মনস্তাত্ত্বিক প্রশ্নগুলোর উত্তর করবেন????!!!!!

আবুল আর বাবুল দুই ভাই। তাদের বাবার নাম মোহাম্মদ সামাদ আর মায়ের নাম মোসাম্মৎ আরা। আবুল-বাবুলের চৌদ্দ গোষ্ঠীর সবাই ধার্মিক মুসলমান। ধনী ব্যবসায়ী, দুই দুইবার হজ্ব করে আসা সামাদ সাহেব এলাকায় মসজিদ, মাদ্রাসায় প্রচুর দান খয়রাতি করে থাকেন বলেও সুনাম আছে বেশ।

ইংলিশ মিডিয়ামে পড়াশোনা করা, নিজের পাঁচ শব্দের একটি বাক্যে তিনটি ইংরেজি ও দুইটি বাংলা শব্দ উচ্চারণে কথা বলা, থুতনিতে গাছি গাছি বাল রাখা আলট্রা-মডার্ণ, ক্রাশ-ডায়মন্ড বাবুলের হঠাৎ পরিবর্তন আসলো। বাবুল বেশ গম্ভীর হয়ে গেল। ধর্ম-কর্মে মন আসলো, নিয়মিত নামাজ পড়ে, ভাই আবুলকেও নামাজ পড়তে জোরাজুরি করে। টেলিভিশন দেখতে মানা করে সবাইকে। বাবুল জিহাদ ও ইসলাম কায়েমের কথা বলে। দেশে এখন নাকি সহী ইসলাম নেই!

ছেলের এমন পরিবর্তনে সামাদ সাহেব এবং মোসাম্মৎ আরা খুশি হন। ছেলে তাঁদের সাচ্চা মুসলমান হীরের টুকরো হয়ে উঠেছে। ছোট ভাই আবুলেরও ভালো লাগে ভাইয়ের এমন পরিবর্তন।
হঠাৎ করে একদিন বাবুল বাড়ি থেকে নিখোঁজ। তিন চার মাস পর ঢাকায় একটা জঙ্গি হামলা ঘটনা ঘটলো। বাবুল এবং অন্য কয়েকজন ছেলে মিলে ৩০ জন মানুষকে আল্লাহু আকবার বলে খুন করেছে। পুলিশের গুলিতে বাবুলও নিহত হয়েছে।

তারপর আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সবাই মিলে বাবুলকে অসহী মুসলমান বলা শুরু করলো! অথচ আবুল জানতো বাবুল বেশ ভালোই নামাজ কালাম পড়তো। যারা বাবুলকে অসহী মুসলমান বলছে তাদের তুলনায় বাবুল অনেক বেশি মুসলমান ছিলো। কেউ কেউ আবার বাবুলকে ইহুদী-নাসারা বলেও গালাগালি শুরু করলো। একই মায়ের পেটে জন্ম নেওয়া এক ছেলে মুসলমান এবং অন্যজন কিভাবে ইহুদি হয়ে গেলো তা আবুলের মাথায় আসলো না। আবুল, আবুল থেকে আরও আবুল হয়ে যেতে লাগলো।

তারপর, প্রথমে বাবুলের লাশ পরিবার থেকে নিতে অস্বীকৃতি জানানো হলেও পরে ঠিকই লাশ গ্রহণ করা হলো এবং একজন মৌলভী ডেকে এনে সম্পূর্ণ ইসলামিক রীতিতে জানাজা পড়িয়ে বাবুলের লাশ দাফন করা হলো।
একজন ইহুদি-নাসারা এবং অসহী মুসলমানকে মুসলমানের মতো কেন কবর দেওয়া হলো তা আবুলের মাথায় আসলো না কিছুতেই। হিসেব মিললো না, আবুলের মাথা ঘুরতে লাগলো। আবুল আবুল থেকে চিরতরে আবুল বনে গেলো।

উপরে বর্ণিত অনুচ্ছেদ অনুযায়ী নিচের মনস্তাত্ত্বিক প্রশ্নগুলোর উত্তর করবেন।
১) সহী মুসলমান কি?(১)
২) ধার্মিক মুসলমান থেকে অসহী মুসলমানে পরিণত হওয়ার প্রধান তিনটি শর্ত উল্লেখ করুন।(২)
৩) সহী মুসলমান কি চিজ এবং তা দেখতে কেমন ও গুণাবলী কি কি?(৩)
৪) প্রাকটিসিং মুসলমান থেকে ধার্মিক মুসলমান, তারপর ধার্মিক মুসলমান থেকে জঙ্গি মুসলমান, জঙ্গি হামলার পর অসহী মুসলমান থেকে শুরু হয়ে ইহুদি-নাসারা বলে পরিচিতি পাওয়া, তারপর কবর দেওয়ার সময় আবার মুসলমান হয়ে গর্তে ঢুকে পড়া; পানি চক্রের ন্যায় এই মুসলমান চক্রের ব্যাখ্যা করুন।(৪)

(লিখেছেন আমার প্রিয় জুলিয়াস সিজার দাদা)

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

3 + 7 =