একাত্তরে পাক নৃশংশতার সাক্ষী জিনিঞ্জিরার গণহত্যা

একাত্তরে জানোয়ার পাকসেনারা যে কত হিংস্র হয়ে বাংলার স্বাধীনতাকামী নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করে তা একজন পাকসেনার স্বীকার উক্তি থেকে পাওয়া যায়।

“…we were told to kill hindus and kafirs (non-believers in God). One day in June, we cordoned a village and were ordered to kill the kafirs in that area. We found all the women reciting from the Holy Quran and the men holding special congregational prayers seeking God’s mercy. But they were unlucky. Our commanding officer ordered us not to waste any time”.( comfession of a Pakistani Soilder)।
আর সেই বর্বরতার চূড়ান্ত পরিচয় দেয় তারা জিঞ্জিরায়।

অনেকগুলো ছোট-বড় গ্রাম এবং বেশ কিছু ইউনিয়ন নিয়ে কেরানীগঞ্জ থানা।যা বর্তমানে বৃহত্তর ঢাকার অংশ হলেও ১৯৭১এ ছিল আলাদা আলাদা ইউনিয়নে বিভক্ত।এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ইউনিয়নগুলো হল জিঞ্জিরা,শুভ্যাডা, কালিন্দি ইত্যাদি।যা ছিল বেশ কিছু ছোট এবং বড় গ্রাম নিয়ে গঠিত।মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সময়ে ২৫ মার্চ অপারেশন সার্চলাইটএর পুর্বপরিকল্পিত গণহত্যার পর ঢাকা শহরের বেঁচে যাওয়া মানুষজন পালানোর স্থান ও প্রথম নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসাবে বুড়িগঙ্গা নদীর অপর পাড়ে অবস্থিত জিঞ্জিরার দিকে যাত্রা করে। জিঞ্জিরা ও এর আশেপাশের এলাকাগুলো ছিল তখন প্রধানত হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা। তাই সেগুলো আগে থেকেই পাকিস্তানী বাহিনী কর্তৃক চিহ্নিত ছিল। যখন ঢাকা থেকে পালিয়ে সবাই সেখানে জড় হতে থাকে, তখন পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী সেখানে গণহত্যা চালানোর প্রস্তুতি নেয়।

১৯৭১ সালের ২রা এপ্রিল শুক্রবার ভোরে থেকে শুরু হওয়া নয় ঘণ্টার রোমহর্ষক গণহত্যাটি সংঘটিত হয় কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরা, শুভাড্যা ও কালিন্দী তিনটি ইউনিয়নে । ঢাকার আশে পাশের এলাকার মধ্যে জানোয়ার পাকসেনারা সে সব সিসটেমেটিক গণহত্যা করেছে, জিঞ্জিরার গণহত্যাটিই প্রথম । পাক জানোয়াররা এই পরিকল্পিত অপারেশনটি কেরানীগঞ্জে পরিচালনা করে বিভিন্ন কারনে। এই এলাকাটির অধিকাংশ বাসিন্দা ছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের । আওয়ামীলীগের শক্ত ঘাটি হিসাবেও এর পরিচিতি ছিল ।
কেরানীগঞ্জের মানুষ তখনও ঘুমে অচেতন এবং তাদের ঘুম ভাঙ্গে পাকসেনাদের মর্টার শেল ও মেশিনগানের শব্দে। এর আগে ১লা এপ্রিল বিকালে বুড়িগঙ্গার উপর গানবোট নিয়ে পাকসেনারা টহল দিয়েছিল । কেরানীগঞ্জের জনগণ পাক জানোয়ারদের টহলের সংবাদ পেলেও তারা বুঝতে পারে নাই যে এই টহলটি দেয়া হচ্ছে তাদের কে হত্যা করার জন্য । পাক পশুরা বাংলার নিরীহ জনগনকে হত্যার প্রস্তুতি নিচ্ছিল রাতভর ধরে। কেরানীগঞ্জকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলা হয়েছিল যেন কোন লোক পালিয়ে যেতে না পারে। এই হত্যাযজ্ঞটি পরিচালনা করে কুখ্যাত পাক ব্রিগেডিয়ার রশিদ । মিটফোর্ড হাসপাতাল ও এর পার্শ্ববর্তী মসজিদের ছাদের উপর থেকে পাকসেনা অফিসাররা এই পরিকল্পিত নরহত্যাকে পরিচালনা ও পর্যবেক্ষণ করে । উল্লেখ্য যে মসজিদের উপর থেকে ফ্লেয়ার থ্রো করে গনহত্যার শুরু করার জন্য সিগনাল দেওয়া হয়েছিল।

