ইসলাম এবং সহিষ্ণুতার ভবিষ্যৎ: একটি সংলাপ – স্যাম হ্যারিস এবং মাজিদ নাওয়াজ (৫)

সমস্যার ব্যাপ্তি (তিন)

হ্যারিস: আসলেই এটি সেই সমস্যার ব্যাপ্তিটাকেই বোঝাচ্ছে

নাওয়াজ: এখন, ভিন্ন ভিন্ন বৃত্তগুলো যা কেবলই আমরা শ্রেণীবিন্যস্ত করলাম, সেগুলো নিয়ে আমি যখন কথা বলি, তখন একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জানতে হবে যে, আমি তাদের বৈশ্বিক অর্থে বোঝাতে চেয়েছি। সুনির্দিষ্টভাবে আমেরিকা হয়তো ভিন্ন হতে পারে, যেমন, আমি মনে করি ব্রিটেনের তুলনায়। আমেরিকায় মুসলিমদের সমাজে একীভূত হাবার প্রবণতা বেশ ভালো ছিল সবসময়ই, আমি চাইনা আমাদের পাঠকরা এমন কিছু ভাবুক যে, আমেরিকার মসুলমানদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশকে অবশ্যই রক্ষণশীল হতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম আলোচনার মধ্যে সংস্কারের খুব শক্তিশালী একটি ধারা বিদ্যমান, এবং বেশীর ভাগ আমেরিকার মুসলিমরা সেটা হয়তো সেটি সমর্থনও করেন।

আরেকটি ছোট গ্রুপ, যাদের আমি চিহ্নিত করবো, সেই সব নাগরিকরা যারা ঘটনাচক্রে মুসলিম হয়েছেন। তাদের সাথে সংস্কারপন্হী মুসলিমদের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে এদের অনেকেই যখন সমাজের নানা কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহন করেন তারা নিজেদের প্রথমত মুসলিম বলে পরিচয় দেন না। এটি তাদের সাংস্কৃতিক পরিচয়গুলোর একটি, কিন্তু এটাই প্রথম এবং প্রধান নয়। আমি খুব ভাবনা চিন্তা করেই ‘সেক্যুলার মুসলিম’ শব্দটি এখানে ব্যবহার করতে চাচ্ছিনা, কারণটা অবশ্যই রক্ষণশীল আর সংস্কারপন্হী মুসলিমরাও সেক্যুলার হতে পারেন।

হ্যারিস: বাস্তবিকভাবে, তুমি ‘সেক্যুলার’ শব্দটির আরো বেশী সুনির্দিষ্ট একটি সংজ্ঞা ব্যবহার করছো, যা কিছুটা ভিন্ন এই প্রসঙ্গে শব্দটি সাধারণত যেভাবে ব্যবহার করা হয়। বিষয়টি যদি পাঠকদের জন্য আরেকটু বিস্তারিত করি তাহলে এভাবে বলা যেতে পারে: আপনার ধর্ম আপনার একান্ত নিজস্ব বিষয়, এবং, আমার ধর্ম, বা কোনো একটি ধর্ম না থাকা, সেটাও আমার নিজস্ব বিষয়। ধর্মপ্রতিষ্ঠানগুলো এবং রাষ্ট্রের মাঝখানে একটি বিভাজনের দেয়াল নির্মান করার ইচ্ছা এবং পরিস্থিতিটাই মূলত সেক্যুলারিজমকে সংজ্ঞায়িত করে।- কিন্তু যেমনটি তুমি ইঙ্গিত করছো, এই দেয়ালের পেছনে কোনো একজন হয়তো পুরোপুরিভাবে ধর্মান্ধ হতে পারেন, যতক্ষণ না সে তার উগ্রতার পরিণতিকে অন্যদের উপর জোর করে চাপিয়ে দেবার প্রচেষ্টা না করছে।

