মিডিয়ার প্রতি অনুরোধ : আসুন হেফাযতিদের বয়কট করি।

৫ মে হেফাজতিরা সমাবেশ করবে এবং ইতমধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গায় করেছে। দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে যে সমাবেশগুলো করেছে তা ইলেকট্রনিক মিডিয়া তেমন গুরুত্ব দেয়নি। কিন্তু গত ৬-ই এপ্রিলের সমাবেশকে মিডিয়া অতিমাত্রায় গুরুত্ব দিয়েছে। সরাসরি সম্প্রচার থেকে শুরু করে হেফাজতিদের লাইভ সাক্ষাতকার কোনটা বাদ রাখেনি।
এবার বিশেষ অনুরোধ দয়া করে হেফাজতিদের নিয়ে আপনাদের(মিডিয়া) আস্ফালন বন্ধ করুন। তারা এমন কিছু বলেনা বা করেনা যা লাইভ দেখানোর প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি।এছাড়াও নিম্নোক্ত কারনে হেফাজতীদের মিডিয়ার বয়কট করা উচিত……
১) তারা যখন কথা বলে মিথ্যা বলে , তাদের মুখ দিয়ে বিসবাস্প বের হয়।তাদের এইসব মিথ্যা বিসবাস্প থেকে দেশের সাধারন মানুষকে দূরে রাখার জন্য হেফাজতিদের মিডিয়ার বয়কট করতে হবে।
২) তারা বাংলাদেশের চেতনায় , বাংলাদেশের অস্তিত্ত্বে বিশ্বাস করেনা।তারা যা বলে তা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে দেশ বিরোধি কথা। কোন ব্যক্তি বা দলের দেশ বা সংবিধান বক্তব্য সরাসরি দেখানো একধরনের অপরাধ এবং এতে সাধারন মানুষ বিভ্রান্ত হয়।
৩) হেফাজতিরা সাম্প্রতিক সময়ে তাদের বক্তব্যে যে কথাগুলো বলে তাতে ধর্মের লেশমাত্র থাকেনা যদিও তারা এইসব সমাবেশকে ইসলামি সম্মেলন বলে প্রচার করে , তাদের প্রতিটি উক্তি হয় রাজনৈতিক এবং হিংসাত্বক। এবং বাংলাদেশের মুল আদর্শের সাথে সংঘাতমূলক। এই ধরনের বক্তব্য প্রচার করা থেকে অবশ্যই মিডিয়া কে বিরত থাকা উচিত।
৪) হেফাজতি কর্মীদের দেশ , সংবিধান , আধুনিক সমাজ ব্যবস্থা, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ইত্যাদি বিষয়ে তেমন কন ধারনা নাই কিন্তু কোন টিভি চ্যানেল যখন তাদের সাক্ষাতকার নিতে যায় তখন তারা এইসব বিষয় নিয়ে কথা বলে যা হয় প্রলাপমাত্র।
৫) সর্বোপরি হেফাজতিরা যেহেতু এই দেশ ও সমাজ ব্যবস্থার বিরোধি একটি শক্তি তাই আমাদের সকলের দায়িত্ব যে তাদের প্রতিরোধ করা। আমরা যদি তাদের অনুষ্ঠান লাইভ করি এবং বিভিন্ন টকশোতে তাদের আমন্ত্রণ জানাই তাহলে তা এই দেশ ও সমাজএর জন্য অবশ্যই আত্মঘাতি।
আমরা বিশ্বাস করতে চাই মিডিয়া শুধু তাদের ব্যবসায়িক দিক চিন্তা না করে দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থে হেফাজতি তথা দেশ ও স্বাধীনতা বিরোধী যে কোন শক্তিকে বয়কট করবে এবং রুখে দিবে ।

ভালো থাকুক আমার প্রিয় বাংলাদেশ।
বেচে থাকুক আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৯ thoughts on “মিডিয়ার প্রতি অনুরোধ : আসুন হেফাযতিদের বয়কট করি।

  1. হেফাজতিদের বয়কট হলুদ
    হেফাজতিদের বয়কট হলুদ সংবাদিকতা। তবে বয়কট করা মানুষ হিসেবে তাদের নৈতিক দায়িত্ব। তাই নৈতিকতা রক্ষার দায়িত্বে হলুদ সাংবাদিকতা করা যায়।

  2. আমাদের দেশে যেটি লুকায়িত থাকে
    আমাদের দেশে যেটি লুকায়িত থাকে বা বয়কট করা হয় তার উপর পাবলিকের আকর্ষণ বহুগুনে বেড়ে যায়। সঙ্গত কারণেই হেফাজতিদের অনুষ্ঠান বয়কট করার বিপক্ষে আমি। তারা জাতির সামনে কি বলতে চায় বলুক। তাতে আমাদের কি আসে যায়। পাবলিক সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ভূল করেনা….

    1. হেফাজতিরা হচ্ছে ডাস্টবিনের
      হেফাজতিরা হচ্ছে ডাস্টবিনের আবর্জনা। জানেনতো ডাস্টবিনের আবর্জনা ঘাঁটাঘাঁটি করলে শুধু দুর্গন্ধ বের হয়। মিডিয়া ওদের নিয়ে যত ঘাঁটাঘাঁটি ক্রবে তত দুর্গন্ধ বের হবে , ভালো কিছু বের হবেনা। তাই মীদিয়ার উচিত ওদের বয়কট করা।

  3. মিডিয়া পুরো পৃথিবী ব্যাপী
    মিডিয়া পুরো পৃথিবী ব্যাপী একটা ব্যবসায়ী মনোভাব নিয়ে চলে। ব্যবসার প্রসারের জন্য হেফাজতিদের নাটের গুরু সফি মোল্লার টয়লেটের দৃশ্য কোনদিন লাইভ দেখাবে সেই আশাতেই আছি। জাতি এখন সফি মোল্লার গু-এর কালার দেখতে আগ্রহী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 + 1 =