জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাদ্রাসাগুলোর অবস্থান ও কিছু কথা

দেশে সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলা জনমনে ভীতির সঞ্চার করলেও স্বতঃস্ফূর্তভাবে সাধারণ মানুষের জঙ্গিবিরোধী অবস্থান আশার আলো  দেখায়। প্রশ্ন উঠেছিল জঙ্গি বিষয়ে মাদ্রাসাগুলোর অবস্থান কোথায়?

দেশে সম্প্রতি বিভিন্ন মাদ্রাসা সমূহ জঙ্গিবিরোধী মানববন্ধন করে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে। যদিও এগুলো অনেক আগে করার কথা ছিল। তবুও তাদের উদ্যোগ প্রসংসার দাবি রাখে।

জঙ্গিবাদ দমনে দরকার সম্মিলিত উদ্যোগ। কয়েকদিন আগে এ বিষয়ে মাদ্রাসা শিক্ষকদের নিয়ে প্রোগ্রাম করেছেন মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী।

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ফতোয়া ও সাক্ষর সংগ্রহ অভিযান করেছেন শোলকিয়ার ইমাম ও খতিব মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ। তারা দেশব্যাপি এক লক্ষ সাক্ষর সংগ্রহ
করেছেন।

জঙ্গিদের লাশ গ্রহনে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন তাদের মা বাবা। তাদের ভাষ্যে লাশ শেয়াল কুকুরে খাবে তবুও আমরা নিবনা। এইসব ভার্সিটি পড়ুয়া উচ্চশিক্ষিত তরুণ ধর্মের ভূল ব্যাখ্যা পেয়ে মানুষ মারার নেশায় মেতে উঠেছিল। এ জন্য তাদের মা বাবা দেশবাসীর নিকট দু:খ প্রকাশ করেছেন।

পুলিশের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন আটক জঙ্গিরা বেপরোয়া আচরন করছে। তারা দাবি করছে, আমাদের  মেরে ফেল আমরা বেহেশতে যাব।

একটি দেশের তরুণরাই সে দেশের মূল সম্পদ। যখন তরুণরা বিপথগামী হয় তখন জাতির জন্য অপেক্ষা করে চরম দুর্দিন। উগ্রতা, ধর্মান্ধতা ও সর্বোপরি তরুণ সমাজের বিপথগামীতা রুখতে এভাবে সবার সম্মিলিত উদ্যোগ আগামীর সুন্দর
বাংলাদেশ গড়তে প্রেরণা যোগাবে।

 

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাদ্রাসাগুলোর অবস্থান ও কিছু কথা

  1. এসব সরকারের চাপে পড়ে কয়েকটা
    এসব সরকারের চাপে পড়ে কয়েকটা মাদ্রাসা করতে বাধ্য হচ্ছে। দিনশেষে সবাই সকল মুসলিম মনে জঙ্গিবাদ লালন করে। কোরান হাদিস মানলে জঙ্গি হতেই হবে।

  2. আপনি বলছেন এসব তরুনরা
    আপনি বলছেন এসব তরুনরা বিপথগামী। জ্বী না , এরা বিপথগামী না , বরং আপনিই বিপথগামী। জীবনে কোরান হাদিস পড়ে দেখেন নি , তাই জানেন না ইসলাম কি জিনিস। খালি মুখে মুুখে শুনেছেন ইসলাম শান্তির ধর্ম। ওটা একটা মিথ্যা প্রপাগান্ডা। মাদ্রাসা বা ইমাম-আলেমরা যে এইসব জঙ্গিদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হচ্ছে না, তার কারন , তারা জানে এইসব কথিত জঙ্গিরাই হলো খাটি মুমিন। খাটি মুমিনদের জিহাদী কাজের বিরুদ্ধে এরা প্রতিবাদ করবে কেমনে ?এই সাধারন বিষয়টা বুঝতে আপনার এত সময় লাগছে ?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 62 = 71