নাওয়াজ: সত্য, এবং সেক্যুলার ধর্মীয় ব্যক্তিরা তারপরও একটি মানব অধিকার সংক্রান্ত আলোচনাকে বর্জন করতে পারে একটি মাত্রা অবধি – যে বাস্তব সম্ভাবনা আর আর পরিস্থিতির সাথে আমি নিজেও সন্তুষ্ট নই। তবে আমি যা আশা করছি, মানুষ শুধুমাত্র সেক্যুলারিজমকে গ্রহন করবেই না, বরং তারা গণতান্ত্রিক ও মানবাধিকারের মূল্যবোধগুলোকেও গ্রহন করবে। সুতরাং আমাদের সামনে কাজটি অত্যন্ত সুবিশাল তার মাত্রায়, কিন্তু সেক্যুলারিজম একটি পূর্বশর্ত। মুসলিমদের জন্য এটি একটি অনন্য চ্যালেঞ্জ যার কারণ ইসলামবাদ আর জিহাদবাদের উত্থান। এবং ঐতিহাসিকভাবে ইউরোপীয় প্রেক্ষাপটে যেভাবে সেক্যুলারিজম শব্দটিকে ব্যাখ্যা করা হয়। তবে এই চ্যালেঞ্জটি অনতিক্রম্য নয়।

আদর্শ পরিস্থিতি হিসাবে, আমি আশা করবো সব মসুলমানই হয় সংস্কার-মনা হবেন নয়তো সেই সব নাগরিকদের মতন হবে যারা যারা ঘটনাচক্রে মুসলিম। তুমি এই শেষ গ্রুপটি থেকে কোনো কিছু শুনবে না, যদিও। তারা তোমার কাছে আসবে না এমন কিছু বলতে – হেই, স্যাম, আমি ঐ সব কিছুতেই বিশ্বাস করি না এবং আমি একজন মুসলিম। কারণ তারা সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডে মুসলিম হিসাবে অংশগ্রহন করছেন না। তারা আইনজীবি, চিকিৎসক, তত্ত্ববধায়ক, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, গাড়ী চালক ইত্যাদি। যদি এই সব মানুষ শুধুমাত্র নাগরিক এ পরিণত হয়, এবং তাদের রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার সাথে যদি তারা ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া করে তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে, তাহলে বেশীর ভাগ সমস্যারই সমাধান হতো।

পরিশেষে, কিন্তু মন্তব্য মডারেট মুসলিম শব্দটি নিয়ে, ইসলামিক স্টেট এর পরে, এমনকি আল-কায়েদাকে আপাতদৃষ্টি মৃদুপন্হী মনে হবে। শব্দটি খুবই এতই আপেক্ষিক – ক্রমশ খারাপ হতে থাকা নৃশংসতার পাশাপাশি – যে এটি এখন অর্থহীন শব্দে পরিণত হয়েছে। এটি আমাদের বলতে পারছে না, এই বিশেষণ দিয়ে চিহ্নিত মানুষটি ঠিক কোন মূল্যবোধটি ধারণ করছেন। এ কারণে আমার কাছে শ্রেয়তর সেই শব্দগুলো ব্যবহার করা, যা কোনো বিশেষ মূল্যবোধের প্রতিনিধিত্ব করছে, যেমন ইসলামবাদী, উদারনৈতিক বা লিবারেল, কনজারভেটিভ বা রক্ষণশীল মুসলিম।

হ্যারিস: এই গ্রুপগুলোর আপেক্ষিক আকার নিয়ে তোমার অন্তর্জ্ঞান অবশ্যই আমার নিজের ধারণার সাথে মিলে যাচ্ছে। যেমনটা আমি বলেছিলাম, মুসলিমরা কি বিশ্বাস করে সেই সংক্রান্ত জরিপ থেকে পাওয়া যথেষ্ট পরিমান উপাত্ত আছে আমাদের কাছে। আমি জানতে চাই এই সব উপাত্তগুলোকে তুমি কি বিশ্লেষণ করছো কিনা? বিশেষভাবে যে জরিপগুলো ব্রিটেইনে করা হয়েছে ৭/৭ (৭ জুলাই লণ্ডন টিউব হামলা) লণ্ডনে বোমা হামলার পরবর্তী, যেখানে আমরা দেখেছি যে ২০ শতাংশ ব্রিটিশ মুসলিমরা সন্ত্রাসী হামলাকারীদের উদ্দেশ্যের প্রতি সমবেদনা অনুভব করেছে; ৩০ শতাংশ shari’ah বা শরীয়া আইনের অধীনে বাস করার ইচ্ছা পোষণ করেছে; ৪৫ শতাংশ মনে করেন যে ৯/১১ (নিউ ইয়র্ক ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে সন্ত্রাসী হামলা) ঘটনাটি যুক্তরাষ্ট্র আর ইসরায়েলের মধ্যে একটি ষড়যন্ত্রের পরিণতি এবং ৬৮ শতাংশ ব্রিটিশ নাগরিক মনে করেন যারা ইসলামকে অপমান করে তাদের গ্রেফতার ও বিচার করা ‍উচিৎ (১১) ।