কেরানীগঞ্জে পৌঁছেই পাকসেনারা প্রথমে জিঞ্জিরা ও বড়িশুর বাজা্রে গান পাউডার ছিটিয়ে আগুনে পুড়িয়ে দিল। মানুষ যে যে দিকে পারে , দিগ্বিদিক হয়ে ছুটছে প্রাণের ভয়ে, সম্ভব রক্ষার ভয়ে। মানুষ যে যেখানে পারে আত্বগোপণ করে। জনোয়ার পাকসেনারা চারদিক থেকে নির্বিচারে হিংস্য বাঘের মত যাকেই সামনে পেল থাকেই হত্যা করল। কেউ রেহাই পাইনি এই দিন, এমনকি মায়ের কোলের শিশু । পুড়িয়ে দেওয়া হল গ্রামের পর গ্রাম । তুলে নেওয়া হল কলেজে পড়ুয়া অনেক মেয়েদেরকে । সবচেয়ে অমানবিক ঘটনাটি ঘটে মান্দাইল ডাকের পুকুরের পারে। ষাট জন নিরপরাধ মানুষকে দাঁড় করিয়ে ব্রাশ ফায়ার করা হয়।রক্তে লাল হয়ে যায় পুকুরের কালো জল।পাশবিক অত্যাচার শেষে বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নৃশংসভাবে এগার জন মহিলাকে হত্যা করা হয় বব। পুরো কেরানীগঞ্জ এলাকায় মৃত মানুষের দেহ রাস্তায়, ঝোপঝাড়ে, পুকুর পাড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল । এই নয় ঘণ্টার নির্মম গণহত্যায় এক হাজারের বেশী নিরীহ মানুষ নিহত হয়েছে বলে ধারনা করা হয় ।

জিঞ্জিরা গণহত্যার পরের দিন, অর্থাৎ ৩ এপ্রিল ১৯৭১ পাকিস্তানী প্রচারযন্ত্র জিঞ্জিরা গণহত্যাকে ধামাচাপা দেয়ার জন্য এবং দেশের অন্যান্য মানুষ ও বহির্বিশ্বকে বিভ্রান্ত করার জন্য হত্যার সপক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করে মিথ্যা খবর প্রচার করে। ৩ এপ্রিল তৎকালীন পাকিস্তান সরকার সমর্থিত পত্রিকা মর্নিং নিউজের একটি সংবাদের শিরোনাম ছিল এরকম,”Action against miscreants at Jinjira” অর্থাৎ “জিঞ্জিরায় দুস্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন”।

আর তৎকালীন পিটিভি (পাকিস্তান টেলিভিশন) ঐ দিন ২ এপ্রিল রাতে খবর প্রচার করে, ” বুড়িগঙ্গা নদীর অপর পাড়ে কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরায় আশ্রয় গ্রহণকারী বিচ্ছিন্নতাবাদী দুস্কৃতিকারীদের কঠোর হাতে নির্মূল করা হয়েছে”

এই ভাবেই আরো ৩০ লক্ষ বাঙালী দূষ্কৃতিকারীর(!) রক্তে হোলি খেলে প্যায়ারে পাকিস্তানের অস্তিত্ব রক্ষার চেস্টা করেছিল তারা। তবে শেষ পর্যন্ত পেরেছিলো কি? ইতিহাস কিন্তু ভিন্ন কথা বলে।

তথ্যসূত্রঃ
১) উইকিপিডিয়া
২) আমার ৭১; নির্মলেন্দু গুণ

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “একাত্তরে পাক নৃশংশতার সাক্ষী জিনিঞ্জিরার গণহত্যা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

74 − 71 =