ১৯৪৪ সালে ১৩৪৯ বাংলায় প্রতিষ্ঠা করেন।” <এই লেখাটি শায়খ বর্ণভী’র জীবনী থেকে কোট করেছি। ভালোভাবে দেখুন, “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম” মুসলিম জনসাধারণের মাঝে দ্বীনের মৌলিক শিক্ষা বিস্তারের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং এখন পর্যন্ত আঞ্জুমান স্বীয় উদ্দেশ্য সফলভাবে সম্পন্ন করেছে এবং করে চলছে। “আঞ্জুমান” এবং “হেফাজতে ইসলামের” লক্ষ্য উদ্দেশ্য’র ভিন্নতা সুস্পষ্ট। আল্লামা আহমদ শফী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হেফাজতে ইসলামের লক্ষ্য উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে এখানে ভিজিট করুন। > http://www.istishon.com/node/1237

আল্লামা লুৎফুর রহমান (রহঃ) সিলেট মৌলভীবাজারের বরুনা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৩৬ সালে ১৩৪১ বাংলায় পৃথিবী বিখ্যাত ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেওবন্দ গমন করেন। সেখানে ৬ বছর লেখাপড়া করেন। সে সময়ে দারুল উলুম দেওবন্দের শায়খুল হাদিস ছিলেন হজরত মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী (রহ.)।১৯৪১ সালে ১৩৪৬ বাংলার মাঘ মাসের ১০ তারিখে স্বীয় শায়খ মাদানী থেকে বাইয়াতের ইজাযতপ্রাপ্ত হন তিনি। > http://www.amardeshonline.com/pages/details/2013/02/15/187994#.UXwqPKK8FWB
এখানে দেখুন আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সংক্ষিপ্ত জীবনী। > http://www.dainikjalalabad.com/2013/04/06/%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%8F%E0%A6%87-%E0%A6%86%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%BE-%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%B9-%E0%A6%86%E0%A6%B9%E0%A6%AE%E0%A6%A6-%E0%A6%B6%E0%A6%AB%E0%A7%80/
আল্লামা আহমদ শফী এবং আল্লামা লুৎফুর রহমান (রহঃ) একই শিক্ষকের ছাত্র এবং ইজাযতপ্রাপ্ত খলীফা। এরপর একমাত্র নির্বোধ ব্যক্তিই বলতে পারবে, “হেফাজতে ইসলাম” এবং “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের” মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই।

আল্লামা আহমদ শফীর আহবানে বিগত ২২ ফেব্রুয়ারি সারাদেশের মসজিদসমুহ থেকে সাধারণ মুসল্লিদের মিছিল বের হয়েছিলো। সেদিন ঢাকার কাঁটাবন মসজিদ থেকে পুলিশ লন্ডন প্রবাসী মাওলানা নুরে আলম হামিদীকে গ্রেফতার করে। > http://www.sylhetreport.com/?p=12032
মাওলানা নুরে আলম হামিদী হচ্ছেন বরুনার বর্তমান পীর খলিলুর রহমান সাহেবের সন্তান। মাওলানা নুরে আলম হামিদী “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম ইউকে”র সভাপতিও। > http://www.kazirbazar.com/firstpage/11994-2013-03-15-18-29-18
দেখুন তো ০৬ এপ্রিলের কর্মসূচি সম্পর্কে নুরে আলম হামিদী কি বলছেন। > ৬ এপ্রিল লংমার্চে নাস্তিকদের দাঁতভাঙা জবাব দিন : শেখ নূরে আলম হামিদী
http://www.amardeshonline.com/pages/details/2013/03/29/194143#.UXvGcqK8FWA
এরপরও কি বলবেন “হেফাজতে ইসলাম জন্মগত-ভাবে একটি দু’নম্বরি সংগঠন!”

“আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলামের” সুনাম ও সাফল্য “হেফাজতে ইসলাম” আত্মসাৎ করছে বলে
শাহরিয়ার কবির যে অভিযোগ করেছেন, সেটা দেখে বলতে ইচ্ছে করছে, “মায়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশি” কেন আমরা জানি।
শাহরিয়ার কবির হাটহাজারীওয়ালাদের বিরুদ্ধে দেওয়ানি ও ফৌজদারি দুই ধরনের মামলা’র প্ররোচনা দিলেন। এখন যদি “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম” তার বিরুদ্ধে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে মামলা করে, তবে অবাক হবো না। মিথ্যুকরা পদে পদে অপদস্থ হবে এটা তো অতি স্বাভাবিক বিষয়।

দেশপ্রেম থেকেই যুদ্ধাপরাধের বিচার আমি আপনি সবাই চাই। এই দেশপ্রেমীদের তালিকায় যদি শাহরিয়ার কবিরের মতো অজ্ঞ ব্যক্তি কনট্রাক্টরের ভুমিকায় থাকেন, তবে চিৎকার করে বলতে ইচ্ছে করে, “কবে আমরা মানুষ হবো”!