যখন আমরা দেখি ৭৮ শতাংশ ব্রিটিশ মুসলিমরা মনে করেন যে যারাই ডেনিশ কার্টুন প্রকাশ করেছেন তাদের শাস্তি দেয়া উচিৎ – এবং নিশ্চয়ই এদের মধ্যে অনেকেই তাদেরকে হত্যা করা হোক এমনও চেয়েছেন – বিষয়টি খুবই দুশ্চিন্তার। হয়তো তুমি ব্রিটেনের এই বিশেষ পরিস্থিতি নিয়ে কিছু মন্তব্য করতে পারো।

নাওয়াজ: হ্যা, ঐ সব জরিপের ফলাফলগুলো সত্যিই দুশ্চিন্তার কারণ – তবে একটি বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে যে ‘শরীয়ার অধীনে’ বসবাসের ব্যপারটির অর্থ ব্যক্তি বিশেষে খুবই ভিন্ন হতে পারে। কুইলিয়ামে আমরা মূলত লণ্ডন ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান, এবং বিষয়টি আমার কোনো গোপনীয়তা ছাড়াই বলি, যদিও বিষয়টি আমাদের খুব একটা জনপ্রিয় করেনি অমাদের সহধর্মাবলম্বীদের কাছে। আমেরিকার সাথে তুলনা করলে, ব্রিটেনে মুসলিম উগ্রবাদীতার সমস্যাটি সামঞ্জষ্যহীন ভাবে বিশাল, একই পরিস্থিতি ইউরোপে মূল ভূখণ্ডেও। আরো একটি সাম্প্রতিক জরিপের ফলাফল ইঙ্গিত করছে যে ব্রিটেনের ২৭ শতাংশ মুসলিম জানাচ্ছেন প্যারিসে শার্লি হেবদো অফিসে সন্ত্রাসী হামলার উদ্দেশ্যের প্রতি তারা কিছুটা সমবেদনা অনুভব করেছেন। এগারো শতাংশ সমবেদনা অুনভব করেছেন সেই সব মানুষদের জন্য যারা পশ্চিমা স্বার্থের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে চান(১২)।

যদিও এই জরিপটি প্রতিষ্ঠা করেছে যে সংখ্যাগরিষ্ঠরা সহিংস আক্রমনের প্রতি কম সমবেদনা অনুভব করেন ঠিকই, তাসত্ত্বেও এই দুটি সংখ্যা শঙ্কাজনকভাবেই অনেক বড়, বিশেষ করে সেই প্রাসঙ্গিকতায়, যখন প্রায় ১০০০ ব্রিটিশ মুসলিম হয়তো ইসলামিক স্টেট এর জন্য যুদ্ধ করতে দেশ ত্যাগ করেছে।

হ্যারিস: তুমি কি বলবে যে ব্রিটেন এই ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশী সমস্যাপূর্ণ দেশ, যেখানে এর মোকাবেলার করার চ্যালেঞ্জটাও সবচেয়ে বেশী?

