সাবধান

সাবধান! দেখুন আপনার সন্তান গড ডিল্যুশন পড়ছে কিনা।
তন্নতন্ন করে খুঁজে দেখুন পড়ার টেবিলে আছে কিনা শেষের কবিতা,
এভাবেই বেলেল্লাপনা ছড়ায়,
ঐযে, টেবিলের কোনায় দেখা যাচ্ছে ওরিয়ানা ফাল্লাচি, কি সর্বনাশ!
বুটজুতো পরা বেগানা মেয়েছেলে গ্লাস হাতে সিগারেট খায়।
বালিশের পাশে পাতা খোলা হুমায়ুন আজাদ কাব্য সমগ্র?
নগরে পড়ে আছে আম আঁটির ফেঁপু,
কেমন করে গজালো এমন দৈত্যকূলে প্রহ্লাদ?
আরও কি সব বইয়ের স্তুপ, পল সেজানের আঁকা নগ্ন প্রচ্ছদ।
মনে রাখবেন ভিন্ন বই তাকে ভিন্ন প্রশ্ন করতে শেখাবে।
আপনি সন্তান সম্পর্কে খোঁজ নিতে থাকুন,
সে হয়ত বেঙ্গলের ক্ল্যাসিকাল মিউজিক ফেস্টিভ্যালে চলে যাচ্ছে।
রশিদ খানের হংসধ্বনি শুনলে আর ফেরাতে পারবেন না।
তার বন্ধুদেরকেও নজরদারীতে রাখুন,
চন্দনবনে ষড়াগাছও নাকি চন্দনে চর্চিত হয়,
সন্তানের রুমে কান পেতে শুনতে চেষ্টা করুন,
ভেসে আসছে ওস্তাদ জাকির হোসেনের তবলা বিট সাইন্স?
প্রিয় সন্তানের চোখের দিকে তাকান,
দেখতে পান একশত বংশীবাদক?
আপনি কি সন্তানের সামাজিক যোগাযোগ নিয়ে কিছু জানেন?
জানেন সে লেখে কি না কবিতা?
বিষয়বস্তু– স্বপ্ন মৃত্যু ভালোবাসা।
নিশ্চিত থাকুন, আপনার সন্তান মানুষের প্রেমে পড়ে গেছে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “সাবধান

আলোর পথ যাত্রী শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন জবাব বাতিল

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

90 − = 87