*এই লেখার আলোকে আগামি পর্বে থাকছে শাহরিয়ার কবির কিভাবে কুরআনের আয়াতের অপব্যাখ্যা করেন তার সুস্পষ্ট প্রমাণ। বি রেডি মিস্টার শাহরিয়ার কবির।
চলবে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১৬ thoughts on “নির্লজ্জ মিথ্যুক শাহরিয়ার কবির। ১ম পর্ব

  1. আমার দেশ পত্রিকার লিংক দিয়ে
    আমার দেশ পত্রিকার লিংক দিয়ে লাভ নেই। এইটা রাজাকার সমর্থক পত্রিকা এটা সবাই জানে। ভন্ডামী করার জন্য সোনার বাংলাদেশ টাইপ ব্লগে যান। এইখানে সুবিধা করতে পারবেন না। :):)

  2. ৬০ বছর পূর্বে সিলেটের
    ৬০ বছর পূর্বে সিলেটের মৌলভিবাজারের বরুণার পীর শেখ লুৎফুর রহমান সাহেব যে সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তার নাম “হেফাজতে ইসলাম” নয় “আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম” – হাহাহা

  3. চালুনি বলে সুই তোর পোঁদে কেন
    চালুনি বলে সুই তোর পোঁদে কেন ছ্যাদা ?এই গুলারে বাইরাইতে বাইরাইতে বুড়িগঙ্গায় ফালানো দরকার | আসেন সবাই আমার মতন পাগল হন | সারা বছর দান খয়রাত খাইয়া এখন সাকা পরিবার আর জামায়াতি আব্বা হুজুরদের তেল আর মাদক বেচা মধ্যপ্রাচ্চের টাকা দেইখা মাথা ঘুরায়া গেছে খয়রাতি গুলার |ওরা এখন জঙ্গি | জামায়্য়াতের হেফাজত করতে নামছে , মওদুদীর ইসলাম রক্ষায় | দুই পায়ের জয়েন বরাবর লাথি ঝরলে বিবেক জায়গা উঠব ছাগু গুলার | বিঃদ্রঃ : ছাগুদের বিবেক বিচিতে থাকে

  4. আিম কোনভােব বুিঝ না েহফাজেত
    আিম কোনভােব বুিঝ না েহফাজেত ইসলাম একিট ইসলািমক দল।তারা বাংলােদেশর িবিভনন িবষয় বােদ এমন িকছু িবষয় তুেল ধরল যােত রাজাকাের িবচার বনধ হয়।এরা সবসময় জামােতর িবরুেধ িছল িকণ্ডু টাকার গেনধ তাভুেল েগেছ।ধের িনলাম তােদর এই সংগঠেনর গঠন উেদদশ মহৎ িছল িকণ্ডু সমেয়র কালবদেল এবং টাকার োলেভ তারা তােদর উেদদশ েথেক িবচূত হেয় েগেছ তা সপ

  5. ” আমি যুক্তিবাদী” ???????
    ” আমি যুক্তিবাদী” ??????? !!!!!!!! :-B :-B :-B :-B :-B :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে:
    যুক্তিবাদী মানে কি বুঝেন???? হেফাজতকে সমর্থন করে নিজেরে যুক্তিবাদী ভাবেন???? !!!!
    যাক, বিনোদিত হলাম।

    1. (No subject)
      :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :হাহাপগে: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :টাইমশ্যাষ: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :ভাবতেছি: :ভাবতেছি: :অপেক্ষায়আছি: :অপেক্ষায়আছি: :কনফিউজড: :কনফিউজড: :কনফিউজড: :দেখুমনা: :দেখুমনা: :কেউরেকইসনা: :হাসি: :হাসি: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :নৃত্য: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথানষ্ট: :মাথানষ্ট: :ঘুমপাইতেছে: :ঘুমপাইতেছে:

