বিসমিল্লাহ আর বিদায় হজ্বের মাশুল দিচ্ছে বাংলাদেশ।

জঙ্গি তৎপরতায় সরকার পক্ষের কান্নায় শরিক হয়েছে প্রকৃতি। সবাই সম:স্বরে কাদছে। গুলশান ও শোলকিয়ার সন্ত্রাসি ঘটনার পর সরকার বাহাদুর একটু লড়েচরে বসেছেন। তাবিজ, কবজ, পানিপড়া ও ঝারফুর মতো উপসম প্রক্রিয়া গুলি ইতিমধ্যেই চালু হয়ে গিয়েছে। আল্লাহু আকবর বলে কল্যান করতে আসা কল্যানকারীরা জান্নাতবাসী হয়েছেন। কিন্তু আমরা কেউ একটিবারও ভেবে দেখ্রছি না, কেন? কেন এমন ঘটনা গুলি বার বার ঘটছে। জঙ্গি মোকাবেলায় সরকার তথা দেশ আজ দিশাহারা। প্রধানমন্ত্রী বলছেন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি কিন্তু বিএনপি তার সঙ্গে নেই। বিএনপিও তার মতো করে ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে। আমরা আম জনতা তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি।

আজ সবাই ভাবছেন, জঙ্গি তৈরী হচ্ছে কেন? কেন জানি কেউ এর প্রকৃত কারনটা খুজে পাচ্ছেন না। কেউ কেউ সামাজীক মুল্যবোধের অবক্ষয়, র্দুনীতি ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা হয়নি বলে দোষারোপ করছেন। ১৯৭৫ এর পর থেকে আজ পর্যন্ত রাষ্ট্রে ধর্ম ব্যাবহারের যে মহাউৎসব চলে আসছে তাকে কিন্তু কেউ দায়ী করছেন না। যে দেশের সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ও ধর্মিও রাজনীতির মতো অনুসঙ্গ গুলি গ্রন্থিত থাকে সেই দেশে এই গুলিতো স্বাভাবিক ঘটনা। তেতুল গাছে আমের ফলন যেমন অসম্ভব তেমনি ধর্ম ব্যাবহারে সেকুলার কল্পনাও অসম্ভব।

বঙ্গবন্ধু অনেক স্বাধ করে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। ১৯৭৫ পরবর্তি সব সরকার মিলে দেশটার আজ এই হাল করে ছেরেছে। শেখ হাসিনাও এদের বাইরে নয়। বিশমিল্লাহ দিয়ে শহিদ জিয়া শুরু করেছিলেন বিদায় হজ্বের বানী দিয়ে শেষ করেছেন শেখ হাসিনা।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “বিসমিল্লাহ আর বিদায় হজ্বের মাশুল দিচ্ছে বাংলাদেশ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

85 − = 84