ঘরছাড়া সেই মেয়েটির কথা

মেনে নেওয়া অনেক বড় আমাদের সমাজে। মেনে নিলে আপনি টিকে যাবেন নাহলে সব শেষ। আমি আজ অন্য গল্প বলবো। সেই ঘরছাড়া মেয়েটির গল্প। সংসার ছেড়ে আসা মেয়েটির কথা। সমাজের চোখে আবর্জনাও বলতে পারেন। কারণ সমাজের গড়া সংসার ছেড়ে আসা মানুষ যে সে।

যাদের দেখলেই আমরা বলি এমন একটা মেয়ে যে তার বরের ঘরও করতে পারেনি। ছি ছি। নিশ্চিয়ই মেয়েটা খারাপ। পরপুরুষের ব্যাপার নিশ্চয়ই আছে। আরো কতকিছু। অনেক চেনা মানুষ গুলোও তখন অনেক অচেনা হয়ে যায়। অনেক প্রিয় হয়ে থাকা মানুষ গুলোর চোখেও কেমন যেন সে অপ্রিয় হয়ে ওঠে।

অনেক মেয়ে এই বদলে যাওয়া পরিবেশ মানতে পারে না। বেঁচে থাকার আশায় ঘর ছাড়া মেয়েটাও তখন তার আশাটা সিলিং ফ্যান কিংবা বিষের উপর দিতে দেয়। এটাই তখন তার কাছে মুক্তি। শক্ত মনের মেয়ে গুলো টিকে থাকার লড়াইটা চালিয়ে যায়। আমাদের এই অদ্ভুত সমাজে শক্ত হয়ে ওঠাটাও মাঝে মাঝে অসম্ভব হয়।

কোন মেয়ে চায় না তার সাজানো ঘর ফেলে আসতে। ঘর যে তার অনেক আপন। অনেক ঝড়ের পরই সে ঘর ছাড়ে। মানতে মানতে আর কতটা মানা যায় ভাবতে ভাবতে সে ঘর ছাড়ে।

ঘর ছাড়া কাউকে নিয়ে মন্তব্য করার আগে একটু ভাববেন তারও কিছু অপারগতা ছিল, তারও কিছু এমন আঘাত ছিল যা আপনার চোখে পরেনি, যা সে আপনাকে বুঝতে দেয়নি।বোঝা বানিয়ে তাকে আর মারবেন না। সে নিজের কাছে নিজেই একটা বোঝা। তাকে সাহায্য করুন। তাকে বুঝতে দিন জীবনের শেষ এটা নয়। জীবনটা সুন্দর।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “ঘরছাড়া সেই মেয়েটির কথা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

5 + 1 =