  6. আমি যুক্তিবাদী, যে পত্রিকা
    আমি যুক্তিবাদী, যে পত্রিকা সাইদী কে চাঁদে তুলে মিথ্যাচার করে তার লিনক দিলেন সত্যতা যাচাই করার জন্য! আর হেফাজতে ইস্লাম হেফাজতে জামাতের নামান্তর তা আপ্নাকে আর কতবার বলতে হবে।

  7. একটা জিনিস লক্ষ করবেন।
    একটা জিনিস লক্ষ করবেন। মাদ্রাসার পোলাপাইন গুলা যে বাড়ীতে লজিং থাকে সেই বাড়ীর মেয়ের সাথে ভেজাল লাগায়।
    ঠিক সে ভাবেই বাংলাদেশে থেকে, খাইয়ে পরে বাংলাদেশের পুটু মারা তা ব্যস্ত তারা।

  8. হেফাজত ইসলাম একটা চুদির
    হেফাজত ইসলাম একটা চুদির ভাইদের দল। হেফাজত ভিক্ষুকদের দল। যারা সাধারণ মানুষের ভিক্ষা নিয়ে, দান-দক্ষিনা নিয়ে চলে। সওয়ার কামানোর আশায় মাওলানা সফিকে এই দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা দান-সদকা দিয়ে আসছে এতদিন ধরে। আমার পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন হাটহাজারীর এই মাদ্রাসায় বিপুল পরিমানের দান করেছেন কি চুদির ভাই সফির রাজনীতি ুদাবার জন্য? ১৩ দফার জন্য? যেসব মাদ্রাসার চুদির ভাই হুজুররা মানুষের পকেটের টাকায় চলে, আজ তাদের মুখে খই ফুটেছে। হুজুর মানে ভিক্ষুকের দল। এটা এতদিন আমরা বলিনি। ভিক্ষুক পালছিলাম এতদিন আমাদের ধর্মীয় কাজগুলোর সহযোগী হিসাবে, মুসলমানদের মসজিদ, মাদ্রাসা তদারকি করার জন্য। এই শুয়োরের বাচ্চাদের এখন ক্ষমতায় যাওয়ার শখ হয়েছে। আমি আমার পরিবারকে ইতিমধ্যে এটা বুঝাতে সক্ষম হয়েছি যে দান-খয়রাত করে কাল সাপ পোষার কোন দরকার নাই। আমার আত্মীয়দের মধ্যে বেশ কয়েকটি পরিবারে মাদ্রাসায় পড়ুয়াদের মাদ্রাসা শিক্ষা থেকে ইতি টানা হয়েছে এই মোল্লা নামের ভিক্ষাবৃত্তি থেকে রক্ষা করার জন্য। আমরা সাধারণ মুসলমানরা এতদিন হুজুরদেরকে সম্মান করতাম। তাদেরকে শ্রদ্ধার চোখে দেখতাম। তাদেরকে নিয়মিত দান-খয়রাত করতাম। এখন থেকে আর না। বেশী ফাল পাড়লে আমাদের দান-দক্ষিনায় করা মসজিদ-মাদ্রাসাগুলা বন্ধ করে দেব।

    আল্লামা শফি শুয়োরের বাচ্চার পক্ষে এতদিন যা বলেছিস কিছূ বলি নাই। সহ্য করে গেছি। আজকে যখন শাহরিয়ার কবিরকে আক্রমন করে কথা বলেছিস, তখন আমিও আক্রমন করে কথা বলব। বেশী ফাল পাড়িস না মনা। সফির কুকীর্তি প্রকাশ হবে। একটু অপেক্ষা কর।

    এই ধরনের বাল-ছাল হুজুরদের ভিক্ষাবৃত্তি নিয়ে পোস্ট ইস্টিশনে দেখতে চাই না। সফি-সাঈদীর মত শুয়োরের বাচ্চাদের নিয়ে যারা কথা বলে তাদেরকে লাত্থি মেরে ইস্টিশন থেকে বের করা হোক।

