এই দেশকে ভালবাসি, তাই গালাগালি করি

সাভার ট্র্যাজেডির কারনে মিডিয়া গুলি এখন জোরেশোরে বিভিন্ন ফাটল ধরা ভবনের ছবি এবং সংবাদ প্রকাশ করছে। আমরাও মনে মনে বলছি, আরে খাইছে!! মিডিয়াগুলি কতো ভাল! অনেক মানুষের প্রান বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করছে। অথচ, বাস্তবতা ভিন্ন। কাওরানবাজার এ কোন একটা ভবনে ফাটল দেখা দিয়েছে, তা সাভার ট্র্যাজেডির পর প্রকাশ পেয়েছে। অথচ কাওরানবাজারে কতগুলি সংবাদমাধ্যম এবং মিডিয়ার অফিস।কেউ আগে জানতে পারত না। এখন পেপার খুললেই ভবনে ফাটল ধরে। টিভি দেখলেই বিল্ডিং হেইলা পরে। আগে মানুষের কোন চিন্তাই ছিল না। এতগুলি লোকের প্রাণ যাওয়ার পর সরকার এবং সংবাদমাধ্যমগুলির মনে হইলো যে, এইবার কিছু মানুষের প্রাণ বাঁচানোর দরকার। একটা জিনিস খেয়াল করে দেখেন, ঢাকা শহরে যদি ৭ বা ততোধিক মাত্রার একটি ভূমিকম্প হয়, তাহলে কি অবস্থা হবে? পুরান ঢাকার ৯৯ ভাগ ভবন ই ঝুঁকিপূর্ণ, আমার মতে। যদি ভূমিকম্প হয়, তা হলে ঢাকা শহর কে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না। তার পরে স্টিফেন স্পিলবার্গ আইসা সাইন্স ফিকশান মুভি বানাইব। এমন একটা জ্যাম ছাড়া রাস্তা দেখাতে পারবেন না, যেই রাস্তা দিয়ে ফায়ার ব্রিগেড এর গাড়ি ঠিকমত যেতে পারে। আমাদের দেশে গণ্ডায় গণ্ডায় ফ্লাইওভার হয়, কিন্তু রাস্তার পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ হয় না। গণ্ডায় গণ্ডায় কমিশন গঠিত হয়, তার সাথে সাথে ৭ তলা বাড়ি ১৫ তলা হয়। ধসে পড়লে মন্ত্রী এম্পিদের দৌড় ঝাঁপ শুরু হয়। সাহায্য দেওয়ার ধুম পইড়া যায়। ফটোসেশন শুরু হয়। ফেইসবুক এ আমরা বাল ছাল লেখা শুরু করি। তাতে লাভ হয় কার??? আমাদের দেশটাকে দেখলেই বুঝা যায় ইহা আল্লাহর উপর চলতেছে। নিজেদের কোন ক্ষমতা নাই কোন কিছু পরিবর্তন করার। আমরা পারি কেবল যুদ্ধ বিমান কিনতে, পারি পদ্মা সেতু বানাইতে, পারি বালের বাংলাদেশ গেমস আয়োজন করতে, পারি না কেবল মানুষের জীবন বাঁচাইতে। যেই পদ্মা সেতু আমরা বানাইতে যাইতেছি, ওইটাও কাল পরশু আমাদের মাথায় ভেঙে পরবে। আমাদের ফায়ার সার্ভিসের গাড়িগুলা যে পানি সংগ্রহ করবে,সেই পরিমাণ পুকুর নাই। সব ভরাট কইরা ৭ তলা ফাউন্ডেশনের ১৫ তলা বাড়ি তৈরি হচ্ছে। আমরা জাতি হিসেবে অনেক আরামপ্রিয় এবং লোভী। দোষ দিব কাকে???

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “এই দেশকে ভালবাসি, তাই গালাগালি করি

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 62 = 66