ইসাবেল আলেন্দের একটি চমৎকার সাক্ষাৎকার।


Isabel Allende গর্বিত হয়েছেন তার প্রথম বই হাউজ অব স্পিরিট দ্বারা। এটা ছিল চিঠি যেটা কিনা সে তার দাদাকে পাঠিয়ে ছিল যখন তার দাদা মৃত্যুর সাথে লড়ছিল। এই বইটি হয়েছিল আন্তর্জাতিক ভাবে বেস্ট সেলার। তার ক্যাটালগ এখন ২০ টিরও বেশি টাইটেল।তার সর্ব শেষ বই The Japanese Lover প্রকাশ হয়েছে গেছে বছর।

Alison Beardঃআপনার প্রত্যেকটা বই একই তারিখে লেখা শুরু করেছেন, The House of the Spirits এই বইটাও একই তারিখে লেখা শুরু করেছেন, এটা কেন?

Isabel Allende: থেকে এটা ছিল কুসংস্কার, কারন প্রথম বইটা ছিল ভাগ্যবান। এখন শুধু এটা ডিসিপ্লিন। আমি খুবেই বেস্ত মানুষ, তাই আমি প্রতি বছর কিছু মাস আমি লেখালেখির পিছনে সময় দেই। আমার সময় ও নীরবতা প্রয়োজন। তানাহলে কখনেই লেখক হতে পারবো না। আসলে এই তারিখটা আমার জন্য খুব ভালো, আমার চারপাশের সবাই জানে এই সময় আমি কারো সাথে দেখা করি না।

Alison Beardঃবইয়ের আইডিয়াটা আপনার সব সময় মনে থাকে?

Isabel Allende :মনে থাকে কিন্তু অনেক অস্পষ্টভাবে। আমার কাছে কখনেই লিপি ছিল না। যখনেই আমি সময় পেয়েছি জায়গা পেয়েছি তখনি ভেবেছি, যেমন, যখন আমি a slave revolt in Haiti 200 years ago গল্পটা লিখেছিলাম, আমার শুধু ঘটনাটা জানা ছিল, কিন্তু আমার কোন চরিত্র, গল্প বা এন্ডিং জানা ছিল না। অন্য সময়ে আমি শুধু কম্পিউটার এর সামনে বসে থাকতাম, চেষ্টা করতাম প্রথম বাক্যটা তৈরি করার। এটাই হত আমার গল্পের প্রথম লাইন। কিন্তু আমি জানিনা এটার ভবিষৎ কি।

Alison Beardঃ এর থেকে আপনি এটা কিভাবে প্রস্তুত করেন?

Isabel Allende: আস্তে আস্তে। প্রথম কিছু সাপ্তাহ খুব খারপ যায়।কারন তখন পর্যন্ত আমি কোন বর্ণনা, কণ্ঠ, স্বর খুজে পাই না। এটা খুব ঝুঁকিপূর্ণ সময়, আমি জানি এগুলা খুব বাজে ভাবে শেষ হয়। কিন্তু এটা হচ্ছে প্রশিক্ষণ, আমার প্রয়োজন গঠনটা খুজে পাওয়া। কিছু সপ্তাহ পরেই ক্যারেক্টার প্রতীয়মান হয় এবং আমাকে গল্প বলতে শুরু করে। তখনি আমি ভাবতে শুরু করি আমি রাইট পাথে আছি।

Alison Beardঃতখন আপনি কি করেন যখন দেখেন কোন গল্প অনেক লম্বা সময় নেয়?

Isabel Allende:
মাঝে মাঝে আমার মনেহয় আমি হয়ত লেখাটা শেষ করতে পারবো না।কিন্তু অধিকাংশ সময় আমি এটা প্রকাশ করি লেখাটা লেখাটা ধরেরাখি। আমি জানি আগে হোক এর পরে হোক এটা শেষ হবে।আমি আমার দক্ষতাকে বিশ্বাস করতে শিখেছি।কিন্তু এটা অনেক লম্বা সময় নেয়। সর্বপ্রথম আমার ধারনা ছিল যে প্রত্যেকটা বই এ ছিল এক একটা গিপ্ট যা আমি পেয়েছি সর্গ থেকে।এটা দ্বিতীয়বার গঠবেনা। কিন্তু লেখা লেখির ৩৫ বছর পর, আমি জানি যে আমি যদি নিজেকে পর্যাপ্ত সময় এবং গল্পের বিষয় দিতে পারি। আমি যে কোন কিছুই লেখতে পারি। যা আমাকে আত্মবিশ্বাসী করে, এবং আমাকে রেলাক্স এবং আনন্দিত করে তুলে।

Alison Beardঃনিজেকে ব্যাখ্যা করেছেন একজন প্রকৃত গল্প কথক হিসেবে। এটার জন্য প্রতিভা অথবা অনুশীলন কোনটা বেশি গুরুত্বপুন্য?