  9. হায়রে যুক্তিবাদী! নিজের আসল
    হায়রে যুক্তিবাদী! নিজের আসল নাম প্রকাশের মুরোদ নেই, লম্বা লম্বা কথা! শাহরিয়ার কবিরের দেশপ্রেম সম্পর্কে আপনার মত আত্মপরিচয় গোপনকারী কারও কাছ থেকে জ্ঞান নেওয়ার প্রয়োজন কারও নেই বলে আমার বিশ্বাস।হাট হাজারির আহমদ শফি’র সঙ্গে মুফতি ইজাহার সহ সুনির্দিষ্টভাবে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন হরকাতুল জেহাদের ছয় নেতা আছে। যে সংগঠন চলে গ্রেনেড বোমা মেরে নিরীহ মানুষ খুন করা জঙ্গী সংগঠনের নেতাদের নেতৃত্বে, সেটা কি দেশপ্রেমিক সংগঠন? হেফাজতের সমাবেশ থেকে যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর মুক্তির দাবিতে শ্লোগান দেওয়া হয়েছে, আহমদ শফির সঙ্গে শিবিরের ক্যাডার (অস্ত্র সহ ধরা পড়া একং খুনের মামলার আসামী) কে বৈঠক করার ছবিও আমরো দেখেছি। সাভার ট্র্যাজেডি’র পর দেশের সবগুলোর রাজনৈতিকও সামাজিক সংগঠন সব ধরনের সাংগঠরিক কর্মকান্ড বন্ধ রেখেছে তখন ঘটনার কোটি টাকা ব্যয় করে চট্টগ্রাম, নারায়ণঞ্জ প্রভৃতি স্থানে সমাবেশ করেছে একমাত্র আহমদ শফির হেফাজত। এটা কি দেশপ্রেমের পরিচয়, মানবতার পরিচয়? শাহরিয়ার কবিরের মত স্বনামধন্য ব্যক্তিত্বের দেশপ্রেম সম্পর্কে প্রশ্ন তোলার আগে নিজের সম্পর্কে আরও ভালভাবে জেনে নিন। শাহরিয়ার কবিরের পুরো পরিবার মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। হাট হাজারির আহমদ শফি একাত্তরে রাজকারদের সহযোগী ছিলেন, এটা এখন সবাই জানে। স্বাধীন দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শাহরিয়ার কবির সামনের সারিতে ছিলেন, আহমদ শফি জনগণেরে অধিকার আদায়ের কোন সংগ্রামে ছিলেন? এই শফি একটা প্রতারক, তার প্রমাণ যে মুহুর্তে জাতি যুদ্ধাপরাদীদের বিচারে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে, সেই মুহুর্তে তিনি মাহমুদুর রহমানের মত স্বীকৃত ষড়যন্ত্রকারী, কা’বা শরীফের অবমাননাকারী এবং ‘এবাদত নামা’র মত চরম ধর্মবিদ্বেষী কাব্যগ্রন্থের লেখক স্বঘোষিত নাস্তিক ফরহাদ মজহার কে সঙ্গে নিয়ে নাস্তিক দমন করতে এসেছেন! শফি একজন ফ্যাসিবাদী তার প্রমাণ, যেদিন নারী মহাসমাবেশ ডাকা হল সেদিনই সে ঢাকায় সমাবেশ ডাকল ফেতনা সৃস্টির জন্য।এ ধরনের লাম্পট্যকে কি ইসলামের হেফাজত বলে? আহমদ শফি প্রমাণ করেছে সে ইসলামের দুশমনদের কাছ থেকে টাকা খেয়ে ইসলামের নামে সন্ত্রাস, ফেতনা সৃস্টি করে বাংলাদেশে ইসলামেকে ধ্বংসের জন্যই ষড়যন্ত্র করছে। আমি একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান হিসেবে মনে করি মহান আল্লাহর পরিবর্তে আহমদ শফিকে ইসলামের হেফাজতকারী মেনে নিলে আমার ঈমান থাকে না। এ কারনে আহমদ শফির ভন্ডামি, গুন্ডামি তুলে ধরার জন্য বীর মুক্তিযোদ্ধা, লেখক, সাংবাদিক শাহরিয়ার কবিরকে অভিনন্দন।

  10. আগে মোল্লার দৌড় ছিল মসজিদ
    আগে মোল্লার দৌড় ছিল মসজিদ পর্যন্ত, এখন আমার দেশ পত্রিকা পর্যন্ত।
    এই কুৎসিত শিরোনামের লেখা এখনও প্রথম পাতায় থাকার কোন যুক্তি দেখি না।

  11. সত্যিকারের ভিক্ষুকরা পেটের
    সত্যিকারের ভিক্ষুকরা পেটের দায়ে ভিক্ষা করে।
    আর এই হেফাজতি বাঞ্ছুদ গুলা ধর্মের নামে ভিক্ষা করে।
    প্লিজ এদ্মিন এই ছাগু টারে এখনেই লাথি দিয়ে ব্লগ থেকে বের করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 57 = 58