সত্য প্রকাশ করলে নাস্তিক, রম্যরচনা করলে আস্তিক

ভারতে যখন সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুরা সংখ্যালঘু মুসলমানদের উপর আক্রমণ করে তখন সবাই বলে হিন্দু মৌলবাদীরা মানুষ মারছে। হিন্দুদের সব দোষ।

বার্মাতে যখন সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধরা সংখ্যালঘু মুসলমানদের উপর আক্রমণ করে তখন সবাই করে বৌদ্ধ মৌলবাদীরা মানুষ মারছে। বৌদ্ধদের সব দোষ।

ইজরাইল যখন ফিলিস্তিনীদের উপর আক্রমণ করে তখন সবাই বলে ইহুদি মৌলবাদীরা মারছে। ইহুদি আজীবনই খারাপ, সব চক্রান্ত ইহুদিদের।

কিন্তু

আল কায়েদা, তালেবান, আইএস যখন খ্রিস্টান, ইহুদি, হিন্দু, মুসলমান হত্যা করে এবং নারীদের ৫০ ডলারে যৌনদাসী হিসেবে বিক্রি করে তখন সবাই বলে সন্ত্রাসের কোন ধর্ম নেই।
পাকিস্তান ও বাঙলাদেশে যখন শিয়া সম্প্রদায়ের উপর আক্রমণ হয় তখন সবাই বলে সন্ত্রাসের কোন ধর্ম নেই।

বাঙলাদেশে যখন সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানরা সংখ্যালঘু হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, নাস্তিক, সুফিদের উপর আক্রমণ চালায় তখন বলতে হবে সন্ত্রাসের কোন ধর্ম নেই।

সন্ত্রাসের ধর্ম কী তবে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, ইহুদিদের সম্পত্তি? এটাই যদি হয় তাহলে পৃথিবী জুড়ে মুসলমানরা এত আক্রমণাত্মক কেনো? বিশ্ব জুড়ে আল্লাহু আকবর বলে মানুষ জবাই করা হয় কীভাবে? সন্ত্রাসের যদি আসলেই ধর্ম না থেকে থাকে তাহলে নারীদের পণ্যরূপে উপস্থাপন করা হয় কেনো? সন্ত্রাসের যদি ধর্ম না-ই- থেকে থাকে তাহলে পৃথিবী জুড়ে মুসলমানরাই কেনো মুসলমানদের হত্যা করে যাচ্ছে? সন্ত্রাসের যদি ধর্ম না-ই থাকে তাহলে পৃথিবী জুড়ে ইসলামী শাসনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য মুসলমানরা কেনো চাপাতি- বোমা-বন্দুককে বেছে নিয়েছে? সন্ত্রাসের যদি ধর্ম না-ই থেকে থাকে তাহলে বাঙলাদেশে শতাধিক ইসলামিক দল ও পার্টিগুলো কেনো ভিন্ন ধর্মাবলম্বীর মানুষদের অধিকারের বিপক্ষে? সন্ত্রাসের যদি আসলেই ধর্ম না থাকে তাহলে মুসলমানরা কেনো অবিশ্বাসী, নাস্তিক আজ্ঞেয়বাদী, সংশয়বাদী, সেক্যুলার মানুষদের হত্যা করে?

সত্য প্রকাশ করলে নাস্তিক, রম্যরচনা করলে আস্তিক! বাহ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 9