Isabel Allende: আমি আসলে ক্রিয়েটিব লেখা শিখেছি কলেজ জীবন থেকে, এবং আমি ছাত্র ছাত্রী দের পড়াতে পারি কিভাবে গল্প লিখতে হয়, কিন্তু আমি কখনো শিখাইনি। আমি গল্প বলার যে ক্ষমতা আছে সবার এটা থাকেনা। আমি মনে করি কিছু মানুষ এটা নিয়েই জম্মায়। আমি প্রথম দিকে লিখতাম না। শুধু মুখে বলতাম। কিন্তু কিছু কাল পরেই, অনুশীলন এবং কাজের মাধ্যমেই আমি এই দক্ষতা অর্জন করি। কিছুদিন যাবত আমি অনুভব করতেছি এটা আমার একান্তই নিজের।

Alison Beardঃআপনি লেখক হওয়ার আগে সাংবাদিক,টিভি উপস্থাপক, স্কুলের পরিচালক হিসাবে কাজ করেছেন। আপনার নিজেকে নতুন করে আবিষ্কারের গল্পটা বলবেন?

Isabel Allende: মনেকরি না এটা আমার পছন্দ ছিল, আমি বলেনি, আমি একজন লেখক হতে যাচ্ছি। এটা ঘটে ছিল।চিলিতে সামরিক অভ্যুত্থানের পর আমি ভেনেজুয়েলাতে বসবাস করতে শুরু করি, এবং সাংবাদিকতার চাকরি খুঁজেও পাইনি। তখন আমি স্কুলে জব করতাম, তখন আমি অনুভব করতে লাগলাম যে আমার মধ্যে অনেক গল্প আছে। কিন্তু তখন সে গুলার জন্য কোন আউটলেট ছিল না। জানুয়ারি ৮, ১৯৮১, আমি ফোন জানতে পারলাম আমার দাদা চিলিতে মিত্যুর সাথে লড়ছে । কিন্তু আমি সেখানে গিয়ে উনাকে বিদায় দিতে পারিনি। তাই আমি তাকে চিঠির মাধ্যমে বললাম, তিনি আমাকে যা কিছু বলেছে সব কিছু আমার মনে আছে। সে খুব ভালো গল্প বলতেন। সে মারা গেছে___সে আর কখনেই চিঠিটা গ্রহণ করতে পারবে না। কিন্তু আমি কাজের পর প্রতিদিন রাত লেখতাম। এক বছরের মধ্যে আমি ৫০০ এর বেশি পেজ লেখেচ ছিলাম যা কিনা অভশ্যই চিঠি ছিলনা। এটাই ছিল The House of the Spirits বইটা। বইটা প্রকাশ হওয়ার পর অনেক সফলতা আর্জন করি। এই বইটাই আমার অন্য বই গুলা লেখার জন্য পথ দেখিয়েছে। কিন্তু আমি আমার চাকরি ছাড়িনি, কারন আমি কখনো অনুভব করিনি এটা আমার ক্যারিয়ারের অংশ। পথ।এটা আসলে অলোকিক ভাবে ঘটে ছিল।

Alison Beardঃআপনার এই নতুন ক্যারিয়ার গঠন করার ক্ষেত্রে কোনটা আপনাকে সাহায্য করেছে?

Isabel Allende:.বইটা ৩৫ ভাষায় রূপান্তরিত হয়েছে এবং পচুর কপি বিক্রি হয়েছে। আমি এটা অনুভব করতে পেরেছি যে, আমি যদি লেখা ধরে রাখতে পারি। আমি আমার পরিবারকে সাহায্য করতে পারবো।

Alison Beardঃআপনি কি অনুভব করেন আপনার সবচেয়ে প্রশংসিত বইয়ের সাফল্যের জন্য আপনি পশ্চাদ্ধাবন হচ্ছেন?

