মুক্তিযুদ্ধে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি-ছাত্র ইউনিয়নের যৌথ গেরিলা বাহিনীর শহীদদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি (২য় পর্ব) – যাদের রক্তে আমাদের গৌরব

শহীদ নিজাম উদ্দিন আজাদঃ
কমরুদ্দিন আহমেদের পুত্র শহীদ নিজাম উদ্দিন আজাদ ঢাকার রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল থেকে মাধ্যমিক, ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্র বিজ্ঞানে ভর্তি হন। তিনি রাজনীতির ক্ষেত্রে সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী এবং সমাজতন্ত্রের পক্ষের সংগঠন ছাত্র ইউনিয়নে যোগ দেন। কলেজ ছাত্রাবস্থায় নিজ মেধা ও যোগ্যতায় অল্পদিনেই সংগঠনের নেতৃত্বের প্রথম সাড়িতে ওঠে আসেন। মৃত্যুর দিন পর্যন্ত তিনি সংগঠনের ঢাকা জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। সন্মান দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রাবস্থায় দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক আসে। সব কিছু পেছনে ফেলে তিনি এগিয়ে যান সামনে। যোগ দেন ছাত্র ইউনিয়ন-ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টির গেরিলা বাহিনীতে। প্রশিক্ষণ শেষে গ্রুপ কমান্ডার হিসেবে গেরিলা বাহিনী নিয়ে মাতৃভুমিকে মুক্ত করার জন্য স্বদেশে প্রবেশকালে বেতিয়ারার ওঁতপেতে থাকা পাক সেনারা হঠাৎ আক্রমন করে। যৌথ গেরিলা দলের যোদ্ধাদের রক্ষার জন্য অস্ত্র হাতে সবার সামনে দাঁড়ান কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে অস্ত্র নিস্ক্রিয় হয়ে পড়ে। যোদ্ধাদের ফেলে রেখে পেছনে ফিরে যেতে চাননি। পাকিস্তানি বাহিসীর প্রতি প্রতিরোধ ব্যুহ রচনা করে নিজের যোদ্ধাদের নিরাপদে পশ্চাদপসরণ করার সুযোগ করে দিলেন। কিন্তু নিজে বরণ করে নিলেন সাহসী বীরের মৃত্যু।

১১ নভেম্বর বেতিয়ারা শহীদদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরা হলোঃ
শহীদ নিজাম উদ্দিন আজাদঃ
কমরুদ্দিন আহমেদের পুত্র শহীদ নিজাম উদ্দিন আজাদ ঢাকার রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল থেকে মাধ্যমিক, ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্র বিজ্ঞানে ভর্তি হন। তিনি রাজনীতির ক্ষেত্রে সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী এবং সমাজতন্ত্রের পক্ষের সংগঠন ছাত্র ইউনিয়নে যোগ দেন। কলেজ ছাত্রাবস্থায় নিজ মেধা ও যোগ্যতায় অল্পদিনেই সংগঠনের নেতৃত্বের প্রথম সাড়িতে ওঠে আসেন। মৃত্যুর দিন পর্যন্ত তিনি সংগঠনের ঢাকা জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। সন্মান দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রাবস্থায় দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক আসে। সব কিছু পেছনে ফেলে তিনি এগিয়ে যান সামনে। যোগ দেন ছাত্র ইউনিয়ন-ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টির গেরিলা বাহিনীতে। প্রশিক্ষণ শেষে গ্রুপ কমান্ডার হিসেবে গেরিলা বাহিনী নিয়ে মাতৃভুমিকে মুক্ত করার জন্য স্বদেশে প্রবেশকালে বেতিয়ারার ওঁতপেতে থাকা পাক সেনারা হঠাৎ আক্রমন করে। যৌথ গেরিলা দলের যোদ্ধাদের রক্ষার জন্য অস্ত্র হাতে সবার সামনে দাঁড়ান কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে অস্ত্র নিস্ক্রিয় হয়ে পড়ে। যোদ্ধাদের ফেলে রেখে পেছনে ফিরে যেতে চাননি। পাকিস্তানি বাহিসীর প্রতি প্রতিরোধ ব্যুহ রচনা করে নিজের যোদ্ধাদের নিরাপদে পশ্চাদপসরণ করার সুযোগ করে দিলেন। কিন্তু নিজে বরণ করে নিলেন সাহসী বীরের মৃত্যু।
