বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দান করে ইসরাইল

?w=748″ width=”550″ />
ইসরাইলের ওয়েব সাইটে।

বাংলাদেশের পাসপোর্টে পৃথিবীর সকল স্বাধীন রাষ্ট্রে যাওয়া সম্ভব হলেও একমাত্র ইসরাইলে যাওয়া সম্ভব নয়। রাষ্ট্রটির সাথে আমাদের যেমন কোন কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই তেমনি রাষ্ট্রটিতে যাওয়ার জন্যে আছে নিষেধাজ্ঞা। তবে পৃথিবীর অনেক মুসলিম রাষ্ট্রের সাথে ইসরাইলের কূটনৈতিক সম্পর্ক আছে। এমনকি সৌদি রাষ্ট্রের সাথে আছে অভ্যন্তরীণ সম্পর্ক।

২৬শে মার্চ ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ’কে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করার মধ্য দিয়ে দেশকে দখলদার মুক্ত করার জন্যে বাঙালি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। সেই স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশ’কে স্বীকৃতি দেয় ইসরাইল। ইসরাইল বাংলাদেশকে ১৯৭২ সালের ৪ ফেব্রুয়ারিতে দ্বিতীয়বার স্বীকৃতি দেয়। অথচ বাংলাদেশের গুটি কয়েক মুসলিম রাষ্ট্র (যেমন ইরাক) ছাড়া অন্য মুসলিম রাষ্ট্র ছিল স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্র সৃষ্টির বিরোধী। এমনকি দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও তারা বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান করে নি। মুসলিম বিশ্বের মাতব্বর সৌদি আরব বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় শেখ মুজিবকে খুন করার পর। এমনকি হজ্ব পালনে বাঁধা পর্যন্ত দিয়েছিল সৌদি আরব। অথচ মুসলিম রাষ্ট্র থেকে স্বীকৃতি নেওয়ার জন্যে বাংলাদেশ OIC-তে যোগ দিয়েছিলেন। পাকিস্তানের সেই সম্মেলনে গিয়েছিলেন শেখ মুজিব।

?w=748″ width=”550″ />
মানুষের ধর্মীয় হজ্ব পালন পর্যন্ত কেড়ে নিয়েছিল সৌদি আরব

১৯৭১ সালের এপ্রিলের ২৮ তারিখে বাংলাদেশ সরকারকে ইসরাইল স্বীকৃতি প্রদান করে একটি চিঠি পাঠায় এবং সেই সাথে অস্ত্র সাহায্য দেবে বলে প্রতিশ্রুতি প্রদান করে কিন্তু তৎকালীন মুজিব নগর সরকার সেই স্বীকৃতি ফিরিয়ে দেয়। তৎকালীন নেপালে নিযুক্ত ইজরায়েলের রাষ্ট্রদূত বলেন, “ইজরায়েল বাংলাদেশের জনগণের সংগ্রামের সাথে তাদের মিল খুঁজে পেয়েছিল।

দ্বিতীয়বার তারা আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয় বাহাত্তর সালের ফেব্রুয়ারি মাসের চার তারিখে। মন্ত্রীপরিষদের নিয়মিত সভার অপেক্ষা না করে সব মন্ত্রীর সাথে টেলিফোনে আলাপ করে, তাদের সম্মতি নিয়ে ইজরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদকে তারবার্তা পাঠান।

srael Recognizes Bangladesh
February 7, 1972
JERUSALEM (Feb. 6)

Israel has officially recognized the new state of Bangladesh. The announcement said that Foreign Minister Abba Eban informed Bangladesh Foreign Minister Abdus Samad Azad of the recognition in a cable Friday. The recognition decision was taken after telephone consultations with all members of the Cabinet Friday instead of waiting for today’s regular Cabinet meeting.

বলা হয়, তৎকালীন সরকার এর জবাব দেবার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেননি। ইসরাইল রাষ্ট্রটি আমরা সাপোর্ট করি বা না করি, ফিলিস্তিনের পক্ষে সমর্থন অথবা অন্যদের মতন মুসলিম মুসলিম ভাই ভাই ভিত্তিতে ইসরাইলকে যদি ঘৃণা/অস্বীকার করি তারপরও এই ইতিহাসটি মিথ্যে নয়। সত্য কিংবা ইতিহাস জানতে বা জানাতে হলে ঐ দেশটির আদর্শ গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক নয়।

?w=748″ width=”550″ />

ইসরাইলের সাইটে এখনও সেই স্বীকৃতি সংবাদটি আছে। লিংক-এখানে

অল কান্ট্রিজ এক্সসেপ্ট পাকিস্তান ব্লগ থেকে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দান করে ইসরাইল

  1. বাংলাদেশের প্রেমে কাতর হয়ে
    বাংলাদেশের প্রেমে কাতর হয়ে ইসরাইল ভারতকে সাহায্য করেছিল ব্যাপারটি এমন নয়। ইসরাইল নামক দেশটির অর্থনীতির একটা বড় অংশ আসে অস্ত্র বিক্রি করে। পৃথিবীর মারাত্নক ধবংশাত্নক অস্ত্র আর ড্রোনের মূল নর্মাতা হচ্ছে ইসরাইল। ভারত ইসরাইলের অস্ত্রের অন্যতম ক্রেতা। তাই যতই যুদ্ধ লাগবে , ততই অস্ত্রের জমজমাট ব্যবসা হবে ইসরায়েলের। তবে এসব খবর কোন কালেই পত্র-পত্রিকায় আসবে না।

    1. পৃথিবীতে কোন দেশ প্রেমে কাতর
      পৃথিবীতে কোন দেশ প্রেমে কাতর হয়ে কার জন্যে কী করে? স্বার্থ, রাজনৈতি, অর্থনৈতিক বিষয়গুলোর উপর নির্ভরকেই একে অপরের পাশে দাঁড়ায়। ৭১-এ পাকিস্তানকে অস্ত্র দিয়েছে চীন ও আমেরিকা। বাংলাদেশকে অস্ত্র দিয়েছে ভারত আর সহযোগীতা করেছে রাশিয়া। এক দুইটা মুসলিম রাষ্ট্র ছাড়া আর কেউ তো পাশে দাঁড়ায়নি। এমনকি শরণার্থীদের জন্যে এক বস্তা চাল দেয়নি।

  2. বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর
    বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে,এই পযন্ত ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হতে পারে না।
    যা কিনা ৪ মুল নীতির একটি।ভোটের রাজনীতি ক্ষমতার রাজনীতি,বাংলাদেশকে সঠিক পথের বাংলাদেশ হতে দেয় না।।
    বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 1 = 3