Isabel Allende: যখন আমার এজেন্ট কারমেন ব্যালসেল যে আমার প্রতিটি বইয়ের গডমাদার ছিলেন, যিনি কিছু দিন আগে মারা গেছে, স্পেনে হাউজ অব স্পিরিটের পাণ্ডুলিপি পেলেন, সে আমাকে ভেনেজুয়েলাতে ডাকলেন এবং বললেন, প্রত্যেকেই তাদের প্রথম বই ভালো লেখে,কারন প্রথম বইটা তাদের বাস্তব অভিজ্ঞতার উপর লেখে, তাদের অতীত, স্মৃতি, আশা আকাঙ্ক্ষা সব কিছু। একজন লেখক কতুটুকু ভালো লেখে তা নির্ভর করে লেখকের দ্বিতীয় বইয়ের মাধ্যমে। আমি আমার দ্বিতীয় বই লেখা শুরু করি জানুয়ারির ৮ তারিখ। হাউজ অব স্পিরিট এর সব সাফল্য গঠে ছিল ইউরুপে। এই সময় আমি সাচেতন হতে শুরু করি। কারন আমি আমার দ্বিতীয় বই লেখা শেষ করেছি।প্রত্যেকটা বই এক একটা চেলেঞ্জ, অন্য একটা মাধ্যমকে বলতে হচ্ছিল,আমি লিখেছি আমার স্মৃতি, ঐতিহাসিক উপন্যাস, কল্প কাহিনি, ক্রাইম নভেল। আমি কখনেই তুলনা অথবা বলিনি, হাউজ অব স্পিরিট কি ভালো অথবা খারাপ বই? প্রত্যেকটা বইয়ে নৈবেদ্য, প্রত্যেকটা বই আপার টেবেলের উপর রাখেন এবং দেখেন কোনটা আপনি গ্রহণ করবেন।

Alison BeardঃPaula বইটি আপনার মেয়ের মৃত্যুর সম্পর্কিত একটি স্মৃতিকথা ছিল। The House of the Spirits এটা ছিলো একটা পত্র যা কিনা আপনি লিখেছেন আপনার দাদাকে যখন সে মৃতুর সাথে লড়ছিল। আপনার এই লেখা গুলা আপনাকে কি কোন ভাবে সাহায্য করেছে এসব দুঃখদায়ক ঘটনা থেকে?

Isabel Allende: The House of the Spirits ছিল বিশ্বকে পুনরুদ্ধারে একটা প্রচেষ্টা। আমি নির্বাসিত অবস্থায় আমার পরিবার, আমার দেশ, আমার অতীত, আমার দাদাকে হারিয়েছি যা আমি এ বইতে লিখেছি। যা চিরকাল বই হিসাবে থাকবে। আমার মেয়ের মৃতুর পর, সব কিছু অন্ধকার লাগতে ছিলো। সব আনন্দ আমার জীবন থেকে হারিয়ে ছিলো। প্রতিটা দিনকেই মনে হয়েছিলো একই রকম। সে কমায় প্রায় এক বছর ছিলো। সে সময় আমি তার যত্ন নিয়েছিলাম। তার মৃত্যুর এক মাস পর আমার মা আমাকে ১৮০ টা চিঠি দেয় যা আমি তাকে ওই এক বছরে পাঠিয়ে ছিলাম। আমি লেখা শুরু করে ছিলাম। এটা খুবেই ভেদনা দায়ক ছিল, কিন্তু তারপরেও আমি কিছুটা আরগ্য লাভ করেছিলাম। আমি প্রতিটা পেজে যা লিখতাম, যা আমাকে অনুমতি দিত আমার চারপাশকে পুনরায় দেখার জন্য। তখন আমার নাতির জম্ম হয়েছিলো। আমার স্বামী ছিল যে কিনা আমাকে খুব ভালোবাসতো। সেখানে জিবনের সর্বাঙ্গে ছিল।

Alison Beard.আপনার মনেহয় নিজের জীবন সম্পর্কে লেখতে পছন্দ করেন?

Isabel Allende: যখন আমি paula লেখেছিলাম, তখন আমার মা বলেছিল, তুমি তোমার কে নিয়ে অনেক লেখেছ, তার জন্য তুমি সমালোচিত হও। এবং আমি তাকে বলাম, মা, আমি সমালোচিত নই কারন আমি সত্য বলি। আমার জীবনটা অন্য সবার থেকে আলাদা নয়। আমি আসলে এমন কিছু করিনি যে তা আমি বলতে পারবো না, যখন আমি শেয়ার করি, এবং অন্যরা আমার সাথে শেয়ার করে। এর মাধ্যমে আমরা আমাদের গল্প এবং আবেগ একে অন্যের মধ্যে বিনিময় করতে পারি।

Alison Beard আপনি বলেছেন আপনার বইয়ের অনেক ফরেন এডিটর। কেন আপনি মনে করেন আপনার কাজ ভিবিন্ন কালসার অনুকরণ করে?

Isabel Allende: সব সময় জোর দেই __ বর্ন, কালসার, ভাষা, জাতীয়তা ইত্যাদি, কিন্তু সব মানুষেই সমান, তারা একই জিনিসকে ভয় পায়। তারা একই জিনিস পেতে চায়। আমাদের সবার অর্গান আসলে একই, ব্রেইন, সবার স্বপ্ন এক। তাই তুর্কি এবং স্যান ফ্রান্সিসকোতে বয়স সংক্রান্ত গল্প একই ভাবে ঘটে।

Alison Beardবলেছেন আপনি সব সময় কাজ করতে সংকল্পবদ্ধ। কিন্তু কেন?