শহীদ বশির মাস্টারঃ
মো. বশিরুল ইসলামের জন্ম ১৯৪৯ সালে। পিতা মরহুম অলিউর রহমান। পিতার পেশা ছিল ব্যবসা। মাতা সাহেরা বানু। বড় ভাই ইঞ্জিনিয়ার মো. শহীদুল ইসলাম, যিনি বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ছিলেন। শহীদ বশিরের ৫ বোন। তার বোনেরা হচ্ছেন ১. জাহানারা বেগম(গৃহিনী) ২. হোসনে আরা বেগম(গৃহিনী) ৩. আনোয়ারা বেগম(গৃহিনী) ৪. কামরুন নাহার বেগম বিএবিএড (ইন্সিওরেন্স কোম্পানির চাকরিরত) ৫. গুলজার বেগম বিএবিএড (আমেরিকায় বসবাসরত)।
শহীদ বশির ১৯৬৪ সালে ঢাকা গভ. মুসলিম হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাশ করে । ১৯৬৬ সালে এইচএসসি পাশ করেন। একই কলেজ থেকে ১৯৬৮ সালে বিএসসি পাশ করেন। ১৯৭১ সালে তিনি সেন্ট্রাল ল কলেজে আইনের প্রথম পর্বের ছাত্র ছিলেন। তিনিও বেতিয়ারায় পাক সেনাদের সাথে গেরিলা বাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন।
শহীদ সিরাজুম মুনীর জাহাঙ্গীরঃ
শহীদ মো. সিরাজুম মুনীর জাহাঙ্গীরের পিতা আলহাজ্ব দলিলউদ্দিন আহমদ, মাতা জাহানারা আহমদ। শহীদ মো. সিরাজুম মুনীর জাহাঙ্গীর ছিলেন পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় সন্তান। ১৯৭১ সালে তিনি এমএ শেষ পর্বের ছাত্র ছিলেন। তিনি ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা মহানগর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। পরে ঢাকা জেলা কৃষক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে দেশ মাতৃকার ডাকে সাড়া দিয়ে ছাত্র ইউনিয়ন-ন্যাপ ও কমিউনিস্ট পার্টির যৌথ গেরিলা বাহিনীর নেতৃত্বে বিভিন্ন রণাঙ্গনে যুদ্ধ করেন। শহীদ মো. সিরাজুম মুনীর জাহাঙ্গীর সাহিত্য চর্চা করতেন। ৭১ এ তাঁর ছোট গল্প শিল্পী প্রকাশিত হয়। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সিরাজুম মুনীরের দাদী, ফুপা. ফুপু এবং ফুপাতো ভাইবোনসহ মোট ৯ জন সৈয়দপুরে শহীদ হন। ১৯৭১ সালে এই বীর যোদ্ধা বেতিয়ারায় শহীদ হন।
শহীদ শহীদুল্লাহ্ সাউদঃ
১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে অন্য আর সবার সাথে খেলাঘরও অংশ নিয়েছিল দেশ মাতৃকাকে মুক্ত করার লড়াইয়ে। সে লড়াইয়ে আমরা হারিয়েছিলাম ৩০ লাখ বীরকে। যাদের মধ্যে ছিল অসংখ্য বীর কিশোর। এদেরই একজন শহীদ শহীদুল্লাহ সাউদ।
২ নং ঢাকেশ্বরী কটন মিলের কর্মচারী মো. জাবেদ আলী সাউদ ও মোসাম্মৎ জাবেদা খাতুনের চার সন্তানের মধ্যে শহীদুল্লাহ সাউদ ছিলেন ৩য়। গোদানাইল প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পড়াশুনা শেষ করে তিনি ভর্তি হন গোদানাইল হাইস্কুলে। এরই মধ্যে তিনি জড়িয়ে যান ঝিলিমিলি খেলাঘর আসরের সাথে। ছাত্র ইউনিয়নও করতে শুরু করেন স্কুলজীবন থেকেই শহীদুল্লাহ সাউদ যখন ক্লাশ নাইনের ছাত্র তখন শুরু হয় মহান মুক্তিযুদ্ধ। মাত্র ১৪ বছর বয়সে ক্লাশ নাইনের ছাত্র শহীদুল্লাহ্ সাউদ দেশকে ভালোবেসে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে। যুদ্ধে যাওয়ার পরেও তাঁর বাড়ির সাথে তার যোগাযোগ ছিল। তিনি বাড়ির সবাইকে কেবলই জানাতেন ভাল আছি কাজ শেষ হলেই ফিরব। অসীম সাহসে লড়াই করতে করতে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের বেতিয়ারায় আরো ৮ জন সহযোদ্ধার সাথে তিনিও শহীদ হন।