নাওয়াজ: যদিও বেলজিয়ামের সবচেয়ে বেশী শতাংশ নাগারিক যারা সাম্প্রতিক সময়ে ইরাক এবং সিরিয়ায় গেছেন ইসলামিক স্টেট এ যোগ দেবার জন্য। গবেষণাপত্র জানাচ্ছে যে, ৫০০ থেকে ১০০০ যারা ব্রিটেন ত্যাগ করেছে তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার স্তর অনেক বেশী এবং তারা তাদের ইউরোপীয় স্বগোত্রীয়দের অনেক বেশী চরমপন্হী (১৩)। এই সংখ্যাগুলো ইঙ্গিত দেয় অস্বস্তিকরভাবে এর বেশ বড় আকারের সংখ্যালঘু এবং এরা কোনো শূন্য থেকে আবির্ভূত হতে পারে না। বাস্তব সত্য হচ্ছে, সবচেয়ে শঙ্কা উদ্রেক করা জরিপগুলো একটি সম্প্রতি যা প্রকাশ করেছে লণ্ডন টাইমস সেটি জানাচ্ছে প্রতি সাত জন তরুণ ব্রিটিশের এক জনের ইসলামিক স্টেট এর প্রতি উষ্ণ অনুভূতি আছে (১৪)। এটি সত্যতা যাই হোক না কেন, এটি প্রস্তাব করছে তৃণমূল পর্যায়ে সমবেদনা স্বস্তি না দেবার মতই মাত্রায় অনেক বেশী। এই সমাজগুলোর মধ্যেই একটি আদর্শগত অন্তঃপ্রবাহ যারা এই সংখ্যাগুলোকে পোষণ করছে। ব্রিটেইন সুস্পষ্টভাবে রুপান্তরিত হয়েছে ইসলামবাদ আর জিহাদবাদের রপ্তানীকারক হিসাবে। আমার প্রাক্তন ইসলামবাদী গ্রুপের অস্তিত্ব পাকিস্তানে ছিলনা, যতক্ষণ না অবধি এটি রপ্তানী করা হয়েছে ব্রিটেন থেকে।
সুতরাং যুক্তরাজ্যে ও ইউরোপ জুড়ে আমাদের সমস্যাটি গুরুতর, এবং এর জন্য আমি কোনো অজুহাত উপস্থাপনও করছি না। আমরা কুইলিয়াম বানিয়েছি এই চ্যালেঞ্জটার সরাসরি মোকাবেলা করার জন্য। আমরা চেষ্টা করবো, প্রথম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, জিহাদবাদীদের বিচ্ছিন্ন করতে বাকী সবার কাছ থেকে, এরপর ইসলামবাদীদের চ্যালেঞ্জ করবো এবং তাদের পৃথক করবো রক্ষণশীল এবং অন্যান্য মুসলিম কমিউনিটিগুলো থেকে। আমরা মুসলিমদের উৎসাহ দিচ্ছি রাজনৈতিক ইসলামবাদ প্রকৃতার্থে কি সেটি দেখতে: এটি একটি আধুনিক আদর্শ যার সূচনা প্রথম শুরু হয়েছিল মুসলিম ব্রাদারহুডের মাধ্যমে। আমরা যুক্তরাজ্যের মুসলিম কমিউনিটিগুলোকে আহবান করবো গণতান্ত্রিক এবং মানবাধিকার ভিত্তিক সংস্কারের বৃহত্তর প্রয়োজনীয়তাকে মনেপ্রাণে সমর্থন করার জন্য। ইউরোপেই কাজটি একটি সুবিশাল চ্যালেঞ্জ, বাকী বিশ্বের কথা তো বাদই দিলাম। সুতরাং আমাদের প্রয়োজন সবধরণের সাহায্য – যা আমরা পেতে পারি।

(চলবে)

ইসলাম এবং সহিষ্ণুতার ভবিষ্যৎ: একটি সংলাপ – স্যাম হ্যারিস এবং মাজিদ নাওয়াজ (৪)

টীকা:

(১১) http://www.cbsnews.com/…/many-british-muslims-put-islam-fi…/.
(১২) http://www.bbc.co.uk/news/uk-31293196.
(১৩) T. Coghlan, “British jihadists wealthier and better educated than those from rest of Europe,” The Times, October 2, 2014
(১৪) O. Moody, “One in seven young Britons has sympathy with Isis cause,” The Times, October 30, 2014

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “ইসলাম এবং সহিষ্ণুতার ভবিষ্যৎ: একটি সংলাপ – স্যাম হ্যারিস এবং মাজিদ নাওয়াজ (৫)

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

92 − = 90