Isabel Allende: কারন আমি আমাকে গড়ে তুলতে ছেয়েছিলাম। একটা জিনিস আমাকে গঠন করেছে, আমি আমার মা কে একজন ভিক্টিম হিসেবে দেখেছি। সে খুবেই সুন্দর একজন মহিলা ছিল কিন্তু সে বিয়ে করেছিলো একটা বাজে লোককে,চার বছরে মধ্যে তিন সন্তানের জননী হয়েছেন, এবং তার স্বামী তাকে ত্যাগ করে। তাই সে আমার নানার বাড়ীতে চলে যায়।তার কোন শিক্ষা বা বাস্তবিক অভিজ্ঞতা ছিল না। সে সম্পূর্ণ তার বাবার উপর নির্ভর ছিল। আমি আমার মাকে পূজা করি, এবং কিন্তু আমি কখন ও আমার মায়ের মত হতে চাইনি। এবং আমি বাসায় থাকতে পছন্দ করতাম না। আমি আমার দুই সন্তানকে খুব ভালোবাসি, অনেক ভালোবাসি, কিন্তু আমি আমার শাশুড়িকে খুব বিশ্বাস করতাম এবং দাদুকে ভালবাসতাম কারন আমার এখানে আসার পিছনে তার অবদান অনেক।, আমার প্রয়োজন ছিল বড় হওয়ার।

Alison Beardসময় আপনি চেষ্টা করেছিলেন আপনার স্বামীর সাথে বই লেখার জন্য, এখন সে সাবেক। সেটা কিভাবে করেছিলেন?

Isabel Allende: এটা ছিল আমার এজেন্টের আইডিয়া। কিন্তু এটা অসম্ভব ছিল। সে লেখত ইংরেজিতে, আর আমি লেখতাম ইস্পানিসে, যেখানে লেখার পিছনে আমি খরচ করতাম ১১ ঘণ্টা সেখানে সে খরচ করতো ১১ মিনিট, আমি লেখার পিছনে সময় দিতাম, সে তেমন দিত না। তাই আমি লেখেছিলাম Ripper সে লেখল তার ৫ম ক্রাইম উপন্যাস।
Alison Beardঃ২০১১ In সালে আপনি বলেছিলে আপনি অবসরে যেতে চান। আপনি এখনো কি অবসরে যাওয়ার কথা ভাবেন?

Isabel Allende: তখন খুব খারাপ্ সময় ছিল, আমি ক্লান্ত হয়ে পেরেছিলাম। আমি তখন অনেক অনেক জার্নি করেছিলাম। আমার প্রায় সব বন্ধুরাই অবসর নিয়েছে এবং খুব ভালো সময় কাটাচ্ছে। তাই আমি ভাবছিলাম কানো আমি পারবো না? কিন্তু এখন আমি জানি আমি অবসর নিতে পারবোনা। কারন আমি যা করি তা আমি ভালোবাসি।আমার ভালোবাসা আছে কাজের প্রতি, আমার প্রয়োজন নাই ফিট থাকা বা তরুণ হওয়া। আমার প্রয়োজন শুধু ব্রেনটা ভালো থাকা।

Alison Beardঃআপনি কি নিজেকে দেখেন কি হিসাবে অন্য মহিলাদের রোল মডেল হিসাবে অথবা পরামর্শদাতা হিসাবে?

Isabel Allende: কিন্তু মানুষ, মূলত তরুণ মহিলারা, বলে যে আমার বইয়ের চরিত্র তাদের অনুপ্রাণিত করেছে, কারন তারা স্বাধীন, বুদ্ধিমান মহিলা যারা কিনা ভয়ঙ্কর কিছু থেকে মুক্তি পেয়ে বেচে আছে।

Alison Beardঃআপনার কোন রোল মডেল আছে?

Isabel Allende: যারা অসাধারণ মহিলা আমি এবং আমার ফাউন্ডেশন তাদের সমর্থন করি। যেমন, কেঙ্গোর মহিলা যারা কিনা ধর্ষিত হয়েছে , তারা কখনেই হাটতে পারবেনা কিন্তু তারা সে সমাজের প্রতিনিধি। এরাই আমার রোল মডেল।

Alison Beardঃআপনার পরিবার চিলির রাজনীতির সাথে যুক্ত। আপনি কখনো নিজের ক্যারিয়ারকে রাজনীতির সাথে যুক্ত করতে ছেয়েছেন?

Isabel Allende: আমার এক কাজিন আছে, যার নাম আমার নামে নাম( Isabel Allende Bussi) আমাদের পরিবারে সেই রাজনীতিবিদ, আমি না। আমি এটার জন্য হইনি। আমি একজন লেখক। আমি একা এবং শান্ত থাকতে ভালোবাসি, ভালোবাসি গল্প তৈরি করতে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 37 = 40