শহীদ আব্দুল কাইউমঃ
শহীদ আব্দুল কাইউম, পিতা-মৃত ছানাউল্লাহ মিয়া, মাতা-মৃত হালিমা খাতুন, গ্রাম-চর শোলাদি, থানা-হাইম চর, জেলা-চাঁদপুর। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধচলাকালীন সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.এ.ক্লাশের ছাত্র ছিল। দেশ মাতৃকার ডাকে গেরিলা বাহিনীতে যোগ দেয়। বেতিয়ারার অন্যান্য শহীদদের সাথে তিনিও পাক বাহিনীর সাথে সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন।
শহীদ আওলাদ হোসেনঃ
শহীদ আওলাদ হোসেনের বাড়ি নারায়নগঞ্জ জেলার সোনাচড়া গ্রামে। তিনি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.এস.সি ক্লাসের ছাত্র। ৬৯ এর গনঅভ্যুত্থানেও তিনি সক্রিয় ভুমিকা পালন করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে ন্যাপ-কমিউনিস্ট গেরিলা বাহিনীর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বেতিয়ারায় সম্মুখ সমরে শহীদ হন।
শহীদ আব্দুল কাদেরঃ
কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুণবতী স্টেশনের নিকটবর্তী সাতবাড়িয়া গ্রামের সন্তান আব্দুল কাদের। ১৯৭১ সালে তিনি সক্রিয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন । এসময় তিনি ভারতে ট্রেনিং প্রাপ্ত হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে দেশের অভ্যন্তরে রণক্ষেত্রে নিরাপদে পৌছে দেয়ার দায়িত্ব পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা বাহিনীকে স্বদেশে পৌছে দেয়ার সময় কুমিল্লার বেতিয়ারায় পাক সেনাদের সাথে সম্মুখ সমরে শহীদ হন।
শহীদ মোহাম্মদ শফিউল্লাহঃ
নোয়াখালীর সাহসী সন্তান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শফিউল্লাহ, প্রগতিশীল রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই তিনি প্রতিরোধ সংগ্রমে দৃঢ়ভাবে এগিয়ে আসেন এবং নিজ এলাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে শক্ত ভিত্তি গড়ে তোলেন। মাতৃভূমিকে স্বাধীন করার জন্য তিনি গেরিলা বাহিনীতে যোগ দেন। ১৯৭১ সালে এই বীর দেশপ্রেমিক বেতিয়ারায় শহীদ হন।
বেতিয়ারার সম্মুখ যুদ্ধে যে সমস্ত ব্যক্তি এখনও বেঁচে আছেন–তাদের মধ্যে অন্যতম বুয়েটের সাবেক ভিপি যুব নেতা প্রকৌশলী হিলাল উদ্দিন, শ্রমিক নেতা আবুল কালাম আজাদসহ অনেকেই।
এই সম্মুখ যুদ্ধে গেরিলা বাহিনীর হতাহতের পাশাপশি পাকিস্তানী বাহিনীর অসংখ্য সৈনিক মৃত্যুবরণ করেন ও ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। যা আজও আমাদের মুক্তির সংগ্রামের ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে আছে। এমনই অসংখ্য গেরিলা যুদ্ধ, সম্মুখ যুদ্ধ, মিত্র বাহিনীর সাথে সম্মিলিত যুদ্ধের মধ্য দিয়েই ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাক হানাদার বাহিনীর আত্নসমর্পন ও ঐতিহাসিক সশস্ত্র বিজয়ের মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যূদয় ঘটে ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 66 = 75