প্রেমপত্র-৯০

হে মানবী,
তোমার খোঁজে আকাশ মাথায় করে গোটা শহর হেঁটে বেড়িয়েছি,রাস্তায় রাস্তায় হকারের মতো, কখনওবা ক্ষুধার্ত কাকের মতো পাড়ার মোড়ে, সবজি বাজার, লাইব্রেরী থেকে রেল কলনী,মার্কেট, কলেজ গেট, বইয়ের পাতা, পার্ক থেকে শুরু করে চায়ের দোকান কোথাও বাদ রাখিনি।হাটতে হাটতে ইচ্ছে করেই বহুদূর কখনও কখনও হারিয়ে গেছি রোদে পুড়েছি,
ঘামে ভিজে আবার শুকিয়েছি গায়ের শার্ট।বৃষ্টির মাঝে দৌড়ে যেতেই কাদার ওপর আছড়ে পড়েছি এর ওর জানালায় উঁকি দিয়েছি ইলেক্ট্রিক তাড়ে, চিঠির বাক্সে, ব্যাঙ্গের ছাতায় সবখানে তন্নতন্ন করে তোময় খুঁজেছি
কোথাও ছিলেনা তুমি।এই তোমার খোঁজ আমি কোথাও পাইনি মাঝ রাতে মাতাল হয়ে, পুকুর পারে, খাটের তলে, খোলা মাঠে, ঘুমের ঘোরে অনেক খুঁজেছি ।মিছিল থেকে জনসভা,রুদ্র থেকে জয় গোস্বামী হাসপাতাল থেকে আরাম চেয়ার তারে ঝোলানো ভেজা কাপড়ে ফুলের টবে এমনকি মগের মুলুকে!!বিশ্বাস করো আমি সবখানেই তোমায় খুঁজেছি।শুধুমাত্র তোমার খোঁজে বহু রাত জেগে কাটিয়েছি একের পর এক সিগারেট জ্বালিয়েছি
তারপর,ফুটপাতকে বিছানা ভেবে খানিকক্ষণ ঘুমিয়ে নিয়েছি আগুন থেকে সমুদ্রপৃষ্ঠ।কনসার্ট থেকে গহীন বন বাসে চড়েছি, পাহাড়ে গিয়েছি
এত বছর একলা হেঁটেছি পথহীন বন্ধুর পথে,কন্টকাকীর্ন পথে।তোমার খোঁজে বারবার প্রেমে পড়েছি তোমাতে,ভালবেসেছি তোমাকে ঘৃণাও পেয়েছি আবার বিরক্ত চহুনী উপহার পেয়েছি তোমার কাছ থেকে।
তোমার ক্রধভরা চাহুনী দেখে পালিয়ে গেছি কখনও,ভয় পেয়েছি আবার ফিরেও এসেছি।চাঁদের আলোয় কিছু স্বপ্ন ধানক্ষেতে ফেলে এসেছি
চুপচাপ ফুটপাত, নরম ঘাস, কংক্রিট, পুরনো শ্যাওলা খবরের পাতা থেকে ক্যাকটাসের ঝোপ।এখানে ওখানে কতো জায়গায় খুঁজেছি
সব ছেড়ে তোমার কাছে, তোমার মাঝে হন্নে হয়ে খুঁজেছি তোমর খোঁজে আমি কোথায় যাইনি বলো?সেই তোমাকে দেখেছি এত পরে তচ্ছতাচ্ছিল্য ভরা চাহুনীতে তাকিয়েছিলে বারংবার কড়া হওয়ার হুমকীতেও তোমায় আমি আরও ভালবেসেছি।একটা প্রশ্ন করি?
আচছা একটি বারও কি ভেবে দেখেছো,এই যে সারাদিন তুমি নিজের মতো করে কাটিয়ে দাও।কে কে তোমায় ভাবে,জনি হয়তো বলবে তোমার পরিবার,তোমার বন্ধুরা ,আর তোমার প্রিয়জন,হায়তো কথাটা সত্য কিন্ত
তাদের কাছে যেয়ে বল,যে কতক্ষন তোমাকে তারা ভাবে,আমি তোমাকে ভাবে প্রতিটা দিন প্রতিটা মুহূর্ত প্রতিটি ক্ষন,কোন সম্পর্ক নেই আমাদের তবুও ভাবি তুমি কখন আসবে,তোমার খবর কখন জানতে পারব,আমার লেখাগুলো কখন দেখবে? যদি অতটাকেও ভালবাসা না বলে আর কা কে ভালবাসা বলে আমি জানি না।সত্যি জানিনা।তবে এতটুকু জানি এই তোমাকে আমি তোমার মাঝেই খুঁজে যাবো।
বুঝলে মেয়ে তুমি যখন শাড়ি খোঁপায় ফুলে দাও,তখনকি একটু ফিরে তাকাবে কথা দিচ্ছি,মুখের উপর পড়া চুলগুলো সরিয়ে দেব না,
কথা দিচ্ছি বলব না তুমি থেকে যাও।তোমার ওই কাজল কালো চোখে
তাকিয়ে লিখে যাব হাজার কবিতা,বলবোনা তোমার ওই পবিত্র হাসি দেখে
লিখে যাবো আরেক মোনালিসা, বলব না তোমার সুখগুলো দিয়ে যাও আমায় শুধু বলব আমার দুঃখ গুলোকে লেপটে দাও ওই চোখের কাজলে।
বড্ড ভালবাসিতো ।
ইতি
তোমার চাতক

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “প্রেমপত্র-৯০

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 + 3 =